Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিরোধী দলীয় নেত্রীর জবাবেই জানা যাবে বিদ্রোহের কারণ: হানিফ

ঢাকা, ২৫ ফেব্রুয়ারি: আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ বিডিআর বিদ্রোহের কারণ জানতে বিরোধীদলীয় নেত্রীর প্রতি প্রশ্ন করে বলেছেন, ‘‘জাতি জানতে চায় বিডিআর বিদ্রোহের দিন সকাল নয়টায় খালেদা জিয়া কেন তড়িঘড়ি করে বাসা থেকে বের হয়ে তিনদিন আত্মগোপনে গিয়েছিলেন? কেনই বা তিনি দেশের এই মর্মান্তিক ঘটনার সময় কোনো উদ্বেগ না দেখিয়ে বিদেশি এক দূতের বাড়িতে আশ্রয় নিয়েছিলেন।’’ তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার প্রশ্নের উত্তরের মাধ্যমেই জানা যাবে বিডিআর বিদ্রোহের কারণ।

বিডিআর বিদ্রোহে নিহত শহীদদের স্মরণে আওয়ামী লীগ আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এ রোবাবার বিকেলে এই আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারিতে খালেদা জিয়ার কথা উল্লেখ করে মাহবুব-উল-আলম হানিফ বলেন, ‘‘ঘটনার দিন সকাল পৌনে নয়টার সময় ঘুম থেকে উঠে তড়িঘড়ি করে কালো গ্লাসে ঢাকা একটি গাড়িতে বাসা ছেড়ে চলে গিয়েছিলেন। তিনদিন ছিলেন। পরে শোনা গেছেন কোনো এক দূতাবাসে উনি আত্মগোপন করেছিলেন। প্রশ্ন থেকে যায় কেন উনি পালিয়ে গেলেন, কেনই বা উনি আত্মগোপনে গেলেন।’’

তিনি বলেন, ‘‘যে নেত্রী ঘুম থেকে ওঠে বেলা বারোটায় তিনি কিভাবে সকাল নয়টায় উঠে পালিয়ে গেলেন। আমার বিশ্বাস বিরোধী দলীয় নেত্রীর এই জবাবের মাধ্যমেই জানা যাবে বিডিআর বিদ্রোহের কারণ।’’

প্রধানমন্ত্রীর এই বিশেষ সহকারী আরো বলেন,‘‘আজকে অনেক ঘটনায় প্রমাণিত। বিডিআর বিদ্রোহের দিন পিলখানার বাহিরে নাসিরউদ্দীন পিন্টু ও তার ক্যাডাররা মিছিল করেছিল। ওদিন তারা মিছিল করে বলেছিল, বিডিআর জনতা ভাই ভাই।’’

তিনি বলেন, ‘‘বিদ্রোহের ঘটনায় গ্রেফতারকৃতদের ২২ জনের চাকরির সুপারিশ করেছিলেন সাবেক উপমন্ত্রী আব্দুস সালাম পিন্টু। এতে কি প্রমাণিত হয় না এই ঘটনার পিছনে কাদের ইন্ধন ছিল।’’

এই সরকারের আমলেই বিডিআর বিদ্রোহের বিচার সম্পন্ন হবে জানিয়ে হানিফ বলেন, ‘‘বিডিআর বিদ্রোহের ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে বিচার কাজ চলছে। এই সরকারের আমলেই বিচার কাজ শেষ হবে।’’

বিচার কাজের অগ্রগতি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘‘ইতোমধ্যেই বিচার কাজ শুরু হয়েছে। বিচার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে রয়েছে।’’

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর অন্যতম সদস্য লতিফ সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক বদিউজ্জামান ডাবলু, সদস্য সুজিত রায় নন্দী, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ, শ্রম ও কল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, মহানগর আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি মুকুল চন্দ্র দাস, সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ এর সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দীন মাহি প্রমুখ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট