Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

লঞ্চডুবি: লাশের সংখ্যা বেড়ে ১১০

  মুন্সীগঞ্জ, ১৪ মার্চ: মুন্সীগঞ্জের গজারিয়ায় মেঘনা নদীতে ডুবে যাওয়া শরীয়তপুর-১ লঞ্চের ভেতর থেকে এ পর্যন্ত ১১০ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। মৃতের সংখ্যা আরো বাড়বে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বুধবার সকাল ছয়টা থেকে দ্বিতীয় দিনের মতো শুরু হওয়ার পর এ পর্যন্ত ৬৯ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। এর আগে মঙ্গলবার ৩৬টি লাশ উদ্ধার করা হয়েছিল।

 

এদিকে, উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা ও রুস্তম চেষ্টা চালিয়ে ডুবন্ত লঞ্চটি তীরের কাছে নিয়ে এসেছে। লঞ্চের ভেতরে থাকা লাশের সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

 

মুন্সীগঞ্জের জেলা প্রশাসক আজিজুল আলম জানান, লঞ্চটির ভেতরে আরো লাশ রয়েছে। তবে ভেতরে আর কতো লাশ রয়েছে- তা এখনই বলা যাচ্ছে না।

 

এদিকে, মেঘনার পাড়ে এখন শুধুই কান্না আর শোক। স্বজনদের আহাজারিতে ভারি হয়ে উঠেছে ঘটনাস্থল। হাজার হাজার উৎসুক জনতা ভিড় জমিয়েছে উদ্ধার কাজ দেখতে।
এর আগে উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা মঙ্গলবার রাত দেড়টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায়। বুধবার সকাল থেকে রুস্তম ও হামজা যৌথভাবে উদ্ধারকাজ শুরু করে।
সোমবার রাত আড়াইটার দিকে মালবাহী জাহাজ লঞ্চটিকে ধাক্কা দিলে গজারিয়ায় চর রমজান বেগে মেঘনা নদীতে চার শতাধিক যাত্রী নিয়ে সেটি তলিয়ে যায়। এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাত ১২টা পর্যন্ত ৩৬ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়। দুর্ঘটনাকবলিত যাত্রীদের বাড়ি শরীয়তপুরের বিভিন্ন গ্রামে।

 

দুর্ঘটনার খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকালে ঘটনাস্থলে ছুটে যায় উদ্ধারকারী জাহাজ রুস্তম, নৌবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, মুন্সিগঞ্জ জেলা প্রশাসন, বিআইডব্লিউটিএর কর্মকর্তারা। আলোকস্বল্পতা ও উদ্ধারকারী জাহাজ হামজা না পৌঁছানোয় মঙ্গলবার রাত আটটা থেকে বুধবার ভোর ছয়টা পর্যন্ত উদ্ধারকাজ স্থগিত করা হয় বলে জানিয়েছিলেন বিআইডব্লিউটিএর ঊর্ধ্বতন উপপরিচালক রফিকুল ইসলাম।

 

তবে এ ঘোষণার পরও নৌবাহিনীর ডুবুরি দল রাত ১০টা থেকে ১১টা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে আরো পাঁচটি লাশ উদ্ধার করে। ১১টার দিকে নৌবাহিনীর এক কর্মকর্তা ঘোষণা দেন, রাতে আর কোনো অভিযান চালানো হবে না।
দুর্ঘটনা তদন্তে মঙ্গলবার তিনটি কমিটি গঠন করেছে নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়, সমুদ্র পরিবহণ অধিদপ্তর ও বিআইডব্লিউটিএ। তিনটি কমিটিকেই সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

 

 

বার্তা২৪/জবা

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট