Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশ- ‘পত্রিকা দেখে মনে হচ্ছে মৌলিক অধিকার ফ্রিজ করা হয়েছে’

স্টাফ রিপোর্টার: চারদলের মহাসমাবেশে কর্মীদের আসতে বাধা না দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে দায়ের করা রিটের বিষয়ে বিভক্ত আদেশ দিয়েছে হাইকোর্ট। হাইকোর্টের দ্বৈত বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার রুল জারি করেন। রুলে নাগরিকদের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষা করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তা জানতে চাওয়া হয়েছে। ছয় সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্র সচিব, আইজিপি এবং ডিএমপি কমিশনারকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে। বেঞ্চের কনিষ্ঠ বিচারপতি মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকার রিট আবেদন সরাসরি খারিজ করে দেন। এখন আবেদনটি প্রধান বিচারপতির কাছে যাবে। প্রধান বিচারপতি হাইকোর্টের তৃতীয় কোন বেঞ্চে বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য পাঠাবেন। গতকাল আদেশের সময় জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার বলেন, একটি রাজনৈতিক দলের সমাবেশ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে রিট আবেদনটি দায়ের করা হয়েছে। পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন দেখে মনে হচ্ছে নাগরিকদের মৌলিক অধিকার ফ্রিজ করা হয়েছে। তাদের মুক্ত চলাচলে বাধা তৈরি করা হয়েছে। তাদের গ্রেপ্তার এবং হয়রানি করা হচ্ছে। আদেশের পরে রিটকারীর আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, বিএনপি’র সমাবেশকে কেন্দ্র করে পত্রপত্রিকায় যে সংবাদ এসেছে তাতে দেখা যায় মানুষের অধিকার লঙ্ঘন করছে পুলিশ। বেআইনিভাবে মানুষকে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে। সমাবেশে আসতে বাধা দেয়া হচ্ছে। এসব বিষয় নিয়ে সকালে হাইকোর্টে রিট দায়ের করা হয়। দীর্ঘ শুনানি শেষে জ্যেষ্ঠ বিচারপতি রুল জারি করলেও কনিষ্ঠ বিচারপতি আবেদনটি সরাসরি খারিজ করে দেন। এতে দেশের মানুষ বুঝবে বিচার বিভাগে কতটা দলীয়করণ হয়েছে। অন্যদিকে, এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, রাজনৈতিক বিষয়ে আদালতে রিট করা ঠিক হয়নি। আদালতের বাইরেই বিষয়টি মীমাংসা করা উচিত ছিল। সকালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল চারদলের মহাসমাবেশে কর্মীদের আসতে বাধা না দেয়ার নির্দেশনা, মহাসমাবেশকে সামনে রেখে অবৈধভাবে আটক ব্যক্তিদের মুক্তি এবং জনগণের স্বাভাবিক চলাচলে হাইকোর্টের নির্দেশনা চেয়ে রিটটি দায়ের করেন। বিচারপতি মির্জা হোসেইন হায়দার এবং মুহাম্মদ খুরশীদ আলম সরকারের হাইকোর্ট বেঞ্চে প্রথম দফায় দুপুর ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। আবার দুপুর ২টার পরে সোয়া চারটা পর্যন্তও শুনানি হয়। এরপর এব্যাপারে আদেশ দেয়া হয়। শুনানিতে এডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, জনগণের মৌলিক অধিকার কার্যকরে এখানে এসেছি। সারাদেশে জনগণের মৌলিক অধিকার খর্ব হচ্ছে। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদন তিনি আদালতের নজরে আনেন। বিচারপতিদের উদ্দেশ্য করে তিনি বলেন, আপনারা সংবিধানের রক্ষক। আদালত এ পর্যায়ে বলেন, আমাদের এ বেঞ্চের জনস্বার্থমূলক মামলা শোনার এখতিয়ার নেই। হাইকোর্টের অন্য বেঞ্চের এ ধরনের এখতিয়ার রয়েছে। আপনারা সেখানে যান। এ সময় খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আপনাদের রিট মোশনের ক্ষমতা দেয়া হয়েছে। আপনারা যে কোন ধরনের রিট আবেদন শুনতে পারেন। এ সময় আদালত বলেন, সড়ক দুর্ঘটনা রোধে অনেক উদ্বিগ্ন হয়ে রুল জারি করেছিলাম। কিন্তু শুনানির সময় প্রশ্ন তোলা হলো আমাদের কোন জনস্বার্থমূলক মামলা শোনার এখতিয়ার নেই। তখন মাহবুব হোসেন বলেন, রিট মোশনের ক্ষমতা আছে। কিন্তু জনস্বার্থমূলক মামলা শুনতে পারবো না এ ধরনের কথা আগে কোনদিন শুনিনি। এর বিরুদ্ধে আপনাদেরই সোচ্চার হতে হবে। এ পর্যায়ে আদালত আবারও জনস্বার্থমূলক মামলা শুনতে অপারগতা প্রকাশ করেন। খন্দকার মাহবুব আরও বলেন, এটা পরিবেশ নিয়ে কোন রিট নয়। আপনি অর্ডার দিয়ে প্রধান বিচারপতির কাছে পাঠিয়ে দেন। আমরা প্রধান বিচারপতির কাছে যাবো। এখতিয়ার বণ্টনের নামে হাইকোর্টের বিচারপতিদের ক্ষমতা খর্ব করা যায় না। এ পর্যায়ে আদালত রিটটি শুনতে রাজি হন। তখন খন্দকার মাহবুব হোসেন বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত প্রতিবেদন উল্লেখ করে বলেন, বিএনপিসহ চারদলীয় জোটের নেতাকর্মীদের বাধা দেয়া হচ্ছে। এখতিয়ারবহির্ভূত ভাবে বহু মানুষকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এ ধরনের বাধা দেয়া ২৭, ৩১, ৩২, ৩৩, ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯ এবং ৪৩ অনুচ্ছেদের লঙ্ঘন। এসব অনুচ্ছেদ কার্যকর করতে সংবিধানের নির্দেশনা কার্যকরে আদালতের আদেশ দেয়া প্রয়োজন। দেশ সংবিধান অনুযায়ী চলা উচিত। এ সময় আদালত বলেন, এ ধরনের অবস্থা বন্ধে সরকার বিরোধী দলের সঙ্গে কি ধরনের আচরণ করবে, বিরোধী দল কি ধরনের আচরণ করবে- এ ব্যাপারে গাইডলাইন থাকা দরকার। খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আমি সরকার বা বিরোধী দলকে দোষারোপ করবো না। আমি দোষারোপ করি আমাদের। আমি কোর্টের দিকে তাকিয়ে থাকি। আপনি জনগণের মৌলিক অধিকার রক্ষায় আদেশ দেন। তাহলে জনগণ হাইকোর্টে আসবে। এ পর্যায়ে আদালত বলেন, দুইটায় আদেশ দেয়া হবে। ২টার পর শুনানিতে অংশ নিয়ে এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বলেন, সরকার কোন ধরনের বাধা দিচ্ছে না। জনগণের নিরাপত্তা রক্ষায় ব্যবস্থা নিচ্ছে। নাশকতার আশঙ্কা থাকাতেই সরকার এ ব্যবস্থা নিয়েছে। গাড়ি না চলার, হোটেল না খোলার কোন নির্দেশনা সরকার দেয়নি। দেখা যায়, এ ধরনের কর্মসূচির আগে হোটেল, রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ নিজেরাই বন্ধ করে দেয়। কারণ এসব দিনে জোর করে খাওয়া হয়। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এ রিট দায়ের করা হয়েছে। রাজনৈতিক বিষয়ে দায়ের করা এ রিট চলতে পারে না। রাজনৈতিক ইস্যু রাজনীতির মাঠে মীমাংসা হওয়া প্রয়োজন। রাষ্ট্রপক্ষে এসময় অতিরিক্ত এটর্নি জেনারেল এম কে রহমান, ডেপুটি এটর্নি জেনারেল রাজিক আল জলিল উপস্থিত ছিলেন। রিট আবেদনের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া, ব্যারিস্টার বদরুদ্দোজা বাদল, মির্জা আল মাহমুদ প্রমুখ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


6 Responses to হাইকোর্টের বিভক্ত আদেশ- ‘পত্রিকা দেখে মনে হচ্ছে মৌলিক অধিকার ফ্রিজ করা হয়েছে’

  1. nazeur

    March 12, 2012 at 9:52 pm

    এইটা কোন রাজনৈতিক ইস্যু না, এইটা জাতিও ইস্যু । তোমরা মারামারি করবা, আমাদের নয়ে খেলা করবা, গণতন্ত্র কে লাথি মারবা, আর বলবা যে এইটা রাজনৈতিক ব্যাপার?? ফালতু লোক জন । তোমাদের কপালে যে কি আছে !! দুই দল কেই তাদের সকল রাজনীতি বাদ দেয়া উচিৎ । ফাজিলের দল

  2. sikiş izle

    March 13, 2012 at 2:47 am

    Excellent submit admin! i bookmarked your net weblog. i’ll glimpse ahead if you may have an e-mail checklist including.

  3. alışveriş rehberi

    March 14, 2012 at 3:57 am

    Nice one particular webpage manager achievement blog site post good sharings with this weblog continually have exciting

  4. escort ilanlari

    March 14, 2012 at 4:47 am

    you might be genuinely amount 1 admin your running a blog is wonderful i usually verify your web site i’m certain you is going to be the top

  5. su arıtma cihazı

    March 14, 2012 at 11:02 am

    I was browsing for this wonderful sharing admin very much thanks and also have good blogging bye

  6. smackdown oyunları

    March 14, 2012 at 2:30 pm

    i cant get how you can share like this incredible posts admin significantly thanks