Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘তত্ত্বাবধায়ক’ ইস্যুতে পত্রিকার জরিপ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রশ্ন

তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের বিষয়ে একটি জাতীয় দৈনিকের জনমত জরিপ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, দেশে আওয়ামী লীগের সমর্থন আছে ৪৮ভাগ। গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ভোট পেয়েছিল ৫২ভাগ। কিন্ত একটি পত্রিকা জরিপ করে বলেছে ৯০ভাগ মানুষ নাকি তত্ত্বাবধায়ক চায়। মাত্র তিন হাজার মানুষের ওপর জরিপ চালিয়ে কি এই ফল দেয়া যায়। এখানে আওয়ামী লীগের মানুষের মতামত গেলো কোথায়? এই পত্রিকাটির চরিত্র কে না জানে? তাদের বক্তব্যের কি বিশ্বাসযোগ্যতা আছে?
তিনি বলেন, ২০০৭ এবং ২০০৮ সালে পত্রিকাটি কি ভূমিকা রেখেছে তা সবার জানা আছে। এই পত্রিকাটি বিভ্রান্তিকর তথ্য দিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করতে চায়। তাদের সম্পর্কে সজাগ থাকা দরকার।
সকালে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির বিশেষ বর্ধিত সভায় প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভার সূচনা বক্তব্যে বিরোধী দলকে সংসদে যোগ দেয়ার আহবান জানিয়ে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, সংসদের বাজেট অধিবেশনে যোগ দেন। যা বলুর বলুন, যতো খুশি বলুন। আল্টিমেটাম দিয়ে হুমকি ধমকি দিয়ে কোন লাভ হবে না। জ্বালাও পোড়াও বাদ দেন। এসব করলে সরকার তা বরদাশত করবে না। জনগনের জানমালের নিরাপত্তা দিতে সরকার যা যা করার দরকার তাই করবে।
তিনি বলেন, আমি বিরোধী দলীয় নেত্রীকে (খালেদা জিয়া) সংলাপের ডাক দিলাম আর উনি (খালেদা জিয়া) ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিলেন। তিনি বলেছিলেন আমি নাকি পালাবার পথ পাবো না! আমি তো উনাকে বলতে পারি! উনিওতো এখন পথহারা। হেফাজতে ইসলামের সমাবেশের বিষয়ে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, আল্টিমেটাম দেয়া হলো, কিন্ত আধা ঘণ্টায়ই তা খালাস!
তত্ত্বাবধায়ক সরকারের নেতিবাচক দিক তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, উনি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের কথা বলছেন। একবার তত্ত্বাবধায়ক এসে উনার ছেলেদের দেশছাড়া করেছে। আবার তত্ত্বাবধায়ক এলে উনাকে যেতে হয় কিনা কে জানে?
বর্ধিত সভায় দলের কেন্দ্রীয় কমিটি, উপদেষ্টা পরিষদ এবং জেলা কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট