Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

৫ ক্লাবের ঐক্য, বিসিবি’কে ৪ দাবি মানতে হবে

ঢাকা, ১২ এপ্রিল: সিসিডিএমের ঘোষণা অনুয়ায়ী কাল শুক্রবার লিগ শুরু হওয়ার কথা। কিন্তু আজ বৃহস্পতিবার আবাহনী লিমিটেড ঘোষণা করেছে ৫ ক্লাব দলের যৌথভাবে দেয়া ৪ দাবি না মানলে লিগ শুরু হবে না। লিগ শুরুর একদিন আগে আবাহনী ক্লাব তাদের অফিসে এক সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

 

সংবাদ সম্মেলনে দুপুরে উপস্থিত হন আবাহনীর ক্রিকেট কমিটির চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান পাপন। বিসিবি ও সিসিডিএমের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করাসহ বিসিবি ও সিসিডিএমের কর্মকর্তাদের যোগ্যতা নিয়েই তিনি মিডিয়ার সামনে প্রশ্ন তোলেন এবং যুক্তি দিয়ে সব কিছু প্রমাণ করার চেষ্টা করেন।

 

পাপন মিডিয়া উদ্দেশ্যে বলেন,“আমি আবাহনীর ক্রিকেট দলের দায়িত্ব নেবার পর থেকেই একের পর এক অপ্রত্যাশিত ঘটনা ঘটছে। এশিয়া কাপের ফাইনালের পর আমাকে বলা হলো ২৪ এপ্রিল থেকে লিগ শুরু। অথচ ক্রিকেটাররা তখনো হোটেলেই ছিল। আসলে বিসিবি আর সিসিডিএম একটি দলের জন্য কাজ করছে। আমরা কোনো কথা বললে বিসিবি বা সিসিডিএমে কাজ হয় না। অন্য দল বললে কাজ হয়। সব দলের জন্য আইন তো সমান হবার কথা! আমরা চাই লিগ শুরু হোক। আমাদের জন্য লিগ বন্ধ থাকুক তা চাই না। তারপরও বলতে হচ্ছে এবারের লিগ জঘন্যতম লিগ। সূর্যতরুণকে নিয়ে যা করেছে সিসিডিএম তা তো . . .। বিকেএসপিতে কলাবাগান আর সূর্যতরুণ ম্যাচ রেফারি লিখিত দিয়েছে কোনো দলই খেলতে রাজি হয়নি। তাই কোনো দলের পয়েন্ট কাটা যাবে না। অথচ সিসিডিএম পরে বিশেষ সভা করে কলাবাগানকে পয়েন্ট নিয়ে সূর্যতরুণকে প্রিমিয়ার লীগ থেকে নামিয়ে দিল! ম্যাচ রেফারির সিদ্ধান্ত মতো বাতিল হয়ে গেল! আমরা জানতে চাই আইনটা আসলে কী?”

 

তিনি আরো বলেন, “২৮ এপ্রিল মিরপুরে ভিক্টোরিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে মোহামেডান আমাদের বার বার বলেছে মোহাম্মদ ইউসুফের বিষয়টি। আমরা তেমন ভাবে আমলে নেইনি। কিন্তু পর দিন সকালে বিষয়টি বুঝতে পারি। এবং মাঠে ম্যাচ রেফারিকে জানাই। কিন্তু তারা কোনো ফলাফল দিতে ব্যর্থ হন। আমরা সকাল ১১টা সিসিডিএম বরাবরে চিঠি পাঠায়ই। তারা আমাদের চিঠি রিসিভ করেনি! যা কিছু হচ্ছে তা আমাদের ওই ম্যাচে না খেলার কারণে। সেদিন আমরা অবৈধ কাজ করেনি। আমরা জানি ইউসুফের ছাড়পত্র জাল। জেনে শুনে আমরা খেলতে পারি না।”

 

 

পাপন বলেন, “একদিনে মধ্যেসভা করে সূর্যতরুণকে নামিয়ে দেয় হলো। অথচ আমাদের সিদ্ধান্ত দিতে সিসিডিএমের এতোদিন লেগে গেল! একটি অবৈধ ইস্যু সিসিডিএম বৈধ ঘোষণা করেছে আর তা বিসিবি মেনে নিয়েছে! আমরা আর কত চুপ করে থাকবো? ৭ এপ্রিল বিসিবি যে চিঠি পাঠায় আমাদের। তাতে যা লেখা হয়েছে তা তো রীতিমতো বোমা ফাটার মতো বিষয়। চিঠিতে লেখা হয়েছে মোহাম্মদ ইউসুফ ২৮ এপ্রিলের পর থেকে আর কোনো ম্যাচে খেলতে পারবে না। তাহলে প্রশ্ন উঠে মোহামেডান সিসিডিএমকে চিঠি দিয়েছে কবে? আমাদের খেলার (২৮ এপ্রিল) আগে না পরে? মোহামেডান সিসিডিএমকে ২৮ এপ্রিলের আগে চিঠি দিয়েছে। তাহলে আমাদের বিপক্ষে ওই ম্যাচের জন্য ইউসুফ বৈধ! আর পরের ম্যাচের জন্য অবৈধ! কতটা অযোক্তিক আর অবৈধ কার্যক্রম! বিসিবি একটি দলের জন্য কাজ করছে। আর তা বিসিবির ওই চিঠিতে সব পরিষ্কার। আবাহনীর জন্য লিগ বন্ধ থাকুক তা আমরা চাই না। আমরা বিসিবি-সিসিডিএমের অবৈধ কার্যক্রম মেনে নিতে পারছি না। বিসিবি-সিসিডিএম সূর্যতরুণের সঙ্গে যা করেছে তা যেমন মেনে নেয়া যায় না, তেমনি এই  ঘটনাও মেনে নেয়া যায় না।”

 

আজকের পরিস্থিতির জন্য দায়ী কারা? জানতে চাইলে পাপন বলেন, “আসলে কি এ নিয়ে আর নতুন করে কি বলব! ওনারা (বিসিবি) তো নিজেরাই নিয়ম জানেন না। আসলে আমরা কারো উপর দোষ চাপাচ্ছি না। কিন্তু বিসিবিকে সিসিডিএমের ভেতর থেকে দোষী লোকগুলোকে বের করে শাস্তি দিতে হবে। সেটা যদি বিসিবির লোকও হয় তাহলেও দিতে হবে।।”

 

তিনি বলেন,  “আজ সকালে আমরা পাঁচদল এক সঙ্গে বিষযটি নিয়ে আলোচনা করেছি। চারটি দলই আমাকে সাপোর্ট দিয়েছে। সত্যি আমি অবাক হয়েছি। চার দল আমাকে বলেছে সকলের স্বাক্ষরিত বিসিবি বরাবরে একটি চিঠি পাঠানো হবে। তাতে চারটি দাবি জানানো হবে। প্রথমত, ১৭ এপ্রিল লিগ শুরু করা। কারণ আমাদের বিদেশী ক্রিকেটার আনতে সময় লাগবে। দ্বিতীয়ত, সিসিডিএমকে ভেঙ্গে নতুন করে পূর্ন গঠন করতে হবে, তৃতীয়ত, যাদের জন্য এই ঘটনা তাদের কঠোর শাস্তি দিতে হবে ও চতুর্থত, ভিক্টোরিয়ার বিপক্ষের ওই ম্যাচের পয়েন্ট আবাহনীকে দিতে হবে। এই চারটি ইস্যু দিয়ে আমরা আজ বা কাল বিসিবিতে টিঠি দেব।”

 

সিসিডিএমের অধীনে কোনো ম্যাচই নিরাপদ নয় বলেও বলেন তিনি।

 

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট