Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বাংলাদেশের আরো বেশি টেস্ট খেলা দরকার: তামিম

পুনে, ১০ এপ্রিল: কয়েকদিন আগেই কলকাতায় এক সাক্ষাৎকারে সাকিব আল হাসান বাংলাদেশকে টেস্টে আরো বেশি সুযোগ দেয়ার কথা বলেছিলেন। সাকিবের পর এবার টেস্ট খেলার প্রয়োজনীয়তার কথা বললেন বাংলাদেশের ওপেনার তামিম ইকবাল।

এশিয়াকাপকে দেশের ক্রিকেট ইতিহাসের অন্যতম টানিং পয়েন্ট মনে করেন তামিম। কিন্তু ক্রিকেটের সার্বিক উন্নতির জন্য পাঁচ দিনের টেস্ট খেলাকেই বেশি দরকারী বলে মনে করেন বাঁ হাতি ওপেনার। ভবিষ্যৎ সূচিতে ২০২০ সাল পর‌্যন্ত বাংলাদেশ মাত্র ৪২টি টেস্ট ম্যাচ খেলবে। সেই সূচিতে ভারত ও ইংল্যান্ডের মতো দেশে কোনো ম্যাচ নেই বাংলাদেশের। তাদের পরবর্তী সফর জিম্বাবুয়েতে।

 

আইপিএল খেলতে তামিম এখন ভারতে আছেন। সেখানেই তিনি ক্রিকেট ওয়েবসাইট ক্রিকিনফোকে বলেন, “বাংলাদেশের প্রধান সমস্যা এটা যে, ভালো শুরুর পরও আমরা নিয়মিত টেস্ট খেলতে পারছি না। একটা টেস্টের পর একবছরের বেশি (১৪ মাস) বিরতি গেল। আমরা যদি টেস্টে আসলেই উন্নতি করতে চাই, তাহলে এই ফরম্যাটে আরো বেশি খেলতে হবে। এটা লক্ষ্য করলেই দেখা যাবে, আমরা একদিনের ক্রিকেটে মোটামুটি নিয়মিত। ফলে এই ফরম্যাটে আমরা যথেষ্ট উন্নতি করেছি। টেস্টে নিয়মিত হলে সেখানেও আমরা ভালো করব।”

 

তিনি আরো বলেন, “ব্যাটিং ও আত্নবিশ্বাস বাড়ানোর জন্য আমাদের আরো বেশি টেস্ট খেলা দরকার। টেস্ট খেলেই শিখতে হবে কিভাবে পরিস্থিতির সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নিতে হয় এবং কিভাবে সেশন বাই সেশন খেলে এগিয়ে যাওয়া যায়।”

 

২০০০-০১ সেশনে টেস্ট অভিষেক হওয়ার পর ৭৩ টেস্টের ৬৩টি টেস্টেই হেরেছে বাংলাদেশ। বিপরীতে জয় মাত্র তিনটিতে। সে বিচারে একদিনের ক্রিকেটে অনেক ভালো অবস্থা তাদের। ওয়ানডের উন্নতি চোখে পড়ে সর্বশেষ এশিয়াকাপের দিকে তাকালেই। ফাইনালে পাকিস্তানের কাছে দুই রানে না হারলে অন্যরকম ইতিহাস রচিত হতো ক্রিকেটের।

 

তামিম বলেন, “আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে আমরা ভালো খেলছি। আমাদের জয়ের অভ্যাসও হয়ে গেছে। এখন আমাদের বড় স্কোর করার অভ্যাস করতে হবে। ২৯০ রান তাড়া করে ভারতের বিপক্ষে জিতেছি। জয়ের অভ্যাসটা না থাকলে প্রায় তিন’শ রানের স্কোর তাড়া করে আপনি জিততে পারবেন না।”

 

এশিয়া কাপ শুরু হওয়ার আগে তামিম বাংলাদেশ ক্রিকেট ‍লিগ (বিপিএল)-এর বেশিরভাগ ম্যাচই খেলতে পারেননি ইনজুরির কারণে। এরপর বিতর্কিতভাবে এশিয়াকাপের দল থেকে বাদ দেয়া হয়েছিল তাকে। পরে ফিরে এসে নিজের জাত চিনিয়েছেন এই মারকুটে ব্যাটসম্যান। টানা চারটি হাফ সেঞ্চুরি করে বুঝিয়ে দিয়েছেন বড় কিছু করার সামর্থ তার আছে।

 

এশিয়াকাপের ফর্ম দেখেই তামিমের ওপর চোখ পড়ে ‘আইপিএল’ দল পুনে ওয়ারিয়র্সের। এরপরই চুক্তি হয় পুনের সঙ্গে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট