Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিপিএলের প্রথম আসরে চ্যাম্পিয়ন ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স

 

ঢাকা, ২৯ ফেব্রুয়ারি: জল্পনা-কল্পনা আর পরিকল্পনা। কোনো কিছুই কাজে আসেনি। বিপিএলের ফাইনালে মাঠে নামার আগে বরিশালকে মনে হয়েছিল বিশাল সমুদ্র। কিন্তু আজ সেই সমুদ্রকে ছোট নদীর শাখায় পরিণত করে ঢাকা। সবকিছু পেছনে ফেলে সেইসাথে বরিশালের গেম গ্ল্যানকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ঢাকা বিপিএলের প্রথম আসরের চ্যাম্পিয়ন। বুধবার মিরপুরের উইকেটে মাশরাফির ঢাকা ৮ উইকেটের জয়ে এই কৃতিত্ব অর্জন করে।

প্রচন্ড বিতর্কের মধ্য দিয়ে বিপিএলের সেমিফাইনালের বাধা টপকে ফাইনালে উঠে বরিশাল। কেউ কেউ তো আজ বরিশালের হারে চট্টগ্রামের অভিশাপ আছে মন্তব্য করতেও ছাড়েনি। সেমিতে চট্টগ্রামের বাদ পড়ার প্রক্রিয়াটিই বিতর্কিত। যতো কিছুই হউক না কেন চ্যাম্পিয়ন ঢাকা সেটাই বড় কথা।

দূরন্ত রাজশাহীকে ব্যাটে-বলে দুই বিভাগেই উড়িয়ে দিয়ে ফাইনালে উঠে আসা বরিশালকে নিয়ে আতংকে ছিল ঢাকা। বিশেষ করে রান তাড়া করে কি করে সময়ের আগেই জয় আয়ত্ব করতে হয় তা বরিশাল একাধিক বার প্রমাণ নিয়েছে বিপিএলে।

বুধবার মিরপুরে বিপিএলের প্রথম আসরের ফাইনালে ঢাকার বিপক্ষে কোনো পরিকল্পনাই কাজে দেয়নি বরিশালের। ব্যাটে-বলে কোনো বিভাগেই বরিশাল ঢাকার সামনে দাঁড়াতে পারেনি। ঢাকা যেন অপ্রতিরোধ্য এক দলের নাম।

ফাইনালে বরিশাল ঢাকার বিপক্ষে কি করবে? কত স্কোর হবে ঢাকার বিপক্ষে? এমন সব আলোচনাকে ডালপালা গজাতে দেয়নি ঢাকার বোলাররা। টস জিতে বরিশালকে কেন ফাইনালে আগে ব্যাট করতে দিয়েছে মাশরাফি! এর জবাবটা পাওয়া যায় ২০ ওভার শেষে ১৪০ রানের স্কোরের দিকে তাকালেই। দুই পাকিস্তানী আফ্রিদি আর নাভেদ উল হাসানের কাছেই বরিশাল নাস্তানাবুদ হয়। আর ব্যাট হাতে ঢাকার জয়টা এতো সহজ  করে দেন আরেক পাকিস্তান ইমরান নাজির। আফ্রিদি আর আশরাফুলকে মাঠেই নামতে হয়নি।

আফ্রিদি কেন এতো চাহিদা সম্পন্ন এর প্রমাণ তিনি দিয়েছেন বল হাতে বরিশালের ইনিংসের শুরুতেই। ওপেনার আহমেদ শেহজাদ আর ওয়ানডাউনে নামা মাস্টার্ডকে সাজঘরে দ্রুত ফেরত পাঠিয়ে আফ্রিদি ঢাকাকে মানসিকভাবে এগিয়ে নেন। আফ্রিদি ২৩ রানে ৩টি এবং রানা নাভেদ ২৪ রানে ২ উইকেট শিকার করেন।

বিপিএলে রান সংগ্রহের প্রতিযোগিতায় শীর্ষে থাকা আহমেদ শেহজাদ (২৮) দলীয় ৪৩ রানে আফ্রিদির বলে সাঈদ আজমলের হাতে ধরা পড়েন। ১২ ম্যাচে ৪৮৬ রান করে শেহজাদ ঠিকই শীর্ষ স্থান ধরে রেখেছেন। অপর ওপেনার ব্র্যাড হজ অটল পাহাড়ের মতো ঢাকার আক্রমণ সামাল দিয়েছে।

কিন্তু মিডল অর্ডারে ধারাবাহিকভাবে উইকেটের পতন বরিশাল রোধ করতে পারেনি। বরিশালের দরকার ছিল বড় একটি পার্টনারশীপ। কিন্তু ঢাকার বোলাররা তা হতে দেয়নি।

টপ অর্ডারে একা হজ লড়াই করলেন। টপ অর্ডার বা মিডল অর্ডারের কেউ ঢাকার সামনে দাড়াতে পারেনি। হজকে যদি মিডল অর্ডারের একজন সাপোর্ট দিতে পারত তাহলেই বরিশালের স্কোর ২০০ রানের কাছাকাছি যেতে পারত। আর তাতে ফাইনাল ম্যাচের আমেজটাই ফাইনালের মতো হত।

মিডল অর্ডারে মাস্টার্ড (৫) সেই আফ্রিদির শিকারে পরিণত হলেন। আর মিথুন আলী (১) মমিনুল হক (১১), ফরহাদ হোসেন (১১) রানে ফেরত গেলে বরিশালের স্কোর দাঁড়ায় ৫ উইকেটে ৯৪! ওভার শেষ হয়েছে ১৪.৪! এই রানে তো আর ফাইনালে ঢাকার কাছ থেকে শিরোপা আদায় করা সম্ভব নয়।

চাপের মধ্যে থাকা হজ বরিশালকে বড় স্কোর উপহার দেবার জন্য কোন সঙ্গীকে বেশি সময় পাননি। উল্টো ষষ্ঠ ব্যাটসম্যান ইয়াসির আরাফত (৫) দলীয় ১০১ রানে নাভেদ উল হাসানের বলে ধীমানের গ্লাভসে ধরা পড়লে বরিশালের খুব বেশি দূর যাওয়া হয়নি। তবে শেষদিকে সপ্তম উইকেট জুটিতে হজকে সঙ্গ দিলেন আলাউদ্দিন বাবু।

হজ ৫১ বলে ৭০ আর আলাউদ্দিন শূন্য রানে অপরাজিত।

১৪১ রানের টার্গেটে ১.৩ ওভারেই ২০ রান। ইমরান নাজির ১১ বার নাজিম উদ্দিন ৯ রান নেন। যদি ব্যক্তিগত ১ রানে নাজিম কবির আলীর বলে ক্যাচ দিলেন আর তা হাত থেতে ফেলে বাউন্ডারিতে রূপ দেন ইয়াসির আরাফাত। নতুন জীবন পেলেন নাজিম।

ঢাকা শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন সোহরাওয়ার্দী শুভ। শুভ ১২ বলে ১৩ রান করা নাজিম উদ্দিনকে মমিনুল হকের ক্যাচে পরিণত করেন।

ওদিকে ব্যাটিং অর্ডারে পরিবর্তন এনে আনামুল হক বিজয়কে ব্যাটিং করতে পাঠানো হয়। ৩ রানে ব্যাট করা আনামুল শুভর বলে বল আকাশে তুলে দেন। সহজ ক্যাচ, কিন্তু ফিল্ডার কবির আলী। ৪৭ রানের মধ্যে দুই বার ক্যাচ মিস করছে বরিশাল। ক্যাচ মিস মানেই তো ম্যাচ মিস!

ওয়ানডাউনে নামা আনামুল ইমরান নাজিরের সঙ্গে হলেন ঢাকার ১১০ রানের পার্টনারশীপে। ইমরান নাজির আলাউদ্দিন বাবুর বলে ক্যাচ দিলেন ঢাকার ১৩৬ রানে। নাজির ৪৩ বলে ৭৫ রান করে ঢাকার ফাইনাল জয়টা হাতের মুঠোয় এনেই ড্রেসিং রুমে ফিরেন।

টপ অর্ডারে উঠে আসা আনামুল হক ৪১ রানে অপরাজিত। ১৫.২ ওভারে আনামুল নাজমুল ইসলামের বলে বাউন্ডারি হাঁকালে বিপিএলের প্রথম আসরে ঢাকার ইতিহাস রচনা হয়ে যায়। ৮ উইকেটের বিশাল জয় দিয়ে ঢাকা বিপিএলের প্রথম আসরে শিরোপা জিতে মাঠ ছাড়ে মাশরাফি মর্তুজার ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স।

ফাইনাল খেলায় ম্যাচসেরার পুরস্কার পান ঢাকার পাকিস্তানী ক্রিকেটার ইমরান নাজির।

বার্তা২৪/জেবি/এমএকে

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট


3 Responses to বিপিএলের প্রথম আসরে চ্যাম্পিয়ন ঢাকা গ্ল্যাডিয়েটর্স

  1. rupom

    March 7, 2012 at 3:19 pm

    good luck dhaka gladiators………..also good luck barisal burners………….like bpl

  2. sikiş izle

    March 13, 2012 at 10:40 am

    I used to be curious about your upcoming post admin seriously required this blog super astounding weblog

  3. smackdown oyunları

    March 14, 2012 at 3:21 pm

    Hello admin beneficial submit significantly thanks liked this web site actually very much