Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘গাজীপুরে আজমত উল্লা খানের জয় হবেই’

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, গাজীপুরের সিটি নির্বাচনে আজমত উল্লা খানের জয় হবেই। জনগণ ইতিমধ্যেই বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর কু-কর্ম  সর্ম্পকে জেনে গেছে। যে কারণে তারা গত ৩টি পৌর মেয়র নির্বাচনে জয়ী ক্লিন-ইমেজের মানুষ আজমত উল্লা খানকেই বেছে নেবে। গাজীপুরকে বলা হয় ২য় গোপালগঞ্জ। এখানকার মানুষ কখনও মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতাকারীদের ভোট দিতে পারে না। ৬ জুলাই সুষ্ঠু নির্বাচনে আওয়ামী লীগ তথা ১৪ দল সমর্থিত প্রার্থীর জয়ের মাধ্যমে সেটা প্রমাণিত হবে।  সিরাজগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে বিএনপির সমালোচনা করে মোহাম্মদ নাসিম আরও বলেন, এই নির্বাচন কমিশনের অধীনে বিএনপি বেশ কয়েকটি নির্বাচনে জয় লাভ করেছে। জয়লাভ করলে সফল আর হেরে গেলে কারচুপি। বিএনপিকে এই ট্র্যাডিশন থেকে বেরিয়ে আসতে হবে। ধর্ম নিয়ে যারা মিথ্যাচার করছে গাজীপুরের নির্বাচনে তাদের পতন হবে। ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করে মানুষকে বিভ্রান্ত করা যাবে না। বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র। এখানে সকল ধর্মের মানুষের সম অধিকার বজায় রয়েছে।
রেশমার উদ্ধার অভিযানকে বির্তকিত করার জন্য বিএনপি বিদেশী পত্রিকায় মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ করে জাতির সামনে সেনাবাহিনীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ করার অপপ্রয়াস চালিয়েছিল। যা ইতিমধ্যেই প্রমাণ হয়ে গেছে। পোশাক শিল্পকে ধ্বংস করার জন্য খালেদা জিয়া জিএসপি সুবিধা বাতিলে যে সুপারিশ করেছিল ওয়াশিংটন টাইমস পত্রিকা তা প্রকাশ করে বিশ্বের কাছে প্রমান করে দিয়েছে।

কিশোরগঞ্জের নির্বাচন নিয়ে বিএনপি নেতা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের করা কারচুপির অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবী করে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ওই আসনে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ ৭ বার এমপি নির্বাচিত হয়েছিল। যে কারণে জনগণ প্রেসিডেন্টের ছেলেকে ভোট দিয়ে নির্বাচিত করেছে। কিশোরগঞ্জের নির্বাচনের ধারাবাহিকতায় গাজীপুরেও জনগণ আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীকে বিপুল ভোটে জয়ী করবে। অজুহাত তৈরির জন্য বিএনপি গাজীপুরে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবী করছে। আমরা মনে করি, সেনাবাহিনী ছাড়াই অতীতের নির্বাচনগুলো যেমন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ হয়েছে। গাজীপুরেও তাই হবে।
আজমত উল্লা খানকে সমর্থত দেয়ায় এরশাদকে ধন্যবাদ জানিয়ে নাসিম বলেন, জাতীয় পার্টি মহাজোটে আছে। আগামীতে এরশাদ মহাজোটে আরও সম্মানজনক অবস্থানে থাকবে।
সংবাদ সম্মেলনে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এ্যাডঃ কেএম হোসেন আলী হাসান, সহ-সভাপতি আবু ইউসুফ সূর্য্য, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান  আবু মোহাম্মদ গোলাম কিবরিয়া, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক প্রফেসর হাবিবে মিল্লাত মুন্নাসহ অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট