Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বাংলাদেশে সুতা শিল্পে বিপর্যয়ের আশঙ্কা

ঢাকা, ৮ মার্চ: সম্প্রতি ভারত সরকার বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশে তুলা রফতানি বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ী নেতারা বলছেন এর ফলে বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ তুলা আমদানিকারক দেশ হিসেবে বাংলাদেশের বস্ত্র ও বিশেষ করে রফতানি খাত অনিবার্য সংকটে পড়বে। একই সঙ্গে  ভারতের এই সিদ্ধান্তের ফলে স্পিনিং ও উইভিং মিলগুলোতে বিপর্যয় সৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

 

এ পরিস্থিতিতে বাংলাদেশ সরকারকে ভারত সরকারের সঙ্গে আলোচনা করে এ সংকট মোকাবেলার অনুরোধ জানিয়ে এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ইএবি) একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়েছে।

 

ইএবি’র প্রেসিডেন্ট আব্দুস সালাম মুর্শেদী ও সেক্রেটারি কাজী মাহবুবুর রহমান স্বাক্ষরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ভারত সরকারের এ সিদ্ধান্তে বাংলাদেশের স্পিনিং ও উইভিং মিলগুলোতে বিপর্যয়কর  পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এর ফলে অধিকাংশ টেক্সটাইল মিল বন্ধ হয়ে যেতে পারে। তুলার অভাবে অধিকাংশ টেক্সটাইল মিল বন্ধ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। চাহিদার তুলনায় মিলগুলোর উৎপাদন ব্যাপকভাবে হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেবে।

 

ভারত সরকারের নির্দেশনায় বলা হয়েছে ইতিমধ্যে যে রফতানি আদেশ রয়েছে সেই আদেশের বিপরিতেও তুলা রফতানি করা যাবে না। এই বিষয়টি উল্লেখ করে ইএবি বলছে, তুলা আমদানির ক্ষেত্রে ইতিমধ্যে দেয়া আদেশ, ফার্ম কমিটমেন্ট, চুক্তিপত্র এবং ঋণপত্র-এর ভিত্তিতে ভারত তুলা রফতানি না করলে, নতুন সোর্সিংয়ের মাধ্যমে প্রয়োজনীয় পরিমাণ তুলা আমদানি একটি সময় সাপেক্ষ ব্যাপার বিধায় তুলার অভাবে স্পিনিং মিল এবং উইভিং মিলগুলোর সুতা ও কাপড় সরবরাহের পরিমাণ বহুলাংশে হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে।

 

এর প্রভাব পড়বে দেশের রফতানিখাত তৈরি পোষাক শিল্পের ওপর। যে সকল টেক্সটাইল মিল কাপড় ও সুতা সরবরাহ করার জন্য পোশাক শিল্প প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে চুক্তিবদ্ধ আছে, তা সরবরাহ করতে ব্যর্থ হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে এবং ফলশ্রুতিতে দেশের পোশাক রফতানিও হ্রাস পাওয়ার সম্ভাবনা দেখা দেবে।

 

বার্তা২৪/ওআর/জাই

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট