Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হরতাল চলছে

দুয়েকটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া ১৮ দলীয় জোটের হরতাল চলছে। সকাল ছ’টা থেকে শুরু হয়েছে এই কর্মসূচি। তবে দিনের শুরু থেকেই দেখা গেছে ঢিলেঢালা ভাব। রাজধানীতে যানচলাচল করছে। তবে তা সংখ্যায় কম। দূরপাল্লার বাস ও নৌযান চলছে না। বিমান ও ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। ব্যাংক বীমা খুললেও লোকজনের উপস্থিতি কম। হাসপাতালগুলোতেও মানুষের ভীড় দেখা যাচ্ছে না। কোথাও পিকেটিং চোখে পড়ছে না। গত রোববার রাজধানীতে হেফাজত-পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষ ও রাতে যৌথবাহিনীর অভিযানের পর এ হরতালকে ঘিওে দেশের গুরুত্বপূর্ণ ভবন ও স্থাপনাগুলো বিশেষ নজরদারির আওতায় আনা হয়েছে। বিজিবি, র‌্যাব ও পুলিশ রয়েছে সতর্ক পাহারায়। শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হচ্ছে হরতাল কর্মসূচি। দুদিনের এ হরতাল সন্ধ্যা ছ’টা পর্যন্ত একটানা চলার পর ১২ ঘণ্টা বিরতি দিয়ে ফের বৃহস্পতিবার সকাল ছ’টা সন্ধ্যা ছ’টা পর্যন্ত চলবে। হেফাজতে ইসলামের ওপর হামলা ও বিরোধী দলীয় নেতাকর্মীদের নির্যাতনের অভিযোগে এবং তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা পুনর্বহাল ও সরকারের পদত্যাগের দাবিতে গত সোমবার রাতে হরতাল ডাকে ১৮ দল। তাতে  সমর্থন দেয় নতুন শক্তি হেফাজতে ইসলাম। হরতাল শুরুর আগে আজ ভোর ৫টা থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকাসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ও ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য মোতায়েন করা হয়। গতকাল সন্ধ্যার পর থেকে হরতালে নাশকতা ঠেকাতে রাজধানীতে ৯ প্লাটুন বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।
দিনের শুরুতে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় ছিল ভেতর থেকে তালাবদ্ধ। মঙ্গলবার সন্ধ্যা থেকে ভেতরে অবস্থান করছেন শীর্ষ ৪ নেতা। এরা হলেন-বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আবদুস সালাম, সহ দপ্তর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি ও শামীমুর রহমান। তারা সেখানেই রাত কাটান বলে জানা গেছে। এদিকে হরতাল শুরুর পর এখন পর্যন্ত কোথাও থেকে সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি। রাস্তায় যান চলাচল তুলনামূলক কম থাকলেও জনজীবন কিছুটা স্বাভাবিক রয়েছে। সকাল সাড়ে ৭টার দিকে রাজধানীর আগারগাও সহ দুটি জায়গায় দুটি বাসে আগুন দেয়ার খবর পাওয়া গেছে।
ঢাকার মতে সারা দেশেও এখন পর্যন্ত শান্তিপূর্ণভাবে হরতাল পালন হচ্ছে। কোথাও থেকে কোন সহিংসতার খবর পাওয়া যায়নি। তবে ঢাকার বাইওে কোথাও স্বল্প-পাল্লা বা দূও পাল্লার বাস চলাচল করতে পারছে না। রিক্সা ছাড়া কোথাও যান যান চলছে না। অনেক জায়গায় রিক্সাও দেখা যাচ্ছে না। উপজেলা ও জেলা শহরগুলোর বিভিন্ন স্থানে পিকেটিংয়ের খবর পাওয়া গেছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট