Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সত্যের জয় হয়েছে : লিমন

শেষপর্যন্ত সত্যের জয় হয়েছে-  মামলা প্রত্যাহারের সংবাদে উৎফুল্ল লিমন ও তার পরিবারের মুখে এই একটিই কথা। পুরো পরিবার এখন আনন্দে আত্মহারা। লিমন একা নয়, একই সাথে আনন্দে মেতেছে তার গ্রামবাসীও।

র‌্যাবের গুলিতে পঙ্গু ঝালকাঠির রাজাপুরের কলেজছাত্র লিমন হোসেনের বিরুদ্ধে দায়ের করা সকল মামলা প্রত্যাহার করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। মঙ্গলবার দুপুরে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমানকে এ ব্যাপারে প্রথম জানানো হয়। বেলা আড়াইটায় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ফোনের মাধ্যমে লিমনকে মামলা প্রত্যাহারের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

লিমনের বিরুদ্ধের মামলা প্রত্যাহারের এ খবরে তার পরিবারে ও গ্রামে এখন আনন্দের বন্যা বইছে। লিমন নিজেই বিকাল সাড়ে তিনটায় জাস্ট নিউজকে ফোনের মাধ্যমে এ বিষয়টি অবহিত করেন।

লিমন হোসেন জানান, মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মিজানুর রহমান স্যার আমাকে ফোন দিয়ে বলেন, লিমন তোমার বিরুদ্ধে র‌্যাবের মামলা ২টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে তোমার বিষয়টি নিয়ে অনেক আলোচনা করার পর এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

এ খবর শুনে আমি খুশিতে চিৎকার করে উঠি। এতটা খুশি হয়েছিলাম যে, আমি স্যারের সাথে ফোনেই কেঁদে ফেলেছিলাম। স্যার এ সময় আমাকে সান্ত্বনা দেন এবং আমার বিজয় হয়েছে বলে মন্তব্য করেন।

লিমন বলেন, মিডিয়ায় ব্যাপারটি ফলাও করে প্রচারিত হওয়ায় সরকার সত্যটা বুঝতে পেরে র‌্যাবের সাজানো মামলাটি প্রত্যাহার করে নিয়েছে। আমি এখন সরকারের কাছে দাবি করছি- আমাকে গুলি করে চিরতরে পঙ্গু করে দেয়া র‌্যাব সদস্যদের যেন সঠিক বিচার করা হয়।

মামলা প্রত্যাহারের প্রতিক্রিয়ায় বিষয়ে লিমন জানান, আমি জানতাম যে আমার বিরুদ্ধে র‌্যাব মিথ্যা মামলা দিয়েছে। আর তাই সত্যের জয় হবেই। অনেক হয়রানির পর শেষ পর্যন্ত সত্যের জয় হয়েছে।  র‌্যাবের দায়ের করা এ মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের মাধ্যমে পঙ্গু লিমনের জয় আর দোষী র‌্যাবের পরাজয় হয়েছে বলে লিমনের আইনজীবীরা মন্তব্য করেছেন।

এ সময় লিমনের মা হেনোয়ারা বেগম বলেন, আমার ছেলে সম্পূর্ণ নির্দোষ ছিল। আমরা গরিব বলে র‌্যাব আমাদের নানাভাবে হয়রানি করেছে। মামলা চালানোর মতো আমাদের কোনো সম্বল নেই। সরকার এ মামলা প্রত্যাহার করায় আমি তার কাছে চিরকৃতজ্ঞ।

উল্লেখ্য, ২০১১ সালের ২৩ মার্চ র‌্যাবের কথিত বন্দুকযুদ্ধে লিমন আহত হন। তৎকালীন বরিশাল র‌্যাব-৮ এর ডিএডি লুৎফর রহমান বাদী হয়ে রাজাপুর থানায় অস্ত্র আইনে ও সরকারি কাজে বাধা দানের অভিযোগ এনে দুটি মামলা দায়ের করেন। বর্তমানে ঝালকাঠি চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এই মামলার বিচারকাজ চলছিল।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট