Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

কাদের মোল্লার আপিলের রায় যেকোনো দিন

আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আবদুল কাদের মোল্লার আপিলের রায় যেকোনো দিন। মঙ্গলবার সকালে একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা আবদুল কাদের মোল্লার সাজার পক্ষে-বিপক্ষে করা আপিল আবেদনের ওপর আসামিপক্ষের শুনানি শেষ হয়েছে। উভয়পক্ষের আপিল শুনানি শেষে মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান রেখেছেন আদালত। এখন যেকোনো দিন রায় ঘোষণা হতে পারে।

মঙ্গলবার রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইনজীবী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের সমাপনী বক্তব্যের মধ্য দিয়ে চূড়ান্ত শুনানি শেষ হয়।

পরে আদালত থেকে বের হয়ে এসে মাহবুবে আলম বলেন, আমরা আশা করছি, কাদের মোল্লাকে সর্বোচ্চ দ- দেবে আপিল বিভাগ। তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক বলেন, এ সাক্ষ্য প্রমাণের ভিত্তিতে কাদের মোল্লাকে কোনো রকম দ- দিলে তা হবে কালো রায়।

এর আগে সংশোধিত আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনাল) আইন-১৯৭৩ জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হওয়া না হওয়া নিয়ে সৃষ্ট আইনি জটিলতা নিরসনে নিয়োজিত ৭ অ্যামিকাস কিউরি (আদালতের আইনি সহায়তাকারী বন্ধু) বক্তব্য উপস্থাপন করেন।

সোমবার আসামি ও রাষ্ট্রপক্ষের আপিলে সমান সুযোগ রেখে আনা সংশোধনীর ব্যাপারে তাদের মতামত দেন। শাহবাগে সংগঠিত আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে এ সংশোধনী আনা হয়েছিল।

তাদের মধ্যে ৫ জন এ আপিল আইন কাদের মোল্লার ক্ষেত্রেও প্রযোজ্যের পক্ষে এবং দুজন এর বিপক্ষে মত দিয়েছেন।

অন্যদিকে ৫ জন প্রথাগত আন্তর্জাতিক আইন চলমান মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় প্রযোজ্য হবে বলে মত দেন। দুজন হবে না বলে মত দেন।

প্রসঙ্গত, একাত্তরে মানবতাবিরোধী আপরাধের দায়ে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামি জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল কাদের মোল্লার মামলার আপিলের শুনানিতে দুটি আইনি বিষয়ে প্রশ্ন ওঠে।

১. আপিলের সমান বিধান রেখে ট্রাইব্যুনাল আইনে আনা সংশোধনী কাদের মোল্লার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে কি না।

২. কাস্টমারি ইন্টান্যাশনাল ল (প্রথাগত আন্তর্জাতিক আইন) বিচারাধীন মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় প্রযোজ্য হবে কি না। ২০ জুন এ দুই বিষয়ে মতামত নেয়ার জন্য ৭ জন সিনিয়র আইনজীবী নিয়োগ দেন আপিল। অ্যামিকাস কিউরিদের মধ্যে ৬ কার্যদিবসে উপস্থিত থেকে মতামত দিয়েছেন ৬ জন এবং লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেছেন ১ জন অ্যামিকাস কিউরির পক্ষে তার আইনজীবী।

তাদের মধ্যে এ সংশোধনী আব্দুল কাদের মোল্লার মামলার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে বলে একই ধরনের মতামত দিয়েছেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক, ব্যারিস্টার এম আমীর উল ইসলাম, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল মাহমুদুল ইসলাম, ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি ও ব্যারিস্টার রোকন উদ্দিন মাহমুদ। তবে টিএইচ খান ও এএইচ হাসান আরিফ মনে করছেন, এটি প্রযোজ্য হবে না।

গত ৫ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ কাদের মোল্লার বিরুদ্ধে আনা ৬টি অভিযোগের মধ্যে ২টিতে তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড এবং ৩টিতে ১৫ বছর করে কারাদ- দেন। অন্য একটি অভিযোগ থেকে তাকে খালাস দেয়া হয়। কাদের মোল্লার ফাঁসি চেয়ে শাহবাগে আন্দোলন গড়ে উঠলে তাদের দাবির মুখে ১৭ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইবব্যুনাল (সংশোধন) বিল-২০১৩ জাতীয় সংসদে পাস হয়। এতে নতুন করে সরকারকে আপিলের বিধান দেয়া হয়।

৩ মার্চ কাদের মোল্লার সর্বোচ্চ সাজা চেয়ে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। পরদিন ট্রাইব্যুনালের দেয়া দ-াদেশ বাতিল করে অব্যাহতি চেয়ে আপিল করেন কাদের মোল্লা। এর পরিপ্রেক্ষিতে আপিলের শুনানি শুরু হয়।

আদালতে আসামিপক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাক। তার সঙ্গে ছিলেন এডভোকেট তাজুল ইসলাম, শিশির মু. মনির, ইমরান এ সিদ্দিকী, এহসান এ সিদ্দিকী প্রমুখ।

সরকারপক্ষে শুনানি করেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তার সঙ্গে ছিলেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এম কে রহমান, মুরাদ রেজা প্রমুখ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট