Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

ক্ষুব্ধ আল্লামা আহমদ শফী

ক্ষুব্ধ হয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী। হরতাল কর্মসূচিতে দেশের বিভিন্ন স্থানে নেতা-কর্মীদের ওপর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ছত্রছায়ায় ছাত্রলীগ, যুবলীগের হামলা, গুলিবর্ষণ, মামলা  দায়ের ও গ্রেপ্তারের ঘটনায় ক্ষুব্ধ হন তিনি। অবিলম্বে হামলা-মামলা ও গ্রেপ্তার বন্ধ করে দায়ী সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা ও আহত-নিহতদের ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছেন তিনি। হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় প্রচার সচিব মাওলানা মনির আহমদ এসব তথ্য জানান। গতকাল হেফাজতে ইসলামের দেশব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা হরতাল কর্মসূচি চলাকালে আল্লামা শফী চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসায় অবস্থান করেন। তিনি দিনভর দেশের বিভিন্ন এলাকায় হরতাল পালনের খোঁজ নেন। সকাল ১১টায় হাটহাজারী সার্কেল এএসপি আফম নিজাম উদ্দীন ও হাটহাজারী থানা নির্বাহী কর্মকর্তা একেএম লিয়াকত আলী আল্লামা শাহ আহমদ শফী’র সঙ্গে দেখা করেন। এসময় বরিশাল ও কুষ্টিয়ায় হেফাজতে ইসলামের জেলা সভাপতিসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে উলামায়ে কেরাম ও সংগঠনের কর্মীদের গ্রেপ্তার ও মামলা দায়েরের খবর আসে। এসব খবরে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেন তিনি। আল্লামা শাহ আহমদ শফী তাদেরকে জানান, উলামায়ে কেরামের শান্তিপূর্ণ অবস্থানকে সহিংসতার দিকে নিয়ে যাওয়ার জন্য বার বার উস্কানি দেয়া হচ্ছে। লংমার্চের কাফেলায় আক্রমণ, শান্তিপূর্ণ হরতালে নিরীহ আলেম নেতাকর্মীদের ওপর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় সরকার ও বামপন্থি রাজনৈতিক দলের নেতা  শাহবাগীদের উস্কানি বলে দাবি করেন তিনি। তাছাড়া, সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রী হেফাজতে ইসলাম ও তাদের ঈমানি দাবি নিয়ে মিডিয়ায় পরস্পরবিরোধী বক্তব্য ও অপপ্রচারে মনঃক্ষুণ্ন হন তিনি। বলেন, শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে উলামায়ে কেরামের ওপর দমন-পীড়ন অব্যাহত রাখলে উদ্ভূত পরিস্থিতির দায় সরকারকেই বহন করতে হবে। হেফাজত আমীর বলেন, সকাল থেকেই আমার কাছে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে খবর আসছিল, রাস্তায় শান্তিপূর্ণভাবে জায়নামাজ বিছিয়ে জিকিরসহকারে অবস্থানকারী হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মী, ওলামায়ে কেরাম ও মাদরাসা ছাত্রদের ওপর ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠনের ক্যাডার বাহিনী গুলিবর্ষণ, দা-ছুরি ও লাঠি নিয়ে হামলা চালিয়ে শ’ শ’ নিরীহ নেতাকর্মীকে আহত করেছে। পুলিশ অনেক আলেম ও মাদরাসা ছাত্রকে হয়রানিমূলক গ্রেপ্তার করে মিথ্যা মামলা দিচ্ছে। আমাদের শান্তিপূর্ণ অবস্থানের বিপরীতে সরকারের এহেন আগ্রাসী আচরণ কোনভাবেই যুক্তিসঙ্গত হতে পারে না। লংমার্চ করে ঢাকায় এ যাবৎ কালের নজিরবিহীন শান্তিপূর্ণ বৃহৎ মহাসমাবেশের মাধ্যমে এদেশের তৌহিদী জনতা ও উলামায়ে কেরাম সরকারের প্রতি ১৩ দফা দাবি উত্থাপন করেছে। সরকার প্রধানসহ বিভিন্ন মন্ত্রী আমাদের ন্যায্য দাবি মেনে নেয়ার ব্যাপারে স্বীকারোক্তিও দিয়েছেন। কিন্তু একান্তই ধর্ম ও নৈতিকতা সংশ্লিষ্ট আমাদের দাবিগুলো মেনে নেয়ার সরল পথে না গিয়ে মনে হচ্ছে সরকার উল্টো উলামা-মাশায়েখ ও তৌহিদী জনতাকে দমন-পীড়নে নেমেছে। এতে প্রমাণ হয়, সরকার ৯০ ভাগ মুসলমানের পক্ষে না গিয়ে গুটিকয়েক নাস্তিক ও ইসলামবিদ্বেষীদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। তৌহিদী জনতার সঙ্গে সরকারের এই প্রতারণাপূর্ণ আচরণ এদেশের মুসলমান কোনভাবেই মেনে নেবে না। তিনি বলেন, ঢাকায় ঐতিহাসিক লংমার্চ কর্মসূচি থেকে সরকারের বোঝা উচিত, এদেশের তৌহিদী জনতা দমন-পীড়নে কখনও মাথা নত করে না, তারা  ইসলামের উপর আঘাত ও অন্যায় আচরণ মেনে নেবে না।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট