Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হিনা রাব্বানি পদচ্যুত হতে যাচ্ছেন

ইসলামাবাদ, ১০ এপ্রিল: খুব সম্ভবত শিগগিরই মন্ত্রিত্ব খোয়াতে চলেছেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিনা রাব্বানি খার। মার্কিন শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিকের সঙ্গে বৈঠকের সময় প্রকাশ্যেই রাষ্ট্রপতি আসিফ আলি জারদারির মন্তব্যের প্রতিবাদ করায় রোষের মুখে হিনা। বৈঠকের চারদিন পর প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানির মন্তব্যে এই খবর আরও জোরদার হয়েছে। এই খবর দিয়েছে ভারতের সংবাদ সংস্থা পিটিআই।

 

একান্ত ব্যক্তিগত সফরে শনিবার জারদারি ভারতে এলেও সঙ্গী হিসেবে ছিলেন না হিনা। রোববার লাহোরে নিজের বাড়িতে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপচারিতার সময় হঠাৎই জারদারি বলেন, কাশ্মীরের মতো বকেয়া সমস্যাগুলি নিয়ে ভারতের সঙ্গে আলোচনা চালাবে ‘নতুন টিম’। যে সমস্ত সাংবাদিক ওই আলাপচারিতায় উপস্থিত ছিলেন, তারা এ নিয়ে আর বিশদ ব্যাখ্যা চাননি। ‘নতুন টিম’ বলতে কী বোঝাতে চাইছেন, গিলানিও তা বিশদে জানাননি।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-পাকিস্তানের মধ্যে সুসম্পর্ক ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে সম্প্রতি মার্কিন শীর্ষস্থানীয় কূটনীতিক পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সহকারী টম নিডস এসেছিলেন ইসলামাবাদে। মার্কিন বিমান হামলায় নভেম্বরে পাক সেনাবাহিনীর ২৪ জন সদস্য নিহত হওয়ার পর দু’দেশের সম্পর্কের চরম অবনতি হয়। কূটনৈতিক সূত্রে জানা গিয়েছে এপ্রিলের চার তারিখ লাহোরে গভর্নস হাউসে নিডস বৈঠক করেন। রাষ্ট্রপতির সঙ্গে ওই বৈঠকের সময় প্রকাশ্যেই জারদারির মন্তব্যের বিরোধিতা করেন পাক পররাষ্টমন্ত্রী হিনা রাব্বানি খার।

জারদারি তারপর যান পাঞ্জাব প্রদেশের রাজধানীতে। কথা বলেন পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতাদের সঙ্গে। বৈঠকে নিডস তোলেন মে মাসে শিকাগোতে আফগানিস্তান শীর্ষক সম্মেলনে পাকিস্তানের অংশগ্রহণ করার প্রসঙ্গ। জারদারি বলেন, যদি ওয়াশিংটন এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক আমন্ত্রণ জানায়, তবে আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখব। এসময়ই জারদারির বক্তব্যে বাধা দিয়ে হিনা বলেন, পাকিস্তান-মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র নিয়ে এই মুহূর্তে সংসদে আলোচনা চলছে। তাই এ নিয়ে সংসদের যৌথ অধিবেশন শেষ হওয়ার পরই একমাত্র এনিয়ে আলোচনা হতে পারে।

কূটনৈতিক সূত্রটি জানিয়েছে, রাষ্ট্রপতির উপস্থিতিতে হিনার গলার স্বরে হতবাক হয়ে যান মার্কিন প্রতিনিধিরা। কারণ, জারদারি মানে পাকিস্তান পিপলস পার্টির বিদেশনীতি বিষয়ক নীতি-নির্ধারক কমিটির প্রধান।

এরপরেই দ্রুত খবর ছড়িয়ে পড়ে, আসন্ন মন্ত্রিসভার রদবদলে বদলে দেয়া হতে পারে হিনার মন্ত্রণালয় । গিলানিসহ পাকিস্তান পিপলস পার্টির নেতারা জানান, আগামী বছর নির্বাচনের কথা মনে রেখে শিগগিরই মন্ত্রিসভার রদবদল করা হবে। দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, খারকে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে দেয়া হতে পারে নতুন মন্ত্রণালয়।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট