Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

শেষ দিকে রানের স্লো গতিকে হারের কারণ বললেন মুশফিক

ঢাকা, ২২ মার্চ: ভেঙ্গে গেল এশিয়া কাপে চার দেশের ক্রিকেটার আর ভক্তদের মিলনমেলা। বুকে কষ্ট নিয়েই মুশফিকরা দ্বিতীয় দল হিসাবে পুরস্কার হাতে তুলে নিয়েছে। ১১তম এশিয়া কাপের ফাইনালের শেষটা আনন্দময় পরিবেশের মধ্যে দিয়ে শেষ করারই নিয়ম। সেটাই করা হয়েছে আতসবাজি আর লেজার শো দিয়ে।

টানা প্রায় ২৫ মিনিটের আতসবাজি পুড়িয়ে চলেছে এশিয়া কাপের সমাপ্তির আনন্দ। এর সঙ্গে চলেছে লেজচার শো-তে বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত আর শ্রীলঙ্কার ম্যাপ মিরপুরের সবুজ ঘাসে ফুটিয়ে তোলা। লেজার শোতে বিশেষ কিছু মূহুর্ত দর্শক উপভোগ করে। এই আনন্দময় পরিবেশটা কিন্তু বাংলাদেশের ড্রেসিং রুমে বা দর্শকদের মনে স্থান করে নিতে পারেনি। কারণ এই এশিয়া কাপের ফাইনালের হারের কষ্টটা তখনো পুড়িয়ে যাচ্ছে।
বাংলাদেশের জয়ের জন্য চার বলে সাত রানের প্রয়োজন। তখনও ড্রেসিং রুমে জয়ের জন্য সবাই প্রস্ত্তত ছিলেন। কিন্তু শেষ বলে চার রান এনে দিতে পারেননি শাহাদাত হোসেন। ফলে জয়ের আনন্দ মুছে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন অধিনায়ক মুশফিকুর। মাঠে দেখাও গেছে তা। সাকিব আল হাসানের সঙ্গে জড়াজড়ি করে কেঁদেছেন দু’জনে। এমন কান্না দুই রানে হারের জন্য। মুশফিকরা হেরেছে বলে তাদের ধিক্কার দেবার উপায় নেই। কারণ যেটা করেছে মুশফিক বাহিনী তা তো এ দেশের ক্রিকেট ইতিহাসে আর হয়নি। তাই তো মধ্যরাতে মিরপুরে অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনে মুশফিক যখন কোচ স্টুয়ার্ট ল’কে সঙ্গে নিয়ে মিডিয়া বিফ্রিংয়ে উপস্থিত হলেন তখন উপস্থিত দেশী-বিদেশী সাংবাদিকরা উঠে দাঁড়িয়ে সম্মান জানায়।
সংবাদ সমেলনে মুশফিক বলেন, “আমরা ভারতের বিপক্ষে ২৮৯ রান তাড়া করে জিতেছি। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ৪০ ওভারে ২১২ রানের টার্গেট নিয়ে জিতেছি। আর পাকিস্তানের বিপক্ষে ২৩৬ রান তেমন বড় কোনো টার্গেট ছিল না। আসলে শেষ দিকে রানের গতি স্লো হয়ে যাওয়ায় আমরা হেরে গেছি।”
 বাংলাদেশের বোলাররা শেষ দিকে বেশি রান দিয়ে ফেলার আফসোস করলেন অধিনায়ক মুশফিকও। সাংবাদিকদের বলেন, ‘শাহাদাত ভাই বেশি রান দিয়ে ফেলেছেন। নইলে জয় আমাদের হাতের মধ্যেই ছিল।” তবে দলের ব্যাটসম্যানদের প্রশংসা করতে ভুল করেননি অধিনায়ক।
মুশফিকুর বলেন, “এই সিরিজের মাধ্যমে বেশ ক’জন ভালো ব্যাটসম্যান আমরা পেয়েছি। যেমন তামিম, সাকিব, নাসির। এরা সবাই ভালো ব্যাটিং করেছে। সত্যি বলতে কি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ আমাদের এমন ব্যাটসম্যান উপহার দিয়েছে। এখনকার বাংলাদেশ একটি ‘টিম বাংলাদেশ’।”
পাশে বসা প্রধান কোচ স্টুয়ার্ট ল’কে হার সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, “আমাদের ব্যাটিং-বোলিং ভালো হয়েছে। কিন্তু মিডল অর্ডার ব্যাটিংয়ে কিছু সময় বলের চেয়ে রান কম নিয়েছে। চাপ বেড়ে যায়। সেই চাপ কাটিয়ে জয় পাওয়া হয়নি। আসলে শেষ বলে তো চার হতে পারত। আনলাকিই বলব।”
তিনি আরো বলেন, “তাছাড়া আমরা এই আসরে আসার আগে অনেক সমস্যা নিয়েই এসেছিলাম। দীর্ঘ অনেক মাস পর মাশরাফি ইনজুরি থেকে ফিরে রান করেছে। উইকেট নিয়েছেন। তামিম-সাকিব টানা ভালো খেলেছে। ওভারঅল আমি এশিয়া কাপের পারফর্মেন্সকে সুপার বলব।”
বার্তা২৪ /এসএফ
Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট