Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

এমপিদের ঢাকায় তলব আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু আজ

কাফি কামাল: পোস্টার-লিফলেট নিয়ে এখন পাড়ায় পাড়ায় ছড়িয়ে পড়েছেন বিএনপি নেতা-কর্মীরা। কেন্দ্রীয় কার্যালয় থেকে জেলা পর্যায়ে পাঠানো হচ্ছে প্রচারপত্র। ‘ঢাকা চলো’ মহাসমাবেশ নিয়ে তৈরি হয়েছে গানের সিডি। আগামী দু’একদিনের মধ্যেই উঠছে বিলবোর্ড। রাজধানীর পাশাপাশি জেলা শহরের গুরুত্বপূর্ণ মোড় ও পয়েন্টে স্থাপন করা হবে অস্থায়ী বিলবোর্ড। বিভাগীয় শহরগুলোতেও পোস্টার-লিফলেট ছাপা এবং বিতরণ কার্যক্রমে ব্যস্ত নেতারা। জোটের শরিক ও সমমনা দলগুলোতেও চলছে একই কার্যক্রম। এদিকে বিএনপি এমপিদের ঢাকায় তলব করা হয়েছে। এতে অনেকেই ধারণা করছেন, নাটকীয়ভাবেই বিএনপি সংসদে যোগ দিতে পারে। ওদিকে নয়াপল্টনে মহাসমাবেশ অনুষ্ঠানে পুলিশের মৌখিক অনুমতি পেয়েছে বিএনপি। ফলে আজ থেকেই আনুষ্ঠানিক প্রচারে নামছে দলটি। দু’দিনের মধ্যেই পোস্টার ও ব্যানারে ছেয়ে ফেলা হবে রাজধানী। আগামী এক সপ্তাহ প্রচারণায় জোর দেবে বিরোধী দল। গতকাল মহাসমাবেশের প্রচার উপ-কমিটির বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। তবে ইতিমধ্যেই রাজধানীর কিছু মোড়ে ও পয়েন্টে শোভা পাচ্ছে স্বেচ্ছাসেবক দলসহ অঙ্গদলের কিছু বিলবোর্ড। সাঁটানো হয়েছে প্রথম দফা পোস্টারও। এদিকে মহাসমাবেশের সার্বিক প্রস্তুতি পর্যালোচনায় বিরোধীদলীয় নেতা খালেদা জিয়া দলের শীর্ষনেতার বৈঠক ডেকেছেন রাতে। ওদিকে মহাসমাবেশ উপলক্ষে ১৫টি চিকিৎসা টিম গঠন করেছে ড্যাব। আগের দিন থেকে গণসংগীতের আয়োজন করবে সংস্কৃতি উপ-কমিটি। ছাত্রদল গঠন করেছে ৩টি উপ-কমিটি ও ৫টি মনিটরিং টিম। তবে বিএনপি নেতারা অভিযোগ করেছেন, রাজধানীতে আবাসনের জন্য আবেদন জানালেও ভাড়া দেয়া হচ্ছে না সিটি করপোরেশনের কমিউনিটি সেন্টারগুলো। এছাড়াও সারাদেশে মহাসমাবেশের জন্য বাসভাড়া না দিতে সরকার নির্দেশ দিয়েছে মালিক সমিতিকে।
পুলিশের মৌখিক অনুমতি: নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে মহাসমাবেশের অনুমতি পেয়েছে বিএনপি। পল্টন ময়দান ও মানিক মিয়া এভিনিউ অগ্রাধিকারে থাকলেও শেষ পর্যন্ত নয়াপল্টনেই মিলেছে অনুমতি। আনুষ্ঠানিক চিঠি দিয়েও ওই দুই ভেন্যুর অনুমতি আদায় করতে পারেনি বিরোধী দল। গতকাল সকালে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক, ঢাকা মহানগর বিএনপি’র সদস্য সচিব আবদুস সালাম, যুগ্ম-আহ্বায়ক কাজী আবুল বাশার ও বিরোধীদলীয় এমপি আবদুল মমিন তালুকদার খোকা ডিএমপি কমিশনারের কাছে যান। তারা কমিশনার বেনজির আহমেদের কাছে মহাসমাবেশ আয়োজনের আনুষ্ঠানিক অনুমতি চাইলে তিনি বিএনপি নেতাদের মৌখিক অনুমতি দেন। এ বিষয়ে জয়নুল আবদিন ফারুক বলেন, দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের নির্দেশে তারা ডিএমপি কমিশনারের কাছে গেছেন। তিনি নয়াপল্টনে আমাদের পার্টির অফিসের সামনে মহাসমাবেশ অনুষ্ঠানের মৌখিক অনুমতি দিয়েছেন। মহাসমাবেশের প্রচারণার জন্য মাইক ব্যবহারের ব্যাপারে রোববারের পর (আজ) অনুমতি দেয়া যায় কিনা তা ভেবে দেখছে ডিএমপি। সেই সঙ্গে ১২ই মার্চ মহাসমাবেশের দিন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পক্ষ থেকে সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে ডিএমপি কমিশনার। বিএনপি’র মহানগর সদস্য সচিব আবদুস সালাম জানান, অনুমতি অবশেষে পাওয়া গেছে। দুইদিন পর প্রচারণা ও মাইকিংয়ের অনুমতিও পাওয়া যাবে বলে আমাদের আশ্বস্ত করেছেন পুলিশ কমিশনার। তবে ঢাকা মহানগর পুলিশের মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার আনোয়ার হোসেন বলেন, ১২ই মার্চ নয়াপল্টনে বিএনপি’র কার্যালয়ের সামনে জনসভা করার অনুমতি দেয়া হয়েছে। সেদিন মাইক ব্যবহারেরও অনুমতি দেয়া হয়েছে।
আজ থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচার: আজ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচার কার্যক্রম শুরু করবে মহানগর বিএনপি। মহাসমাবেশ উপলক্ষে গঠিত প্রচার উপ-কমিটির গতকালের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। এছাড়াও প্রচার উপ-কমিটি গঠিত ৪২টি সাব-কমিটি রাজধানীতে লিফলেট, ব্যানার ও পোস্টার বিতরণ করবে। সেই সঙ্গে তা লাগানোর কাজেও তদারক করবে। আগামীকাল সকালে কমিটির পরবর্তী সভায় এ ব্যাপারে রিপোর্ট দেবে সাব-কমিটিগুলো। এসব কাজে সংযুক্ত করা হবে চারদলীয় জোট ও সমমনা দলের নেতাদেরও। গতকাল ভাসানী ভবনে কমিটির আহ্বায়ক ও নগর বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী আবুল বাশারের নেতৃত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।
কমিউনিটি সেন্টার ও বাস ভাড়ায় বাধা: ‘ঢাকা চলো’ কর্মসূচিতে সরকার নানাভাবে বাধা দিচ্ছে অভিযোগ করেছেন ঢাকা মহানগর বিএনপি’র সদস্য সচিব আবদুস সালাম। তিনি বলেন, সরকার নানা টালবাহানা শুরু করেছে। ডিসিসি’র অধীনে থাকা কমিউনিটি সেন্টারগুলো ভাড়া পাওয়া যাচ্ছে না। এছাড়াও খবর পাচ্ছি- সারাদেশে বাস মালিক সমিতিকে এ কর্মসূচির জন্য বাস ভাড়া না দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এ ধরনের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে আন্দোলন থামানো যায় না। প্রয়োজনে আমরা বিকল্প পরিবহনের ব্যবস্থা করবো। ঢাকায় আমাদের মহানগর নেতাকর্মীদের বাসায়-বাসায় গণহারে বিশ্রামের ব্যবস্থা করবো।
পর্যালোচনা বৈঠক: ১২ই মার্চ মহাসমাবেশের সার্বিক প্রস্তুতি ও করণীয় নিয়ে বিএনপি স্থায়ী কমিটির বৈঠক আজ। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সভাপতিত্বে রাতে তার গুলশান রাজনৈতিক কার্যালয়ে এ বৈঠক হবে। এছাড়াও বৈঠকে দলের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা এবং মহানগর শাখার শীর্ষনেতার উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে। বিএনপি চেয়ারপারসন কার্যালয় সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে। আজকের বৈঠকে মহাসমাবেশের সার্বিক প্রস্তুতি ও সারাদেশে সফররত ৪৫টি সাংগঠনিক টিমের মতামত পর্যালোচনা করা হবে। প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলার কৌশল নির্ধারণ করা হবে। এছাড়াও মহাসমাবেশ থেকে ঘোষণার জন্য কর্মসূচি নিয়ে আলোচনা হবে।
এমপিদের ঢাকায় তলব: ১২ই মার্চের কর্মসূচি সফল করতে আজ থেকে রাজধানীতে অবস্থান করবেন বিরোধীদলীয় এমপিরা। খালেদা জিয়ার বিশেষ নির্দেশে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ তাদের ঢাকায় তলব করেছেন। এ ব্যাপারে জয়নুল আবদিন ফারুক বলেন, বিএনপি’র সকল এমপিকে ৪ঠা মার্চ ঢাকায় থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। আজ থেকে মহাসমাবেশ পর্যন্ত তারা রাজধানীতে অবস্থান করবেন। মহাসমাবেশ উপলক্ষে তাদের রাজধানীর বিভিন্ন ওয়ার্ডে দায়িত্ব দেয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা আপাতত সংসদে যাওয়ার কথা ভাবছি না। আমাদের লক্ষ্য এখন ১২ই মার্চের দিকে। তাছাড়া, যে সংসদে সাগর-রুনির হত্যাকাণ্ড সম্পর্কে কথা বলা যাবে না, উলঙ্গ করে পেটানোর বিরুদ্ধে কথা বলা যাবে না এবং কেবল গালি-গালাজ শুনতে হবে, সে সংসদে যাওয়ার ইচ্ছা আপাতত আমাদের নেই।
ড্যাবের ১৫ মেডিকেল টিম: ১২ই মার্চ মহাসমাবেশে দায়িত্ব পালন করবে ডক্টর এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ড্যাব) ১৫টি মেডিকেল টিম। এর মধ্যে ৫টি টিম- কাকরাইল ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স প্রাঙ্গণ, নয়াপল্টন, ভাসানী ভবন, পুরান ঢাকার নয়াবাজার এবং গুলশান চেয়ারপারসন কার্যালয়ে স্থাপন করা হবে। বাকি ১০টি টিম এম্বুলেন্সসহ মহাসমাবেশে ভ্রাম্যমাণ থাকবে। ড্যাবের মহাসচিব ও বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, রাজধানীর বাইরেও ঢাকার প্রবেশপথ- নারায়ণগঞ্জ, নরসিংদী, মুন্সীগঞ্জ, সাভার ও টাঙ্গাইলে আমাদের নেতাকর্মীদের প্রস্তুতির নির্দেশ দেয়া হয়েছে। যাতে সারাদেশ থেকে আগত কর্মী-সমর্থকরা পথে অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। এছাড়াও ড্যাবের ৮৯টি শাখা সারাদেশ থেকে কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে ঢাকা আসবে। ইতিমধ্যে পোস্টার-লিফলেট মুদ্রণ ও বিতরণ শুরু হয়েছে।
আগের দিন থেকে গণসংগীত: ১১ই মার্চ সন্ধ্যা ৭টা থেকে ১২ই মার্চ মহাসমাবেশ শুরু হওয়া পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে পর্যায়ক্রমে সংগীত পরিবেশন করবে বিএনপি’র সাংস্কৃতিক টিম। মহাসমাবেশ উপলক্ষে গঠিত সাংস্কৃতিক উপ-কমিটির গতকালের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এছাড়াও ৯ই মার্চ থেকে ট্রাকে পুরো ঢাকা শহরে গণসংগীত পরিবেশন করা হবে। এ ব্যাপারে সার্বিক প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে আগামী ৬ই মার্চ পরবর্তী সভা হবে। উপ-কমিটির আহ্বায়ক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গাজী মাজহারুল আনোয়ারের সভাপতিত্বে গতকালের সভায় জাসাস সাধারণ সম্পাদক কণ্ঠশিল্পী মনির খান, পিয়াল হাসান, রবিউল ইসলাম ফয়সল, নুরুল ইসলাম মাসুদ, জিসাস সভাপতি আবুল হোসেন রানা, চলচ্চিত্র শিল্পী আশরাফুল হক ডন, সুলতানা রাজিয়া শাওন, মনিরুল ইসলাম সোহেল, শামসুল করিম খোকন, আসাদ বিন হাফিজ, মাহফুজ বিল্লাহ শাহী প্রমুখ অংশ নেন।
ছাত্রদলের প্রস্তুতি সভা, উপ ও মনিটরিং টিম: ‘ঢাকা চলো’ মহাসমাবেশ সফল করতে প্রস্তুতি সভা করেছে ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটি। সভায় ছাত্রদল সভাপতি সুলতান সালাউদ্দিন টুকুর নেতৃত্বে প্রচার, সাধারণ সম্পাদক আমিরুল ইসলাম খান আলীমের নেতৃত্বে আপ্যায়ন কমিটি ও সিনিয়র সহ-সভাপতি শহিদুল ইসলাম বাবুলের নেতৃত্বে শৃঙ্খলা উপ-কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়াও মহাসমাবেশ উপলক্ষে রাজধানীর পার্শ্ববর্তী জেলাগুলোতে কেন্দ্রীয় নেতাদের সমন্বয়ে মনিটরিং টিম গঠন করা হয়েছে। শহিদুল ইসলাম বাবুল গাজীপুর, হায়দার আলী লেলিন নরসিংদী, দুলাল হোসেন মুন্সীগঞ্জ, বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ গাজীপুর, আমিরুজ্জামান খান শিমুল ঢাকা ও আনিসুর রহমান তালুকদার খোকনকে মানিকগঞ্জ জেলার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সভায় সংগঠনের কেন্দ্রীয় নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
প্রস্তুতি সভা: মহাসমাবেশ উপলক্ষে গঠিত শৃঙ্খলা উপ-কমিটির প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ও উপ-কমিটির আহ্বায়ক ব্রিগেডিয়ার (অব.) আসম হান্নান শাহ’র সভাপতিত্বে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সভা হয়। এতে অন্যান্যের মধ্যে ঢাকা মহানগর সদস্য সচিব আবদুস সালাম, বিএনপি’র তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সহ-সম্পাদক আবু সাঈদ খান খোকন, ছাত্রদল সভাপতি সুলতান সালাহউদ্দিন টুকু, মহিলা দল সভাপতি নুরী আরা সাফা, জাসাস সভাপতি এমএ মালেক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। বৈঠকে মহাসমাবেশের শৃঙ্খলা রক্ষা নিয়ে নানা সিদ্ধান্ত প্রণয়ন করা হয়। এছাড়াও ভাসানী ভবনে প্রচার উপ-কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। কমিটির আহ্বায়ক কাজী আবুল বাসারের সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি নানা নির্দেশনা দেন নগর বিএনপি’র সচিব আবদুস সালাম। সভায় জামায়াতের ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি ড. শফিকুল ইসলাম মাসুদ, ঢাকা মহানগর বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক আবু সাঈদ খান খোকন, আলী আজগর মাতুব্বর, মুন্সী বজলুল বাসিত আঞ্জুসহ শরিক ও সমমনা দল এবং অঙ্গদলের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। একই কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে প্রস্তুতি সভা করেছে তাঁতী দল। গতকাল সকালে নয়াপল্টন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ কর্মিসভা হয়। সভায় সংগঠনের সভাপতি ও বিএনপি’র তাঁতী বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন ইসলাম খান, সাধারণ সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ বক্তব্য দেন। আবাসন কমিটির আহ্বায়ক সাবেক এমপি এসএ খালেকের সভাপতিত্বে গতকাল মহানগর বিএনপি কার্যালয় ভাসানী ভবনে এ কমিটির সভা হয়। এতে নগর বিএনপি’র যুগ্ম আহ্বায়ক কাজী আবুল বাশার, মো. মোহন, কমিশনার মকবুল আহম্মেদ আকন প্রমুখ অংশ নেন। এছাড়াও বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের নেতৃত্বে মহিলা দল ও জাসাসের প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট