Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সুরঞ্জিত কি পদত্যাগ করবেন

ঢাকা, ১১ এপ্রিল: রেলমন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত কি পদত্যাগ করবেন-এখন গোটা দেশে এই প্রশ্ন ওঠেছে। এ প্রশ্ন ওঠার কারণও রয়েছে। সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত নিজেকে সবসময় একজন ‘নীতিবান’ ব্যক্তি হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা করেন। বিশেষ করে মন্ত্রী হওয়ার আগে তিনি যেভাবে বক্তব্য রেখেছেন তাতে জনগণ তাকে আওয়ামী লীগের ‘বিবেক’ বলে মনে করে নিয়েছিল। তিনি তখন মন্ত্রীদের সমালোচনা করে বলেছিলেন, শুটকির বাজারে যদি বিড়ালকে পাহারা দেয়ার দায়িত্ব দেয়া হয় তাহলে তার অবস্থা যা হওয়ার তাই সরকারের অনেক মন্ত্রণালয়ে হচ্ছে। কিন্তু এখন তো ‘কালো বিড়াল’ তার ঘরেই। এখন তিনি কী বলবেন-এই প্রশ্ন বড় হয়ে আসবে সেটাই স্বাভাবিক।

সুরঞ্জিত বলেছেন, “এপিসিএস কোথায় কী করছে তা জানান দায়িত্ব আমার নয়।” প্রশ্ন হলো-তিনি যদি এপিএস-এর দায়িত্বই নিতে না পারেন তাহরে মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব কেন নিলেন। তাকে কি আসলেই কোনো ‘দায়িত্বশীল’ ব্যক্তি বলা যায়-তাকে দোষ দেয়া যাবে?

এক ব্যক্তি অবৈধ টাকা নিয়ে ধরা পড়লো-তাকে পুলিশে দেয়া হলো না কেন? তাকে ছেড়ে দেয়ার জন্য রেলের লোকজন ওঠেপড়ে নামলো। মন্ত্রী নিজেও নাকি এ ব্যাপারে ভূমিকা রেখেছেন। এর অর্থ একটাই, এই টাকার উৎস যাতে কেউ না জানতে পারে। প্রশ্ন ওঠেছে-মন্ত্রী কি এই টাকার কথা জানতেন না? তিনি জানতেন না-এটি এখন আর কেউ বিশ্বাস করবে না। সুরঞ্জিত তার স্বভাবসুলভ এই বিষয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে যতই ‘আইন বিভাগ, বিচার বিভাগ’ নিয়ে তাত্ত্বিক বক্তব্য রাখুন না কেন-কেউ তা যে মানবে না তা বলাই বাহুল্য।

বুধবার এই খবরটি ছিল টক অব দ্য কান্ট্রি। সুনামির আতঙ্কও এই বিষয়টিকে ধামাচাপা দিতে পারেনি। বরং এপিএস ওমর ফারুকের এই খবরই রাজনীতিতে এক ধরনের সুনামি তৈরি করেছে। কর্নেল অলি সুরঞ্জিতকে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর তার পদত্যাগের দাবি করেছেন। গয়েশ্বর রায়ও একই কথা বলেছেন। রেল মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। সব মিলিয়ে চারদিকে উত্তপ্ত পরিবেশ। তবে সুরঞ্জিতের দল আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এ বিষয়ে কেউ কোনো কথা বলেনি।

বলা হচ্ছে, রেলে নিয়োগ বাণিজ্যের হোতা এপিএস ফারুক তালুকদার। এটি কি সুরঞ্জিত জানতেন না? তিনি দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছেন। দেখা যায়, এপিএস’র তদন্ত করবেন পিএস। বিষয়টি যে হাস্যকর তা বলাই বাহুল্য। তাই বিএনপির এমপি বিচার বিভাগীয় তদন্ত দাবি করেছেন।

শোনা যাচ্ছে, যে দেশপ্রেমিক ড্রাইভার এই অবৈধ টাকা বিজিবির হাতে ধরিয়ে দিয়েছিলেন তাকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। যদি তাই হয় তাহলে তা কেবল সুরঞ্জিতের জন্য নয়, মহাজোট সরকারের জন্যও একটি অশনি সংকেত হয়ে দেখা দেবে। সরকারের নীতি-নির্ধারকরা বিষয়টি নিশ্চিত জানেন। সামনেই ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচন। আর এই নির্বাচনের আগমুহূর্তে এমন একটি ঘটনা সরকারের জন্য যে বুমেরাং হবে তা তো আর অস্বীকার করা যাবে না। সরকার বিষয়টি কিভাবে সামলান-সেটিই এখন দেখার বিষয়।

ব্যর্থতার দায়িত্ব নিয়ে বাংলাদেশে মন্ত্রীদের পদত্যাগের নজির নেই বললেই চলে। একমাত্র ব্যতিক্রম চট্টগ্রামের জহিরউদ্দিন খান। তিনি ১৯৯১ সালে বিএনপি সরকারের শিল্পমন্ত্রী ছিলেন। সার নিয়ে তখন কেলেঙ্কারির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনায় তিনি পদত্যাগ করেন। এটি বাংলাদেশে একটি নজির হয়ে আছে। ভারতে রেলমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকাকালে ওই মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী লালবাহাদুর শাস্ত্রী ব্যর্থতার দায় নিয়ে পদত্যাগ করেছিলেন। সুরঞ্জিত কি তেমনটি করবেন?

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


3 Responses to সুরঞ্জিত কি পদত্যাগ করবেন

  1. Agrodut

    April 11, 2012 at 10:49 pm

    নেত্রীকে ক্রমাগত তিনবছর তেল মেরে শেষ বেলায় মন্ত্রী হয়েছেন। তেলের দাম উঠাতে হবে না?

  2. Potibad

    April 12, 2012 at 5:06 pm

    চোর চোরের লজজা কিসের রাজনীতি যারা করে সবারই লজজা থাকা উচিত ক্ষমতায় গেলে সবাই চোর হয়ে যায়

  3. Politiics

    April 12, 2012 at 5:23 pm

    রাজনীতিবিদরা চেষ্টা করলে আমাদেরকে একটা সুন্দর দেশ উপহার দিতে পারেন কিন্তু তারা ক্ষমতায় গেলে কেন যে চোর হয়ে যায় আমি বুঝি না ——— নাকি রাজনীতি যারা করে সবাই চোর তাই চোরের সাথে সাথে থাকতে থাকতে ভালো মনুষও চোর হয়ে যায় — বুঝি না — আর কত দেখবো—-