Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ হয়রানিমূলক’

ঢাকা, ৯ এপ্রিল: দলীয় দৃষ্টিভঙ্গিতে স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাস বিকৃতির অভিযোগ এনে শিক্ষকদের হয়রানির প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সাদা দলের শিক্ষকেরা। সোমবার অপরাজেয় বাংলার পাদদেশে ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় সচেতন শিক্ষক সমাজ’ এই মানববন্ধন করে।

 

পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারমান অধ্যাপক ড. আ ফ ম ইউসুফ হায়দার বলেন, “দেশে নতুন সরকার এলে সরকারের একটি পারসপেকটিভ থাকে। এই পারসপেকটিভ থেকে বই লেখা হয়। ২০০০ ও ২০০৩ সালে লেখা হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক বই। তখন ইতিহাস বিকৃতিরোধ কোনো আইন ছিল না। নয় বছর আগে লেখা বই বর্তমান আইন দ্বারা বিবেচনা করা ঠিক না। যাদের ওপর মামলা করা হয়েছে তারা এখন নানাভাবে হয়রানি হচ্ছেন। এই হয়রানিমূলক মামলা প্রত্যাহার করা হোক। উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় মুক্তবুদ্ধি চর্চার স্থান। মত প্রকাশের অধিকার সবার আছে।”

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয সিন্ডিকেট সদস্য অধ্যপক ড. তাসমেরী এস ইসলাম বলেন, “বিকৃত করার অভিযোগে যাদের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে তারা খুবই পরিচিত ও সম্মানিত লোক। ইচ্ছা করেই হয়রানির জন্যই এ মামলা করা হয়েছে। দেশে যদি সুষ্ঠু বিচার ও আইনের শাসন থাকত তাহলে আজ আমাদের এখানে দাঁড়াতে হতো না। সুশাসন পাব কি না এ ব্যাপারে আমরা সংশয়ে আছি। আমরা আইনের সুশাসন চাই। ২০০২ সালে যা ছিল তা ২০১২ সালের আইন দিয়ে করা যায় না।

 

কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন বলেন, “উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালযের বইয়ে যদি কোনো ভুল হয়ে থাকে তাহলে এর দায় পড়বে বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিরের ওপর, কোনো ব্যক্তির ওপর নয়। অনেক বইয়ে জিয়াউর রহমানকে স্বাধীনতার ঘোষক বলা হয়েছে। আগে লেখা বইয়ের বিচার বর্তমান আইনে করা হলে মুক্তিবৃদ্ধি চর্চা থাকে না।”

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট