Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘শ্রমিকদের কণ্ঠ রোধ করতেই আমিনুল হত্যা’

শ্রমিকদের কণ্ঠ রোধ করতেই নির্যাতন করে হত্যা করা হয় গার্মেন্ট শ্রমিক নেতা আমিনুল ইসলামকে। তিনি চলমান সহিংসতার শিকার নন। শ্রমিক ইউনিয়নের পক্ষে কাজ করার জন্য তাকে টার্গেট করা হয়েছিল। আমিনুল হত্যার ঠিক এক বছরের মাথায় গতকাল এসব কথা বলেছে ইন্টারন্যাশনাল ট্রেড ইউনিয়ন কনফেডারেশন (আইটিইউসি)। এ সংস্থার নিজস্ব ওয়েবসাইটে পোস্ট করা এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, তার হত্যা নিঃসন্দেহে শ্রমিক ইউনিয়ন ও এনজিওগুলোর প্রতি একটি পরিষ্কার বার্তা পাঠানো যেন তারা কম বেতন, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ নিয়ে কথা বলতে না পারে। এরই মধ্যে ওই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। কিন্তু এখন পর্যন্ত কাউকে গ্রেপ্তার করা হয় নি, বিচারও করা হয় নি। ধারণা করা হয়, আমিনুল হত্যায় জড়িত গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা। আরও অদ্ভূত ব্যাপার হলো বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিবিসিতে আমিনুল ইসলাম কি আদৌ একজন শ্রমিক নেতা কিনা তা নিয়ে সন্দেহ পোষণ করছেন। তিনি আরও বলেছেন, আমিনুল ইসলাম হত্যার আগে কেউ তার কথা শোনে নি। আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় এ নিয়ে রিপোর্ট ছাপা হলেও এবং যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিলারি ক্লিনটন এ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা তুললেও তিনি এই ব্যতিক্রমী বক্তব্য দিয়েছেন। এ বিষয়ে আইটিইউসি হত্যার পর পরই এ বিষয়টি সরকারের কাছে তুলে ধরেছিল। গত সপ্তাহে এ সংস্থা ফের বাংলাদেশের সরকারের কাছে এ হত্যার তদন্ত ও দায়ীদের গ্রেপ্তার করে বিচারের দাবি করেছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট