Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

নন্দিত কথাশিল্পী হুমায়ূন আহমেদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

“অপেক্ষায় আছি/শান্ত হবে অশান্ত এই হাওয়া/বন্দিদশা মুক্ত হবে ভালবাসা/পূর্ণ সকল চাওয়া।” জননন্দিত কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকীতে নুহাশ পল্লীর থমথমে আয়োজন দেখে কবির ওই পঙতিটি বারবার দোল খেয়ে যায় তাঁর ভক্তদের মনে। স্বপ্নবিলাসী হুমায়ূন স্বপ্ন ঢেলেছেন তরুণ প্রজন্মের মনের গহিনে। তাদের করে তুলেছেন স্বপ্নাবলাসী।

বন্দিদশা মুক্ত হবে ভালবাসা- পূর্ণ সকল চাওয়া– কি সে চাওয়া এটা বুঝতে হলে ঘুরেফিরে হুমায়ূনকেই পড়তে হবে বারবার। যার প্রতিটি লেখার গভীরে লুকানো দেশপ্রেম তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ করে। শান্তির বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখতেন হুমায়ূন। আর সেই স্বপ্ন বিলিয়েছেন তিনি এই প্রজন্মের  মাঝে।

১৯ জুলাই (শুক্রবার) কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী। আর এ উপলক্ষে গাজীপুরে তার প্রিয় নূহাশ পল্লীতে নেয়া হয়েছে ব্যাপক কর্মসূচি।

আমাদের গাজীপুর প্রতিনিধি জানিয়েছেন, সেখানে সকাল থেকেই কোরাআনখানি, কবর জিয়ারত, দোয়া ও  সন্ধ্যায় ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেছেন তার স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন।

অন্যদিকে নূহাশ পল্লীর ব্যবস্থাপক সাইফুল ইসলাম বুলবুল জানান,  মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বাদ জুমা নুহাশ পল্লীর পার্শ্ববর্তী কয়েকটি মাদ্রাসা ও এতিমখানার ছাত্ররা কোরআন পাঠ, কবর জিয়ারত, দোয়া এবং  ইফতার মাহফিলে যোগ দিবে। এছাড়াও হুমায়ূনের স্ত্রী শাওন, ছেলে নিষাদ ও নিনিতসহ পরিবারের সদস্যরা এবং ভক্ত-বন্ধুরা কবর জিয়ারত ও ইফতারে অংশ নেবেন।

তিনি জানান,  হুমায়ূন আহমেদের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে গৃহিত কর্মসূচি বাস্তবায়ন, স্বামীর কবর জিয়ারত ও বাঁধাইয়ের কাজ তদারকির জন্য বুধবার মধ্যরাতেই নিষাদ ও নিনিতকে নিয়ে শাওন নুহাশ পল্লীতে এসে অবস্থান করছেন এবং ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন। নুহাশ পল্লীতে হুমায়ূন আহমেদের কবর মার্বেল পাথর দিয়ে পাকা করার কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে।

উল্লেখ্য, বাংলাসাহিত্যের জনপ্রিয় লেখক হুমায়ূন আহমেদ ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে গত বছরের ১৯ জুলাই যুক্তরাষ্ট্রের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৪ বছর। ২৪ জুলাই তাকে গাজীপুরের নূহাশ পল্লীতে দাফন করা হয়।

হুমায়ূন আহমেদ ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনার কেন্দুয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগের শিক্ষক হুমায়ূন আহমেদ সাহিত্য জগতে এসে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। লেখালেখির পাশাপাশি নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা হিসেবেও তিনি সমান জনপ্রিয় ছিলেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট