Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

১৩ কিলোমিটার রাস্তাজুড়ে ১৪ দলের মানববন্ধন

যুদ্ধাপরাধীদের বিচার বন্ধের চেষ্টা ও সরকারবিরোধী ষড়যন্ত্র প্রতিহতের অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে রাজধানীতে দীর্ঘ মানববন্ধন করেছে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দল। গতকাল বিকাল ৪টা থেকে ৫টা পর্যন্ত গাবতলী থেকে যাত্রাবাড়ী ১৩ কিলোমিটার রাস্তায় এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালিত হয়। এতে আওয়ামী লীগ, ১৪ দল ও বিভিন্ন পেশাজীবী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা অংশ নেন। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, বিরোধী দল যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা ও নির্বাচিত সরকারের পতনের জন্য নানা ষড়যন্ত্র করছে। এ ষড়যন্ত্রের অংশ হিসেবে ঢাকায় তারা মহাসমাবেশ ডেকে নৈরাজ্য তৈরি করতে চাইছে। এ বিচার বন্ধে যত চেষ্টাই করা হোক সরকার নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবে। মানববন্ধন থেকে ১৪ দলের নেতারা যুদ্ধাপরাধের বিচারে দেশবাসীর সহযোগিতা কামনা করেন। বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় ১৪ দলের নেতাদের মধ্যে আওয়ামী লীগের উপদেষ্ঠা পরিষদ সদস্য তোফায়েল আহমেদ, সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত, আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু, আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাক মাহবুব উল আলম হানিফ, ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ আজিজ ও সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বক্তব্য রাখেন। এছাড়া কেন্দ্রীয় ও নগর ১৪ দলের নেতারা সেখানে উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া শ্যামলী, রাসেল স্কয়ার, শাহবাগ, প্রেসক্লাব, পল্টন, জিপিও, ইত্তেফাক মোড়, সায়েদাবাদ ও যাত্রাবাড়ী পয়েন্টে ১৪ দলের কেন্দ্রীয় নেতারা বক্তব্য রাখেন।
যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবিতে বিভিন্ন ধরনের ব্যানার ফেস্টুন, প্ল্যাকার্ড ও প্রতীক নিয়ে ১৪ দলের নেতাকর্মীরা রাস্তায় দাঁড়িয়ে মানববন্ধন করেন। তারা যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দেন। মানববন্ধনের কারণে জিপিওর আশপাশের রাস্তাসহ বিভিন্ন স্থানে যানজট লেগে যায়। তবে রাস্তায় যানবাহন কম থাকায় যানজট দীর্ঘস্থায়ী হয়নি। মানববন্ধনে গাবতলী থেকে শ্যামলী এলাকায় মিরপুর থানা আওয়ামী লীগ, শ্যামলী থেকে আসাদ গেইট, ধানমন্ডির ২৭নং সড়ক পর্যন্ত মোহাম্মদপুর থানা আওয়ামী লীগ, রাসেল স্কয়ার, গ্রীন রোড, বসুন্ধরা মার্কেট পর্যন্ত পল্লবী, ধানমন্ডি, হাজারীবাগ থানা আওয়ামী লীগ, বসুন্ধরা থেকে সোনারগাঁও হোটেল, শাহবাগ এলাকায় কাফরুল, ক্যান্টনমেন্ট, তেজগাঁও, উত্তরা, তুরাগ, বিমানবন্দর থানা আওয়ামী লীগ, শাহবাগ, মৎস্য ভবন, হাইকোর্ট, প্রেসক্লাব, পল্টন মোড় এলাকায় লালবাগ, কামরাঙ্গীরচর থানা আওয়ামী লীগ, পল্টন মোড় থেকে নূর হোসেন স্কয়ার এলাকায় মতিঝিল, বাড্ডা, গুলশান থানা আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহের নেতা-কর্মীরা অংশ নেন। এছাড়া বঙ্গবন্ধু স্কয়ার, গুলিস্তান পার্ক, ইত্তেফাক মোড় এলাকায় ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ, কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ অংশ নেন। ইত্তেফাক মোড় থেকে রাজধানী মার্কেট পর্যন্ত সূত্রাপুর থানা আওয়ামী লীগ, রাজধানী মার্কেট থেকে সায়েদাবাদ পর্যন্ত খিলগাঁও, সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগ সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ, সায়েদাবাদ থেকে যাত্রাবাড়ী পর্যন্ত শ্যামপুর ও ডেমরা থানা আওয়ামী লীগ, সহযোগী ও ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠনসমূহ অংশ নেয়।
স্টেডিয়াম এলাকায় মানবন্ধনে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রবীণ নেতা তোফায়েল আহমেদ বলেন, নির্বাচনে তারা পরাজিত হয়েছে এখন আন্দোলনে রাজপথেও পারজিত হবে। তিনি বলেন, সারা বাংলাদেশের মানুষ ঐক্যবদ্ধ হয়ে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে। তিনি বলেন, এ মার্চ মাসেই আমরা পাকিস্তানে পতাকা পুড়িয়ে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়েছিলাম। আর আজকে বিরোধীদলীয় নেত্রী এ মার্চ মাসেই স্বাধীন বাংলাদেশে একটি অঘোষিত যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। তোফায়েল আহমেদ বলেন, ’৭১-এর মার্চ মাসে যেমন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আমরা গর্জে উঠেছিলাম আজ আবার সময় এসেছে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলার।
সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাবার জন্যই বিরোধী দলের সমাবশে, আন্দোলন। দেশের মানুষ তাদের সে চেষ্টা সফল হতে দেবে না। রাশেদ খান মেনন বলেন, বিরোধী দল যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচাতে রাজপথ দখলে নেয়ার চেষ্টা করছে। তবে ১৪ দল মানববন্ধন করে প্রমাণ করেছে এখনও রাজপথ দেশের গণতান্ত্রিক শক্তির দখলে আছে। হাসানুল হক ইনু বলেন, ১৪ দলের সামনে এখন কঠিন যুদ্ধ। এ যুদ্ধে পরাজিত হওয়ার সুযোগ নেই। বিরোধী দল সমাবেশের নামে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গণতান্ত্রিক সরকারকে রক্ষা করতে হলে বিরোধী দলের চক্রান্ত বানচাল করতে হলে মানুষের একটু কষ্ট হবেই। অতীতে স্বৈরাচারী সরকার পতনের আন্দোলনের সময়ও মানুষকে কষ্ট স্বীকার করতে হয়েছে।
মাহবুব-উল আলম হানিফ সোমবার ঢাকা শহরের পাড়া-মহল্লায় দলীয় নেতা-কর্মীদের উপস্থিত থাকার নির্দেশনা দিয়ে বলেন, সমাবেশের নামে তারা কোন ধরনের বিশৃঙ্খলা করতে চাইলে তা প্রতিহত করা হবে। তিনি বলেন, রাজপথে আন্দোলন করে আওয়ামী লীগের কাছ থেকে দাবি আদায় করা সম্ভব হবে না।
আসাদ গেট এলাকায় মানববন্ধনে অংশ নিয়ে সংসদ উপনেতা সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী বলেন, মুক্তিযুদ্ধ এখনও শেষ হয়নি। একটি রাজাকার বেঁচে থাকা পর্যন্ত যুদ্ধ চলবে। এ যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে।
জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধনে অংশ নিয়ে আমির হোসেন আমু বলেন, রাজনৈতিক কর্মসূচির নামে কোন ধরনের অরাজকতা সরকার বরদাশ্‌ত করবে না। তিনি বলেন, বিরোধী দলের কোন দাবি থাকলে তা সংসদে এসে উপস্থাপন করতে পারে। এর বাইরে রাজনৈতিক কর্মসূচি দিয়ে দাবি আদায় করা যাবে না। রাসেল স্কোয়ার এলাকায় মানববন্ধনে অংশ নিয়ে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মতিয়া চৌধুরী বলেন, জনগণের রায়ে নির্বাচিত কোন সরকার কাউকে বোমাবাজির অনুমতি দিতে পারে না। তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে গুটিকয়েক রাজাকার ছাড়া সমগ্র বাংলাদেশের মানুষ যুদ্ধাপরাধীদের বিচারে ঐক্যবদ্ধ হয়েছে। জিয়াউর রহমান একবার রাজাকারদের রাজনীতিতে পুনর্বাসন করেছেন। আর বেগম জিয়া তাদের রাষ্ট্রক্ষমতায় বসিয়ে গাড়িতে জাতীয় পতাকা ওড়ানোর দুঃসাহস দেখিয়েছিলেন। টিকাটুলিতে মানববন্ধনে অংশ নিয়ে দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আবদুল জলিল বলেন, বিরোধী দলের কর্মসূচি অহেতুক। তিনি বলেন, জনগণের দুর্ভোগ সৃষ্টি বা হয়রানি করার অধিকার কারও নেই। কর্মসূচির নামে তা কেউ করলে সরকার বসে থাকবে না।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


6 Responses to ১৩ কিলোমিটার রাস্তাজুড়ে ১৪ দলের মানববন্ধন

  1. sikiş izle

    March 13, 2012 at 4:06 am

    i cant get how you may share like this astounding posts admin much thanks

  2. alışveriş rehberi

    March 14, 2012 at 4:04 am

    you are really number one admin your running a blog is astounding i constantly test your web site i am certain you will likely be the perfect

  3. escort ilanlari

    March 14, 2012 at 4:54 am

    i cant get how it is possible to reveal like this incredible posts admin considerably thanks

  4. su arıtma cihazları

    March 14, 2012 at 11:10 am

    I used to be seeking this blog site survive a few days and nights great web site operator fantastic posts almost everything is fantastic

  5. termal

    March 14, 2012 at 1:45 pm

    I was curious about your next publish admin actually required this blog site super wonderful blog site

  6. smackdown oyunları

    March 14, 2012 at 2:38 pm

    I wanted for this blog publish admin actually thanks i will glimpse your subsequent sharings i bookmarked your web site