Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘এই হার শিরোপার চেয়েও মর্যাদার’

বাংলাদেশ এর আগে অনেকবার হেরেছে, তখন হৃদয়টা তেমন হাহাকার করেনি। এত কাছে এসেও স্বপ্নটা বাস্তবে রূপ না দিতে পারার আক্ষেপেই হয়তো সবাইকে পোড়াচ্ছে। যেমনটা পোড়াচ্ছে সাকিব-মুশফিকদের। তবে এই হার হার নয়, নতুন উদ্দীপনায় এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা মানছেন সাবেক জাতীয ক্রিকেটাররাও। যাদের হাত ধরেই আজ বিশ্বকে তাক লাগাচ্ছেন মাশরাফি-রাজ্জাকরা। যার শুরু ১৯৯৭ সালে আইসিসি চ্যাম্পিয়ন ট্রফি জয়ের মধ্যদিয়ে নেতা ছিলেন আকরাম খান। ওই ট্রফি জয়ে আমূল পরিবর্তন এসেছে এদেশের ক্রিকেটে। পরিবর্তনের নায়ক আজ প্রধান নির্বাচকের আসনে। তার দুই সঙ্গীও বাংলাদেশের ক্রিকেটের পরিবর্তনের অংশীদার। আকরাম, নান্নুরা শুরু করেছেন আর জিততে শিখিয়েছেন হাবিবুল বাসার সুমন। তার নেতৃত্বের ওয়ানডে ক্রিকেটে বড় বড় জয় পেয়েছি আমরা। সেই তিন বীর সেনানী আজ নির্বাচনের আসনে। তাদের গড়া দল দেখিয়েছে এমন কৃতিত্ব। চ্যাম্পিয়ন হতে না পারলেও যা করেছে তা কম কিসে? এমন দিনে নিজেকে ধরে রাখতে পারেননি আকরাম খান। প্রধান নির্বাচক হিসেবে নয় সাবেক ক্রিকেটার হিসেবে তিনি বলেন, চ্যাম্পিয়ন হলে যেমন খুশি হতাম। রানার্সআপ হওয়াতেও তেমন খুশি হয়েছি। এ হারা চ্যাম্পিয়নের চেয়ে কম মর্যাদার নয়। তবে চ্যাম্পিয়ন হলে খুশিটা প্রকাশ করতে পারতাম হেরে গেছে বলে তা পারছি না।’ ক্রিকেটারদের সান্ত্বনা দিয়ে আকরাম বলেন, এটা তো সবে শুরু। বহু দূর যেতে হবে ওদের। এ হারে ভেঙে পড়লে চলবে না। শোককে শক্তিতে পরিণত করে আগামী দিনের পথ পাড়ি দেয়ার পরামর্শ দেন সাবেক এই ক্রিকেটার। নির্বাচক হিসেবে অনুভূতি জানতে চাইলে আকরাম খান বলেন, দল নির্বাচন যে সঠিক ছিল তার প্রমাণ মিলেছে। আশা করছি ভবিষ্যতে বোর্ড আমাদের সহযোগিতা করলে ক্রিকেটারদের সহযোগিতায় আরও ভাল কিছু উপহার দিতে পারবো। আরেক নির্বাচক হাবিবুল বাসার সুমন ভাগ্যকে দুষলেন। ভাগ্যটা কেন জানি পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আমাদের সহায়তা করে না। এর আগে মুলতানেও টেস্ট জয়ের দ্বারপ্রান্তে চলে গিয়েছিলাম আমরা। কিন্তু ভাগ্য বিধাতা সেখানেও ছিনিমিনি খেলেছিল। যেমন করলো এশিয়া কাপের ফাইনালে- বললেন সাবেক এই অধিনায়ক। হারের পরও ক্রিকেটারদের প্রতি দেশবাসীর অকুণ্ঠ সমর্থনে অভিভূত সুমন। ক্রিকেটারদের লড়াকু মনোভাবে অভিভূত আরেক নির্বাচন মিনহাজুল আবেদীন নান্নু। স্বল্পভাষী এই নির্বাচক দলের তাক লাগানো পারফরমেন্সের পর ফাইনালের হারটাকে মেনে নিতে পারছেন না। ‘এভাবে হেরে যাবো ভাবিনি। শেষ বল পর্যন্ত কখনও মনে হয়নি আমরা হারবো। খেলোয়াড়রা এই টুর্নামেন্টে আমাদের ভেতর সে আত্মবিশ্বাস ঢুকিয়ে দিয়েছিল। তার পরেও আমি বলবো এটা হার না এটা শুরু। সামনে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা।’

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট