Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

দুদুর অবরুদ্ধ দিনলিপি

দলীয় কার্যালয়ে অবরুদ্ধ অবস্থায় দিন পার করছেন বিএনপি’র চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু। তিনি এখন দলের দপ্তরের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছেন। গ্রেপ্তারের ভয়ে দলীয় কার্যালয়েই তিনি থাকছেন। গত ৪৫ দিনের মধ্যে এক দিনের জন্যও তিনি বাইরে যাননি। পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলেন ফোনে, স্কাইপে। এর আগে দলের দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ দীর্ঘদিন অবরুদ্ধ অবস্থায় দলীয় কার্যালয়ে ছিলেন। গত ১১ই মার্চ বিএনপি কার্যালয়ে পুলিশি অভিযানের দিনে তাকেও কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর দলের দপ্তরের দায়িত্ব পালন করেন আরেক যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ। তাকেও গ্রেপ্তার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। এরপর থেকে দলের দপ্তরের সমন্বয়কের দায়িত্ব পালন করছেন শামসুজ্জামান দুদু। গত ৯ই এপ্রিল নয়াপল্টনের বিএনপির কার্যালয়ে প্রবেশ করার পর থেকে তিনি সেখানেই আছেন। দলীয় কার্যালয়ে অবরুদ্ধ জীবন-যাপন প্রসঙ্গে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, গত ৯ই এপ্রিল দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করার পর আর বের হতে পারছি না। বের হলেই পুলিশের গ্রেপ্তার করার আশঙ্কা রয়েছে। আমাদের কাছে তথ্য রয়েছে, দলীয় কার্যালয় থেকে বের হলেই গ্রেপ্তার করা হবে। তবে কার্যালয়ের ভেতর থেকে গ্রেপ্তার করবে না। এজন্যই দলীয় কার্যালয়ে অবস্থান করছি। ’৮৫-’৮৬ সালের এই ছাত্রদল সভাপতি বলেন, মানুষ কারাগারে বন্দি জীবন-যাপন করেন। আর অনেকে বলে, আমি অফিসবন্দি। আসলে আমি নতুন ধরনের এক বন্দিজীবন-যাপন করছি। আপনার বিরুদ্ধে তো কোন ধরনের গ্রেপ্তারি পরোয়ানা নেই। তারপরও গ্রেপ্তারের ভয় কেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলীয় কার্যালয় থেকে বের হলেই গ্রেপ্তার করে শোন অ্যারেস্ট দেখানো হয়। এর আগে বিএনপির পাঁচজন যুগ্ম মহাসচিব আমানউল্লাহ আমান, বরকতউল্লাহ বুলু, রুহুল কবির রিজভী, সালাউদ্দিন আহমেদ ও মো. শাহজাহানকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সালাউদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে কোন ধরনের মামলা বা গ্রেপ্তারির পরোয়ানা ছিল না। তারপরও তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমার দেশ-এর ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক মাহমুদুর রহমানকে পত্রিকার কার্যালয়ে বন্দি থাকার পর গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সরকার ফ্যাসিবাদী আচরণ মন্তব্য করে শামসুজ্জামান দুদু বলেন, সরকার আইন মানছে না, সংবিধান মানছে না। তারা এখন স্বৈরাচারী আচরণ করছে। দেশের মানুষের এখন মৌলিক অধিকার নেই।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট