Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

আরো ৩টি সার কারখানা করার ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর


সিলেট, ২৪ মার্চ: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে শাহজালাল সার কারখানার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করে দেশে আরো তিনটি সার কারখানা করার কথা জানিয়েছেন।

বেশ কয়েকটি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন ও উদ্বোধন এবং বিকেলে ১৪ দলের মহাসমাবেশে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শনিবার সকালে সিলেটে সফরে আসেন।

ফেঞ্চুগঞ্জ সার কারখানা মাঠে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী জানান, শাহজালাল সার কারখানা থেকে প্রতিদিন এক হাজার ৭৬০ টন হিসাবে বছরে পাঁচ লাখ ৮১ হাজার টন সার উৎপাদন হবে।

তিনি বলেন, “বর্তমানে দেশে ছয়টি সার কারখানা রয়েছে। এর সবগুলোই পুরানো হয়ে গেছে, উৎপাদন ক্ষমতাও হ্রাস পেয়েছে। তাই চাহিদা মেটানোর জন্য বৈদেশিক মুদ্রা খরচ করে বিদেশ থেকে প্রতি বছর ১৫ থেকে ২০ লাখ টন সার আমদানি করতে হয়। এই কারখানা চালু হলে প্রায় ছয় লাখ টন সার আমদানি কমবে। দেশে আরো তিনটি সার কারখানা করা হবে।”

চীন সরকারের সহযোগিতায় প্রায় তিন হাজার ৯৮৬ কোটি টাকা বিদেশি ঋণসহ মোট পাঁচ হাজার ৪০৯ কোটি টাকা ব্যয়ে এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। প্রকল্পের কাজ শেষ হবে আগামী ৩৮ মাসের মধ্যে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর গত সাড়ে তিন বছরে তিন হাজার ৩০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডে যোগ হয়েছে। ইতিমধ্যে পাঁচ হাজার ৩৩৩ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৫২টি বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের জন্য চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। এর মধ্যে চালু হয়েছে ২৮টি। বাকি ২৪টি কেন্দ্র নির্মাণাধীন রয়েছে।”

২০০৯ সালের মতো আগামী নির্বাচনেও ‘নৌকায়’ ভোট দেয়ার জন্য ফেঞ্চুগঞ্জবাসীর প্রতি আহবান জানান তিনি।

এ সময় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া, প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে শেখ হাসিনা হেলিকপ্টারে করে সকাল ১০টার দিকে ফেঞ্চুগঞ্জ সার কারখানা মাঠে পৌঁছান। এরপর তিনি শাহজালাল সার কারখানার ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন এবং নিজামপুরে ৯০ মেগাওয়াট ক্ষমতার বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দ্বিতীয় ইউনিটের উদ্বোধন করেন।

ফেঞ্চুগঞ্জ থেকে প্রধানমন্ত্রী রওনা হন সিলেটের কুমারগাঁওয়ের উদ্দেশ্যে। সেখানে ১৫০ মেগাওয়াট ক্ষমতার কম্বাইন্ড সাইকেল বিদ্যুৎ কেন্দ্রের উদ্বোধন করেন তিনি। এরপর হজরত শাহজালাল (রা.) এবং হজরত শাহ পরান (রা.)- এর মাজার জিয়ারত ও ফাতেহা পাঠ করেন।

মাজার জিয়ারত শেষে সিটি করর্পোরেশন প্রাঙ্গণে নগর ভবন এবং বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা কার্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করবেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর স্থানীয় সার্কিট হাউজে সার্বিক উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড নিয়ে বিভাগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মত বিনিময় করবেন।

বিকেল ৩টায় সরকারি আলীয়া মাদ্রাসা মাঠে ১৪ দলের জনসভায় আওয়ামী লীগ সভানেত্রী হিসেবে বক্তৃতা করবেন তিনি।

বার্তা২৪/জবা

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট