Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বগুড়ায় হেফাজতের মহাসম্মেলন চলছে, যোগ দিচ্ছেন আল্লামা শফী

গুড়া: বগুড়ার কেন্দ্রীয় ঈদগাহ ময়দানে হেফাজতে ইসলামের শানে রেসালত মহাসম্মেলন শুরু হয়েছে সকাল ১০টায়। ১৩ দফা দাবি বাস্তবায়নের লক্ষ্যে মাসব্যাপী কর্মসূচির শেষদিনে মঙ্গলবার এই মহাসম্মেলনে হাজার হাজার মানুষ মিছিল নিয়ে সমবেত হচ্ছেন। সংগঠনের আমির আল্লামা শাহ আহমদ শফী সম্মেলনে প্রধান অতিথি থাকবেন । বেলা ১১টায় চট্টগ্রাম থেকে হেলিকপ্টারযোগে বগুড়ায় রওনা হবেন তিনি।

মঙ্গলবার সকাল সাতটা থেকে উত্তরাঞ্চলের বিভিন্ন জেলা থেকে দলে দলে লোক হেফাজতের শানে রেসালাত সম্মেলনে যোগ দিতে বগুড়ায় আসা শুরু করেছেন। সকাল আটটায় বগুড়া সেন্ট্রাল ঈদগাহ মাঠ কানায় কানায় ভরে গেছে। প্রতিমুহূর্তে শহরের প্রবেশ পথের সব সড়ক মহাসড়ক দিয়ে হেফাজতের সম্মেলনে যোগদানকারীরা মিছিল নিয়ে সম্মেলনস্থলে আসছেন। এখন সেখানে স্থানীয় নেতারা বক্তব্য দিচ্ছেন।
হেফাজতে ইসলামের মহসি্েমলন বাস্তবায়নে ৪১টি উপকমিটি,তিনহাজার স্বেচ্ছাসেবক,এবং র‌্যাব-পুলিশ,আর্মড পুলিশসহ বিপুল পরিমান আইন শৃংকলা রক্ষা বাহিনীর সদস্যদের কড়া নিরাপত্তায় সম্মেলনের কার্যক্রম চলছে।
হেফাজতের কেন্দ্রীয় নেতা মুফতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরী জানান, বেলা সাড়ে ১২টায় বগুড়ার বনানী সুলতানগঞ্জ হাইস্কুল মাঠে আল্লামা মুফতি আহমাদ শফীকে বহনকারী হেলিকপ্টার ল্যান্ড করার কথা রয়েছে। এরপর তিনি যাবেন বগুড়া চকলোকমান মহিলা হাফেজিয়া মাদ্রাসায়। সেখানে জোহরের নামাজ শেষে বেলা দুইটায় মহাসম্মেলনের মঞ্চে উঠবেন।
মহাসম্মেলনে রাজশাহী ও রংপুর বিভাগের ১৬ জেলার হেফাজতের জনশক্তিসহ লাখ লাখ তওহিদি জনতা অংশ নেবেন বলে জানিয়েছেন সম্মেলন বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি মাওলানা আবদুস সবুর।
মহাসম্মেলনে স্থানীয় বক্তারা বলছেন, ৯০ শতাংশ মুসলমানের দেশে আল্লাহ, রাসুল সা. ও ইসলামের অবমাননা রোধে মৃত্যুদণ্ডের বিধান রেখে জাতীয় সংসদে আইন পাস করতে হবে। তথাকথিক গণজাগরণ মঞ্চের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্লগার নাস্তিক মুরতাদদের অবিলম্বে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তি দিতে হবে। হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা দাবি মেনে না নিলে পাঁচ মে থেকে দেশ অচল করে দেয়া হবে।
বক্তারা বলেন, ঈমানি দাবির পক্ষে কথা বলার অপরাধে সারা দেশের আলেম-ওলামা ও তৌহিদি জনতার ওপর নির্বিচারে হামলা, গুলি, গণহত্যা ও নির্যাতন বন্ধ করে গ্রেফতারকৃতদের মুক্তি দিতে হবে। তা না হলে গণবিস্ফোরণে এই জালেম সরকারের পতন হবে।
সম্মেলনে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা হালকা খাবার, খাবার পানি বিতরণ করছেন। আগতদের জরুরি চিকিৎসাসেবা দিতে দুটি মেডিকেল টিম সকাল থেকে কাজ শুরু করেছে।
শহরের প্রবেশপথে হেফাজতের তরুণ কর্মীরা মাথায় কালেমা লেখা কাপড় বেঁধে এবং জাতীয় পতাকা নেড়ে সম্মেলনে আগতদের স্বাগত জানাচ্ছেন।
Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট