Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

ব্ল্যাক ছাড়ছেন জন, স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন কনকচাঁপাপুত্র মাসুক

 তাহসানের ক্ষত বেশ আগেই শুকিয়েছে। ‘ব্ল্যাক’ সদস্য কিংবা শ্রোতারা গেল বছর চারেক ধরে জন’কেই যোগ্য অলটারনেটিভ রকার হিসেবে মাথায় তুলে নিয়েছেন। এ প্রজন্মের ব্যান্ড হিসেবে শুরু থেকেই তরতর করে এগিয়ে চলছিল ‘ব্ল্যাক’। যদিও এগিয়ে যাওয়া পথে গেল প্রায় দশ বছরে পর পর বেশ কিছু ধাক্কা সামলাতে হয়েছে ব্যান্ডের অন্যতম তিন সদস্য জন, টনি এবং জাহানকে। প্রথমেই তাহসানের দল ত্যাগ। তারপর চট্টগ্রাম থেকে ফিরতি পথে পুরো দল পড়ে সড়ক দুর্ঘটনায়। এরপর ড্রামার টনি’র বিরুদ্ধে হয়রানিমূলক মামলা-মোকদ্দমা। আর সবশেষে গতকাল প্রকাশ পেলো দল থেকে ভোকাল জনের অব্যাহতির খবর। যা ‘ব্ল্যাক’ ব্যান্ডের অগণিত ভক্ত-শ্রোতার জন্য বড় রকম দুঃসংবাদ হিসেবে ধরা দিবে, যদি সংবাদটি সত্যিতে পরিণত হয়। গতকাল জানা যায়, জন পড়াশোনার জন্য ব্যান্ড ছেড়ে বিদেশে উড়াল দিচ্ছেন শিগগিরই। এর সঙ্গে রয়েছে বন্ধু টনি-জাহানের সঙ্গে মান অভিমানও। জানা যায়, জনের জায়গায় গতকাল থেকে স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন দেশের অন্যতম সুরকার মঈনুল ইসলাম খান এবং কণ্ঠশিল্পী কনক চাঁপার একমাত্র পুত্র মাসুক। জনের জায়গায় মাসুকের অন্তর্ভুক্তির খবরটি মানবজমিনকে নিশ্চিত করেন মাসুকের পিতা-সুরকার মঈনুল ইসলাম খান। তিনি উচ্ছ্বাস নিয়ে জানান, আমার ছেলে মাসুক বিবিএ পড়ছে আইইউবিতে। সংগীত পরিবারের সন্তান হলেও কনকচাঁপা কিংবা আমি, কখনোই চাইনি ও মিউজিকে আসুক। তবুও আশ্চর্যের বিষয় হলো, ও আমাদের অগোচরেই অনেক দিন ধরে মিউজিক করে আসছে। ওদের একটা ব্যান্ডও আছে ‘ডিএইচ’ নামে। তবে দু’দিন হলো মাসুক আমন্ত্রণ পায় ‘ব্ল্যাকে’র ভোকাল হিসেবে। মাসুক এবং ব্ল্যাকে’র জাহান-টনি আমার সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে আলাপ করে। মাসুকের প্রতি জনপ্রিয় ব্যান্ড ব্ল্যাকের আগ্রহ দেখে বাবা-মা হিসেবে আমাদেরও ভালো লাগে। এদিকে কনকচাঁপা বলেন, ব্ল্যাকে যোগ দেয়ার আগে আমাদের একটাই শর্ত- পড়াশোনা বন্ধ করা যাবে না। পড়াশোনার পাশাপাশি ব্ল্যাকের সঙ্গে থাকলে আমাদের কোন আপত্তি নেই। বরং ‘ব্ল্যাক’-এর সঙ্গে থাকলে আমাদের ভালোই লাগবে। কারণ যতদূর জেনেছি, ব্যান্ড হিসেবে ব্ল্যাক খুব নাম করেছে ইয়াং জেনারেশনের মধ্যে। অন্যদিকে পিতা-মাতার সূত্র ধরে মাসুক বলেন, আমিও খুব হ্যাপি। বৃহস্পতিবার সারাদিন ব্ল্যাকের সঙ্গে প্র্যাকটিস করেছি। আজ (গতকাল) আমার ব্ল্যাক ব্যান্ডে অভিষেক হচ্ছে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটের একটি বড়সড় কনসার্টের মধ্য দিয়ে। যেখানে ব্ল্যাক ছাড়াও বাজাবে আর্টসেল এবং ক্রিপটিক ফেইথ। এই মঞ্চেই আমার সঙ্গে শ্রোতাদের পরিচয় করিয়ে দেয়া হবে ব্ল্যাকের নতুন ভোকাল হিসেবে। এদিকে স্বনামধন্য দুই সংগীত প্রাণ মঈনুল ইসলাম খান ও কনকচাঁপার কথার সূত্র ধরে এমন আচানক খবরের সত্যতা জানতে ‘ব্ল্যাক’ তারকা জনের সঙ্গে আলাপ হয় মুঠোফোনে। ‘ব্ল্যাক’ ছাড়ার খবরটি দিতেই তিনি একটু বিব্রত হন। একটু সামলে উঠে বিস্ময়ের হাসি দিয়ে বলেন, আসলে এ বিষয়ে এখনও বলার মতো কিছু হয়নি। এখনও আমি ব্ল্যাক ছাড়িনি। পাল্টা প্রশ্ন ছিল, তবে কি আজকের (গতকালে) কনসার্টে আপনি গাইছেন? জন বলেন, না গাইছি না। আমি একটু বিশ্রামে আছি। জনের প্রতি আবার জিজ্ঞাসা ছিল, আপনি নাকি বিদেশে পড়তে যাচ্ছেন? সে জন্যই অব্যাহতি নিলেন। জন বলেন, আসলে সবই ঠিক আছে। কিন্তু কিছুই চূড়ান্ত নয়। সবচেয়ে ভাল হয় জাহান এবং টনি’র সঙ্গে কথা বললে। পরে ‘ব্ল্যাকে’র আরেক অন্যতম সদস্য জাহানের কাছে বিষয়টি জানতে চাইলে তিনি বলেন, জন আসলে কিছুদিনের জন্য ছুটি চাইছে। এটুকুই। ও এখনও ছুটিতেই আছে। এদিকে এর জন্য আমরা অনেক দিন শোও করতে পারছিলাম না। ফলে জনের অনুপস্থিতিতে মাসুককে দিয়ে ট্রাই করছি। আশা করছি, জনের অভাবটা মাসুক শতভাগ পূরণ করতে না পারলেও হতাশ করবে না। আর জন যদি ছুটি কাটিয়ে আসে, তাহলেও সমস্যা নেই। জাহান আরও বলেন, চূড়ান্তভাবে বলার মতো তেমন কিছুই ঘটেনি। জন যদি আমাদের ছেড়ে একবারেই চলে যায় আর মাসুককে যদি ভোকাল হিসেবে চূড়ান্ত করা হয়- তাহলে সংবাদ সম্মেলন করে আমরা সবাইকে জানাবো। কারণ ইটস নট অ্যা মেটার অব জোকস।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট