Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

গাদ্দাফির কাছ থেকে অর্থ নিয়েছিলেন সারকোজি!

 লিবিয়ার প্রয়াত নেতা কর্নেল মুয়াম্মার গাদ্দাফির কাছ থেকে প্রথম দফা নির্বাচনের সময় ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নিকোলাস সারকোজি ৬ কোটি ৫৭ লাখ ডলার অর্থ সহায়তা নিয়েছিলেন। সমপ্রতি এ তথ্য ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর ফ্রান্সজুড়ে তা নিয়ে হৈচৈ চলছে। তবে গাদ্দাফির কাছ থেকে অর্থ নেয়ার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন সারকোজি। আগামী ২২শে এপ্রিল ফ্রান্সে প্রেসিডেন্সিয়াল নির্বাচনের প্রথম দফা ভোট। তার ঠিক ৬ সপ্তাহ আগে এমন গোপনীয় বোমা ফাটানোর ফলে সারকোজি বেশ চাপের মুখেই আছেন। বলাবলি হচ্ছে, যে গাদ্দাফি তাকে ২০০৭ সালে সারকোজির প্রথম দফা  প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় এত বিপুল পরিমাণ অর্থ দিয়ে সহায়তা করেছেন সেই গাদ্দাফির বিরুদ্ধে প্রথম সামরিক অভিযান শুরু করে সারকোজি কি তারই প্রতিদান দিয়েছেন! উল্লেখ্য, লিবিয়ার শাসক গাদ্দাফিকে ক্ষমতাচ্যুত করতে যে বিদেশী বাহিনী অভিযান চালায় তার মধ্যে সবার আগে অভিযান চালায় ফ্রান্স। মিডিয়াপার্ট নামের একটি ওয়েবসাইট বলেছে, ২০০২ সালে পাকিস্তানের করাচিতে বোমা হামলা হয়। তাতে নিহত হন ১১ ফরাসি নাগরিক। এ ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে গাদ্দাফির কাছ থেকে সারকোজির ৬ কোটি ৫৭ লাখ ডলার নেয়ার তথ্য প্রকাশ হয়ে পড়ে। এ নিয়ে যখন চারদিকে চাউর হয়ে পড়েছে তখন নিকোলাস সারকোজি টিএফ ওয়ান টেলিভিশনের এক সাংবাদিককে বলেছেন, যদি তিনি (গাদ্দাফি) আমাকে অর্থ দিয়ে থাকতেন তাহলে আমি কি তার প্রতি কৃতজ্ঞ থাকতাম না। গত বছর মার্চে ফ্রান্স ও বৃটেন যখন লিবিয়ার বিরুদ্ধে বিমান হামলা শুরু করে তখন গাদ্দাফির ছেলে সাইফ আল ইসলাম ইউরোনিউজ টেলিভিশনকে বলেন, ২০০৭ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় নিকোলাস সারকোজিকে অর্থ সহায়তা দিয়েছে লিবিয়া। তবে ওই সময়েই এ অভিযোগ অস্বীকার করে ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের অফিস। সমপ্রতি অর্থ লেনদেনের ওই খবর ফাঁস হওয়ার পর সাংবাদিকরা যখন সারকোজির প্রতিক্রিয়া নিতে যান তখন তিনি তাদের ওপর অনেকটা ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন। সাংবাদিকরা মিডিয়াপার্ট ও সাইফ আল ইসলামের অভিযোগের বিষয়ে তার কাছে জানতে চাইলেই তিনি বলে ওঠেন- আমি দুঃখিত। আমার তো আপনাকেই গাদ্দাফির ছেলের মুখপাত্র বলে মনে হচ্ছে। সাংবাদিকদের প্রশ্ন শুনে সারকোজি এতটাই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন যে তিনি তাদের প্রশ্নের কোন জবাব না দিয়ে উল্টো তাদেরই আক্রমণ করে বসেন। তিনি বলেন, গাদ্দাফিকে সবাই বাজে কথার লোক বলে জানেন। তারা আরও বলেছেন, তাদের হাতে চেক ছিল। তাহলে তো সাইফ আল গাদ্দাফি হোক বা অন্য কেউ হোক সেই প্রমাণ হাজির করা উচিত। ফ্রান্সের আগামী প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ফের প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন নিকোলাস সারকোজি। তার প্রচারণা বিষয়ক মুখপাত্র নাতালি কোসিউস্কো-মোরিজেট বলেছেন, এই যে এ নিয়ে যেসব রিপোর্ট পাচ্ছেন তা বানোয়াট। এ অভিযোগ বারবার করা হচ্ছে। কিন্তু এর স্বপক্ষে কোন প্রমাণ নেই। নির্বাচনে নিকোলাস সারকোজির সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন সোশালিস্ট পার্টির নেতা ফ্রাসিস হল্যান্ডি। তবে তিনি সারকোজির অর্থ নেয়ার বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজি হননি।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট