Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

নওয়াপাড়ায় বিজিবি-জনতা সংঘর্ষ, আহত ৫, ৭০ লাখ টাকার কাপড় লুট

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর থেকে: চোরাচালানের মাল আটক করাকে কেন্দ্র করে যশোরের শিল্প শহর নওয়াপাড়ায় বিজিবি-জনতা সংঘর্ষে ৫ জন আহত ও প্রায় ৭০ লাখ টাকার ভারতীয় মালামাল লুটের ঘটনা ঘটেছে। এর প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ জনতা ও ব্যবসায়ীরা যশোর-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। গতকাল বিকালে যশোরের অভয়নগর উপজেলার নওয়াপাড়া কাপুড়িয়া পট্টি এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গতকাল বিকাল ৩টার দিকে যশোর বিজিবি’র টু আইসি মেজর ওয়াহিদ ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এসএম আশফাকুজ্জামানের নেতৃত্বে একটি চোরাচালান বিরোধী টাস্কফোর্স শিল্প শহর নওয়াপাড়ার কাপুড়িয়া পট্টিতে অভিযান চালায়। টাস্কফোর্স সদস্যরা ভারতীয় চোরাই কাপড় সন্দেহে এ সময় বাজারের প্রায় শতাধিক দোকান থেকে প্রায় ৭০ লাখ টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকারের কাপড় জব্দ করে। ব্যবসায়ীরা জব্দকৃত কাপড়কে বৈধ দাবি করে তাদের কাগজপত্র প্রদর্শন করলেও বিজিবি বা টাস্কফোর্স সদস্যরা তা মানতে রাজি না হলে দেখা দেয় উত্তেজনা। একপর্যায়ে বিজিব সদস্যরা আটককৃত কাপড় তাদের পিকআপ ভ্যানে তুলে চলে আসার উদ্যোগ নিলে বিক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা তাদের জব্দ করে নিয়ে যাওয়া কাপড়ের সিজার লিস্ট দাবি করেন। বিজিবি’র মেজর ওয়াহিদ জব্দ তালিকা নিতে ব্যবসায়ীদের যশোর বিজিবি ক্যাম্পে আসার নির্দেশ দিলে  মুহূর্তে ব্যবসায়ীরা অগ্নিমূর্তি ধারণ করে তাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। ব্যবসায়ীদের হামলায় বিজিবি সোর্স মতিন মারাত্মক আহত হলে বিজিবিও ব্যবসায়ী জনতার ওপর লাঠিচার্জ করে। এতে ব্যবসায়ীসহ ৫ জন আহত হন। জনতাও বিজিবি’র বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে ওঠে।  জনরোষের মুখে বেশিক্ষণ টিকতে না পেরে বিজিবি সদস্যরা তাদের মালবোঝাই পিকআপ ভ্যানটি রেখে নিরাপদ দূরত্বে একটি ভবনে আশ্রয় নেন। এ সময় ব্যবসায়ী ও জনতা তাদেরকে ওই ভবনে অবরুদ্ধ করে রাখেন। এদিকে বিক্ষুব্ধ ব্যবসায়ী ও জনতা বিজিবি’র গাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে ও জব্দকৃত মালামাল লুট করে নেয়। এই ঘটনার প্রতিবাদে বিক্ষুব্ধ ও ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা যশোর-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে ও ক্ষতিপূরণ দাবি করে। এদিকে মহাসড়ক অবরোধ করে রাখায় নওয়াপাড়া বাজারের উভয়পার্শ্বে সৃষ্টি হয় ভয়াবহ যানজটের। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গেলে যশোর থেকে অতিরিক্ত বিজিবি ও পুলিশ নওয়াপাড়া বাজারে পৌঁছায়। একই সঙ্গে স্থানীয় থানা থেকেও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। পরে সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসারসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মধ্যস্থতায় ব্যবসায়ীরা অবরোধ তুলে নেন। এদিকে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যবসায়ীরা তাদের জব্দকৃত ও পরে লুট হয়ে যাওয়া কাপড় ফেরত চেয়ে বিজিবি সদস্যদের বিরুদ্ধে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট