Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সরকারকে খালেদার ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম

বিরোধী দলের নেতা বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, বিরোধী দল সংলাপ এবং আলোচনার জন্য প্রস্তত। তার আগে আলোচনার পরিবেশ তৈরি করতে হবে। আগে নির্দলীয় সরকার ফিরিয়ে আনার নিশ্চিয়তা দিতে হবে। তিনি বলেন, সংলাপের পরিবেশ তৈরি করার দায়িত্ব সরকারের। প্রধানমন্ত্রী সংলাপের আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন। তিনি চায়ের আমন্ত্রণও জানাবেন। তাই আমি এখন উনাকে আমার বাসায় চায়ের আমন্ত্রণ দিচ্ছি। নির্দলীয় সরকার প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয়ার জন্য সরকারকে ৪৮ ঘণ্টার আল্টিমেটাম দিচ্ছি। এর মধ্যে ঘোষণা দিতে হবে। এই সময়ের মধ্যে ঘোষণা না দিলে আর পারমিশন চাইবো না। যেখানে সুযোগ হবে সেখানে বসে যাবো। তখন সরকারকে বিদায় নিতে হবে।
বিকালে রাজধানীর মতিঝিলের শাপলা চত্বরে ১৮ দল আয়োজিত জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন। বক্তব্যের শুরুতে খালেদা জিয়া সাভারে ভবন ধসে হতাহতের ঘটনায় শোক ও সমবেদনা জানান। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, মানুষগুলোর জীবন বাঁচাতে ব্যর্থ হয়েছে সরকার। বিদেশীরা সাহায্য দিতে চেয়েছিল। সরকার নেয়নি। সাধারণ মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে উদ্ধারে অংশ নিয়েছিল। একারণেই অনেক মানুষকে বাঁচানো গেছে। কতো মৃত্যু হয়েছে, কতো মানুষ নিখোঁজ তারও কোন হিসাব সরকার দিচ্ছে না। সমাবেশে বিএনপি ও ১৮ দলের শীর্ষ নেতারা বক্তব্য রাখেন।
তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের কাছে কোন ধর্মই নিরাপদ নয়। নাস্তিক ব্লগারদের শাস্তির দাবিতে আলেমরা আন্দোলন করছেন। আর সরকার তাদের সন্ত্রাসী-জঙ্গি বলছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে কোন জঙ্গি নেই। এটি সরকারের অপপ্রচার। জঙ্গি সন্ত্রাসী থাকলে আওয়ামী লীগেই আছে। তিনি বলেন, সরকারের সুর এখন নরম। বিপদে পড়লেই তাদের সুর নরম হয়।
খালেদা জিয়া বলেন, সরকারের কর্মকান্ডে মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। মানুষ এ অবস্থা থেকে পরিত্রান চায়, মুক্তি চায়। তিনি সরকারের উদ্দেশ্যে বলেছেন, যে কয়দিন আছে সুন্দর করে দেশ চালান। পাগল-ছাগল মন্ত্রীদের বাদ দিন। কিভাবে দেশকে এগিয়ে নেয়া যায় বিরোধী দলের সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা করুন।
খালেদা জিয়া বলেন, পুলিশ বাহিনীকে দলীয় ক্যাডার বাহিনীতে পরিণত করা হয়েছে। এজন্য তারা ঠিক মতো দায়িত্ব পালন করতে পারছে না। র‌্যাব গঠন করে আমরা দেশে শান্তি ফিরিয়ে এনেছিলাম। আজকে তারা এই র‌্যাবকেও নষ্ট করেছে। র‌্যাব পুলিশের ভাবমুর্তি নষ্ট হওয়ায় তাদের আর জাতিসংঘ মিশনে নেবে কিনা এ নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়েছে।
তিনি বলেন, বিচার বিভাগকে দলীয়করণ করা হয়েছে। বিচার বিভাগকে ধংস করে দেয়া হয়েছে। বিচারকরা নিরপেক্ষভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারেন না। তাদের টেলিফোন করে আদেশ নির্দেশ দেয়া হয়। এই নির্দেশ দেয় সরকারের অফিস থেকে। সারা দেশের মানুষ অসহায় হয়ে পড়েছে। তারা কথায় কথায় মামলা দেয়। হুকুমের আসামি করে। কিন্তু তাদের সময়ে যারা খুন করেছে। বিশ্বজিৎকে যারা হত্যা করেছে তারা ঘুরে বেড়ায়। এ কারণেই এই সরকারের মুখে মানবতার কথা শোভা যায় না। তাদের মুখে মানবতার কথা মানুষ বিশ্বাস করে না।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট