Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

প্রবাসীদের উপার্জনে কিছু লোক ফুটানি করে: প্রফেসর এমাজউদ্দিন

ঢাকা, ৬ এপ্রিল: আমাদের দেশের ৮৫ লাখ শিক্ষিত-অর্ধশিক্ষিত প্রবাসী লোক দেশের অর্থনীতিকে বাঁচিয়ে রেখেছে। তাদের অর্জিত রেমিটেন্স দিয়ে দেশের কিছুসংখ্যক লোক ফুটানি করেন বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ।

 

শুক্রবার বিকালে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সফিউর রহমান মিলনায়তনে সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

 

তিনি বলেন, “বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দায় এ দেশের অর্থনীতির অবস্থা তেমন খারাপ নয়। আমাদের দেশের ৮৫ লাখ প্রবাসী পৃথিবীর প্রায় একশত ৭০টি দেশে নিজেদের শ্রম বিনিয়োগ করেন। তাদের শ্রমের বিনিময়ে আমাদের দেশের অর্থনীতি টিকে আছে। যা পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই।”

 

সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার জাতীয় কনভেনশন-২০১২ এর প্রধান আলোচক ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য প্রফেসর ড. এমাজউদ্দিন আহমেদ।

 

প্রফেসর এমাজ উদ্দিন বলেন, “যে মাটিতে আমরা বসবাস করি সে মাটি খুবই ঊর্বর। এ মাটি শুধু পৃথিবীর  তিনটি দেশে আছে। আর আমাদের দেশ হচ্ছে তিন ফসলি মাটির দেশ।”

 

তিনি আরো বলেন, “বাংলাদেশ একটি অমিত সম্ভাবনার দেশ। অন্তঃহীন সম্ভাবনার দেশ। ৫৬ হাজার বর্গমাইলের ছোট্ট একটি দেশে ১৬ কোটি মানুষের বসবাস। এক সময় এই বাংলাদেশের মাটিতে উপার্জিত অর্থ দিয়ে পৃথিবীর ২২ শতাংশ ঘাটতি পূরণ করা হতো।”

 

এ সময় তিনি আরো বলেন, “নদীনির্ভর ঊর্বর ভূমি হওয়ার পরেও আমাদের দেশের ৪০ শতাংশ লোক দরিদ্র এবং ২২ শতাংশ লোক দরিদ্র সীমার নিচে বাস করে। এ দেশের কিছুসংখ্যাক লোক চায় না এসব দারিদ্রের অভাব দূর হোক এবং সঠিক পর্যায়ে সুশিক্ষা অর্জন করে দারিদ্র দূর করুক।”

 

তিনি আরো বলেন, “স্থানীয়ভাবে উন্নয়নের জন্য স্থানীয় প্রতিনিধিরদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে বাজেট তৈরি করতে হবে। তাহলে সমন্বতি উন্নয়ন হবে। আর একটি দেশে গ্রাম, ইউনিয়ন ও উপজেলা পর্যায়ে যদি উন্নয়ন না হয় তাহলে সে দেশ কখনো সত্যিকারের উন্নত দেশে পরিণত হবে না।”

 

অনুষ্ঠানে উদ্বোধক হিসেবে বক্তব্য দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সাবেক বিচারপতি মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীন।

 

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, দৈনিক স্বাধীন মতের সম্পাদক ড. খন্দকার আলী আজম।

 

অনুষ্ঠানে ৩২টি জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানদের সম্মাননা দেয়া হয়।

 

সম্মাননাপ্রাপ্তদের মধ্যে বক্তব্য দেন লাকসাম উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মজির আহমেদ, নাটোরের তেবাড়িয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার ও কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার জাহাপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সৈয়দ তৌফিক আহমেদ প্রমুখ।

 

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সামাজিক পরিবেশ ও মানবাধিকার বাস্তবায়ন সংস্থার চেয়ারম্যান মো. ইব্রাহিম।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট