Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘তারা ফটিকছড়ির মতো আরও ঘটনা ঘটাতে পারে’

চট্টগ্রামের ফটিকছড়ির মতো জামায়াত-বিএনপি আরও ঘটনা ঘটাতে পারে বলে দলীয় নেতাকর্মীদের সতর্ক করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকে, ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করে তাহলে কেউ পরাজিত করতে পারবে না। আগামী জাতীয় নির্বাচনেও দলীয় নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। মসজিদের মাইক, মাদ্রাসার ছাত্র ও ইমামদের যেন কেউ অপব্যবহার করতে না পারে সেজন্য দেশবাসীকে সজাগ থাকার আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী। সকালে গণভবনে অনুষ্ঠিত পটুয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য উন্মাদ হয়ে গেছেন। তারা ক্ষমতায় মোহে গণবিরোধী কর্মকাণ্ড করছেন। তারা পরাজিত শক্তি, ষড়যন্ত্র করে পরাজিত শক্তিকে ক্ষমতায় বসাতে চায়। তিনি বলেন, বিরোধী দলীয় নেত্রীকে বলবো, যতই ষড়যন্ত্র করেন, মানুষ হত্যা করেন, যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষা করতে পারবেন না। যুদ্ধাপরাধীর বিচার শুরু হয়েছে। শেষ করবো। দেশকে কলুষমুক্ত করবো।
শেখ হাসিনা বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। দেশে গণতন্ত্র বজায় থাকলে মানুষ ভালো থাকে। আমরা সেই ধারা অব্যাহত রেখেছি। দেশে প্রায় পাঁচ হাজার নির্বাচন হয়েছে। প্রতিটি নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হয়েছে। জনগণ তাদের সঠিক রায় দিতে পেরেছে। আর বিএনপি আমলে যতগুলো নির্বাচন হয়েছে প্রতিটিতেই রায় উল্টে দেয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা যখন ক্ষমতা গ্রহণ করি, তখন দেশে ভয়াবহ বিদ্যুৎ সংকট ছিল। মাত্র চার বছরে ক্ষমতায় থেকে বিদ্যুৎ সমস্যার সমাধাণ করেছি। আর বিএনপি জামায়াত আন্দোলনের নামে বিদ্যুৎ কেন্দ্র পুড়িয়ে দিচ্ছে। তারা তো উৎপাদন করতেই পারে না। ধ্বংস করতে পারে। রেলের স্লিপার উপরে ফেলে, ট্রেনে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যা করে। ড্রাইভারকে গাড়ী থেকে নামিয়ে গায়ে প্রেট্রেল ঠেলে আগুন, গাড়ীতে অগ্মি সংযোগ করছে। এটা কোনো সুস্থ্য মানুষ করতে পারে না। বিএনপি জামায়াত যে ধ্বংসযজ্ঞ চালাচ্ছে তা কিসের স্বার্থে, কার স্বার্থে? যুদ্ধাপরাধীদের রক্ষার জন্যই তারা এসব করছে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের সেবা করে। আর বিএনপি জনগণের অর্থ লুটপাট করে। বিরোধী দলীয় নেত্রী ক্ষমতায় থাকতে জরিমানা দিয়ে কালো টাকা সাদা করেন। তার ছেলেরা অর্থলুটপাট করে বিদেশে পাচার করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের জনগণ ভাল থাকলে, বিরোধী দলীয় নেত্রীর ভাল লাগে না। উনি ক্ষমতায় থাকলে, তার পরিবার লুটপাট করবে। দেশের গরীব মানুষ না খেয়ে মরুক তাতে তার কোন সমস্যা নেই। ক্ষমতার জন্য ওনার রাজনীতি। আর আমরা গরীব মানুষের জন্য রাজনীতি করি।  খুলনা বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক আফম বাহাউদ্দিন নাছিমের পরিচালনায় সভামঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফরউল্লাহ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ, এডভোকেট জাহাঙ্গীর কবির নানক, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক এডভোকেট আফজাল হোসেন, আবুল হাসানত আব্দুল্লাহ, মৃনাল কান্তি দাস প্রমুখ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট