Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘মাথা’র পেছনে হাজার কোটি ডলার বিলিয়েছে আমেরিকা

ওয়াশিংটন, ৪ এপ্রিল: বিশ্বজুড়ে গত কয়েক বছরে ৭০ জন ব্যক্তিতে জীবিত বা মৃত অবস্থা ধরার জন্য এক হাজার কোটি ডলার পুরস্কার বিলিয়েছে আমেরিকা। স্থানীয় সময় মঙ্গলবার সন্ধ্যায় এক প্রশ্নের জবাবে এ তথ্য দিয়েছেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ভিক্টোরিয়া ন্যুল্যান্ড। ‘বিচারের জন্য পুরস্কার’ (রিওয়ার্ড ফর জাস্টিস- আরএফজে) নামে এক তহবিলের আওতায় এ অর্থ বিলি করে আমেরিকা।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো ইমেইলে দেখা যায়, নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ তথ্য দেন।

প্রসঙ্গত, পাকিস্তান ভিত্তিক দাতব্য ও সামাজিক সংগঠন জামাত-উদ-দাওয়া’র প্রধান হাফিজ সাঈদকে ধরতে মঙ্গলবার পুরস্কার ঘোষণা করেছে দেশটির সরকার। আমেরিকার অভিযোগ, মুম্বাইয়ে ২০০৮ সালের বোমা হামলা চালানোর জন্য ইনডিয়া কর্তৃক অভিযুক্ত ‘লস্কর-ই-তৈয়বা’র কার্যত প্রধান ব্যক্তি হচ্ছেন সাঈদ এবং বিশেষভাবে  ওই হামলার পেছনে তার প্রধান ভূমিকা ছিল।

অবশ্য আল জাজিরা’র সঙ্গে বিশেষ অডিও সাক্ষাৎকারে এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সাঈদ। সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, “যেকোনো আর্ন্তজাতিক আদালতে আমি আমেরিকার এ অভিযোগ মোকাবিলা করতে রাজি। কিন্তু ইনডিয়া ও আমেরিকার কাছে কোনো প্রমাণ নাই। তাদের যা আছে তা হলো মিডিয়া প্রপাগান্ডা।”

এই পরিপ্রেক্ষিতে মঙ্গলবার একজন সাংবাদিক আমেরিকার পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র ভিক্টোরিয়া ন্যুল্যান্ডকে প্রশ্ন করেন, ‘‘হাফিজ সাঈদ কোথায় অপরাধী সাব্যস্ত হলে তাকে ধরার তথ্যদাতা এ পুরস্কারের জন্য উপযুক্ত বিবেচিত হবেন? এবং প্রতিজনের ক্ষেত্রে এ পর্যন্ত কি পরিমাণ অর্থ বিলি করা হয়েছে বিচারের জন্য পুরস্কার তহবিল থেকে?’’

জবাবে ভিক্টোরিয়া ন্যুল্যান্ড বলেন, ‘‘কারো দেয়া তথ্যে যদি সাঈদকে গ্রেফতার করে আমেরিকা বা অন্য যেকোনো বিদেশী আদালতে তাকে অপরাধী সাব্যস্ত করা যায় তবে তথ্যদাতা এ পুরস্কার পাবেন।’’

তবে তহবিলটিকে রাষ্ট্রীয় স্বার্থে গোপনীয় হিসেবে উল্লেখ করে বিস্তারিত তথ্য দিতে অস্বীকৃতি জানান আমেরিকান কর্মকর্তা। তিনি বলেন, ‘‘নিরাপত্তা ও গোপনীয়তার খাতিরে আমরা বিচারের জন্য পুরস্কার তহবিলের এমন বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করি না। তবে আরএফজে থেকে প্রস্তাবিত শীর্ষ পুরস্কারগুলোর ব্যাপারে সীমিত আকারে ঘোষণা দেয়া হয়। প্রত্যেকটি পুরস্কার দেবার পর আমরা কংগ্রেসে একটি গোপনীয় প্রতিবেদনও দিই।’’

আমেরিকান মুখপাত্র বলেন, ‘‘আমরা এতটুকু বলতে পারি যে, শুরুর পর থেকে বিচারের জন্য পুরস্কার কর্মসূচি থেকে এ পর্যন্ত ৭০ জন ব্যক্তিকে এক হাজার কোটি ডলারেরও বেশি টাকা পরিশোধ করা হয়েছে। যাদের দেয়া তথ্যে আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসবাদী আক্রমণ প্রতিরোধ করা গেছে অথবা এমন কাজে জড়িতদের বিচারের আওতায় আনা গেছে।’’

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট