Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সাধারণ মানুষের ব্যাংকিং সেবা বন্ধ করছে বাংলাদেশ ব্যাংক

ঢাকা, ১০ এপ্রিল: পহেলা মে থেকেই সাধারণ মানুষের সেবাদানের সব ধরনের ব্যাংকিং কার্যক্রম বন্ধ করতে যাচ্ছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টার থেকে নতুন, পুরাতন, ছেঁড়া ও নষ্ট হওয়া নোট বদল করে দেয়াসহ জনসাধারণের জন্য বেশ কিছু সেবা চালু ছিল।

এ কার্যক্রম বন্ধ করায় গ্রাহকরা কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে কোনো নতুন নোট পাবেন না, এমনকি ছেঁড়া নোটও বদল করা যাবে না। তবে সব তফসিলি ব্যাংক থেকেই এই সুবিধা পাবেন গ্রহকরা।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, বর্তমানে নতুন নোট ইস্যু হলে তা বাংলাদেশ ব্যাংকের ক্যাশ কাউন্টারে পাওয়া যায়। এছাড়া পুরাতন, ছেঁড়া ও নষ্ট হওয়া নোট বদল করে দেয়া হয়। জনসাধারণের জন্য বেশ কিছু সেবা চালু রেখেছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর মধ্যে ভাঙতি নিতে চাইলেও তা দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক।
ঢাকার মতিঝিলের প্রধান কার্যালয়, সদরঘাটের শাখা অফিসসহ বরিশাল,  চট্রগ্রাম, রংপুর, সিলেট, বগুড়া, খুলনা এবং রাজশাহীর বাংলাদেশ ব্যাংকের অফিসে এই ধরনের সেবা চালু রয়েছে। আর এসব সেবা চালুর ফলে প্রতিনিয়ত বাংলাদেশ ব্যাংকে সাধারণ জনসাধারনের হুলস্থুল লেগেই থাকে। এছাড়া নতুন নোট ইস্যু হলে এবং ঈদসহ নানা উৎসবে নতুন নোটের জন্য দালালদের আনাগোনাও বেড়ে যায়। নানা ধরনের অপরাধের সঙ্গে কর্মকর্তারাও জড়িয়ে পড়েন। সেই সঙ্গে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও পড়ে হুমকির মুখে।
এসব নানা দিক বিবেচনায় নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক আগামী পয়লা মে থেকে তার ক্যাশ কাউন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এই নিয়ে গত ২৮ মার্চ বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংকের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকও করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। বৈঠকে সব ধরনের ব্যাংকিং কার্যক্রম শুধু মাত্র তফসিলি ব্যাংক গুলোকে করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর জন্য প্রয়োজনীয় নির্দেশনাও দেয়া হয়েছে ব্যাংক গুলোকে। গ্রাহককে ছেঁড়া নোট বদলে দিতে বলেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তার ব্যত্যয় হলে শাস্তিমূলক ব্যবস্থার নেয়া হবে বলেও ব্যাংকগুলোকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলাদেশ ব্যাংকের এক কর্মকর্তা বলেন, সারাদিনই বাংলাদেশ ব্যাংকে লোকজনের আনাগোনা থাকে। যা একটি দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভাবমূর্তির সঙ্গে যায় না। এছাড়া বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে নতুন নোট নিয়ে অনেকেই নতুন অনেকই ব্যবসা করছে। এছাড়া ছেঁড়া নোট বদলে দেয়ার নামে একটি সিন্ডিকেট গড়ে উঠেছে। যার ফলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে। সবদিক চিন্তাভাবনা করে ক্যাশ কাউন্টার বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে তিনি জানান। তবে গ্রাহকরা তফসিলি ব্যাংক থেকে যাতে কোনো প্রকারের হয়রানির স্বীকার না হয় সেদিনে নজর রাখারও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেন ওই কর্মকর্তা।
এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের নির্বাহী পরিচালক দাশগুপ্ত অসীম কুমার বলেন, “মে মাসের প্রথম কার্যদিবস থেকেই আমরা বাংলাদেশ ব্যাংকের সব ক্যাশ কাউন্টার বন্ধ করে দিচ্ছি। ফলে সেদিন থেকে সাধারণ লোকজন বাংলাদেশ ব্যাংকে কোন লেনদেন করতে পারবেন না।”
সারা দেশে বাংলাদেশ ব্যাংকের কেবল মাত্র নয়টি  শাথা থাকলেও তফসিলি ব্যাংকের প্রায় আট হাজার শাখা রয়েছে উল্লেখ করে এই নির্বাহী পরিচালক বলেন, “এসব শাখা থেকেই এখন নতুন নোট ইস্যু, ছেঁড়া নোট বদলে দেয়াসহ সব ধরনের কার্যক্রম চালানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছি।” তফসিলি ব্যাংকগুলো যাতে এই সব দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করে তা তদারকি করা হবে বলেও জানান তিনি।
Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট