Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

চট্টগ্রাম বন্দরে যন্ত্রপাতির কন্টেইনারে কোটি টাকার মদ

চট্টগ্রাম, ১৭ এপ্রিল: মূলধনী যন্ত্রপাতির ঘোষণা দিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানিকৃত একটি কন্টেইনারের ভেতর বিভিন্ন ব্রান্ডের বিদেশি মদ, সিগারেট ও এলসিডি টেলিভিশন পাওয়া গেছে। পলাশপুর, রাজবাড়ি কেরানিগঞ্জ, ঢাকা – লেখা ওই কন্টেইনারের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান হচ্ছে পিম এমএফজি অ্যান্ড কোম্পানি।

 

মঙ্গলবার কন্টেইনার পরীক্ষা করে কোটি টাকা মূল্যের ঘোষণা বহির্ভূত এসব পণ্য আনার বিষয়ে নিশ্চিত হয় চট্টগ্রাম কাস্টমসের শুল্ক গোয়েন্দা বিভাগ।

 

বন্দরের জেআর ইয়ার্ডে থাকা ওই প্রতিষ্ঠানের অপর কন্টেইনার বুধবার খোলা হবে বলে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

 

কাস্টমস এর অডিট ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড রিসার্চের (এআইআর) রাজস্ব কর্মকর্তা অরিন্দম চাকমা জানান, “মূলধনী যন্ত্রপাতিতে আমদানি শুল্ক তিন শতাংশ। এই সুযোগে প্রতারণার মধ্যমে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান পিম এমএফজি অ্যান্ড কোম্পানি নিয়ে আসে ৫০০ শতাংশ শুল্কের মদ আমদানি করেছে। আইন অনুযায়ী শুধু বন্ডেড প্রতিষ্ঠানই শর্ত সাপেক্ষে মদ আমদানির সুযোগ পেয়ে থাকে।”

 

পণ্য আসার দীর্ঘদিন পরও আমদানিকারক কাস্টমসে কোনো বিল অব এন্ট্রি দাখিল না করায় সন্দেহ হয় বলে তিনি জানান।

 

কাস্টমসের এআইআর শাখা সূত্র জানায়, মালয়শিয়া থেকে এক চালানের ৪০ ফুটের দু’টি কনটেইনারে করে আট ইউনিট মূলধনী যন্ত্রপাতি আমদানি করার ঘোষণা দিয়েছিলো পলাশপুর, রাজবাড়ি কেরানিগঞ্জ ঢাকার ঠিকানাধারী আমদানিকারক প্রতিষ্ঠানটি। কিন্তু তাদের আমদানিকৃত চালানের একটি কন্টেইনার পরীক্ষা করে পাওয়া যায় বিভিন্ন ব্র্যান্ডের এক হাজার ৪৮৬ কার্টন বিদেশি মদ, ৫০টি মাস্টার কার্টন বেনসন অ্যান্ড হেজেজ সিগারেট, ২০টি মাস্টার কার্টন কোরিয়ান ইএসই লাইট সিগারেট ও দুইটি ১৭ ইঞ্চির এলসিডি টিভি।

 

গত বছরের এপ্রিল মাসেও চট্টগ্রাম বন্দরে আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান এস এস এন্টারপ্রাইজের মদের একটি বিরাট চালান আটক করেছিল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। পাওয়ার টিলার ঘোষণা দিয়ে আরব আমিরাত থেকে আনা মদের চালানটি নিয়ে তখন বেশ তোলপাড় সৃষ্টি হয় চট্টগ্রাম কাস্টমসে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট