Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

প্রকল্পে দুর্নীতি বন্ধে উন্নয়ন সহযোগীদের শর্ত

আশরাফ খান: উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা ডিএফআইডি ও সিডা টেন্ডারবাজিতে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করে তা বন্ধ করার শর্ত দিয়েছে। উন্নয়ন কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতি বন্ধের নিশ্চয়তা চেয়েছে। টেন্ডার প্রক্রিয়ার স্বচ্ছতা নিশ্চিত করতে তাদের সম্পৃক্ত করার কথাও বলেছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রাথমিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি-৩ নিয়ে তারা এ অবস্থানের কথা সরকারকে জানিয়েছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, কর্মসূচির আওতায় পাঁচ বছরে ৫৬ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করা হবে। ৪৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ ও বিদ্যমান স্কুল ভবনগুলোতে ৩৬ হাজার শ্রেণীকক্ষ নির্মাণ করা হবে। আইসিটি ভিত্তিক করা হবে উপজেলা শিক্ষা অফিস। উপবৃত্তি, প্রতিটি স্কুলে টয়লেট, নলকূপ বসানো ও শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই সরবরাহ করা হবে। ডিএফআইডি ও সিডা এ কর্মসূচিতে সাড়ে চার হাজার কোটি টাকা দেবে। বাকি অর্থের যোগান দেবে সরকার। আগামী জুলাই থেকে এ প্রকল্পের কাজ শুরু হবে। ডিএফআইডি ও সিডা তাদের অর্থের পাশাপাশি সরকারি অর্থের যথাযথ ব্যবহারের নিশ্চয়তা চেয়েছে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় এতে আপত্তি জানিয়ে বলেছে যে, তাদের প্রদত্ত অর্থের যথাযথ ব্যবহার হচ্ছে কিনা সে সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিতে আপত্তি নেই। কিন্তু সরকারি অর্থের ব্যবহার সম্পর্কে তাদের কোনরকম হস্তক্ষেপ মেনে নেয় যায় না। সরকারি অংশের অর্থবহ গোটা প্রকল্পের টেন্ডার প্রক্রিয়াসহ কোন খাতে কিভাবে অর্থ ব্যয় করা হবে সে সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চেয়েছে উন্নয়ন সহযোগীরা। গত ডিসেম্বরে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে সিডা ও ডিএফআইডি টেন্ডারবাজিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে টেন্ডরাবাজি ও যে কোন রকম অনিয়ম বন্ধ করার নিশ্চয়তা চেয়েছে। প্রতিটি নির্মাণ কাজের টেন্ডার কোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠানকে কি প্রক্রিয়ায় দেয়া হবে সে সম্পর্কে জানতে চায়। এই প্রক্রিয়ায় তাদের জড়িত করা এবং তাদের যাচাই করার সুযোগ দাবি করে। পিপিআর-এ সে ধরনের সুযোগ নেই এবং সরকার পিপিআর অনুসরণ করেই সবকিছু করবে বলে জানানো হয়। উন্নয়ন সহযোগীদের কঠোর অবস্থানের পরিপ্রেক্ষিতে তাদের প্রদত্ত অর্থের বিপরীতে নেয়া প্রকল্পগুলো সম্পর্কে নিয়মিত অবহিত রাখা, প্রয়োজনে তাদের খবরদারি মেনে নেয়া হবে। কিন্তু সরকারি অর্থের ক্ষেত্রে তা গ্রহণযোগ্য নয় বলে জানানো হয়। বিষয়টি ফয়সালা হয়নি এখনও। উন্নয়ন সহযোগীরা তাদের অবস্থানে অনড় থাকলে সরকার প্রয়োজনে তাদের অংশের অর্থ বাদ দিয়েই প্রকল্পের কাজ শুরু করবে। তবে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা জানান, ডিএফআইডি ও সিডা বুঝতে পেরেছে বিষয়টি সরকারের জন্য মর্যাদার। তারা তাদের অবস্থান থেকে সরে এসে নির্মাণ কাজের বিষয়টি সরকারের উপরই ছেড়ে দেয়ার চিন্তা করছে বলে জানানো হয়েছে। সরকারের দিক থেকে টেন্ডারবাজিসহ সবরকম অনিয়ম বন্ধের নিশ্চয়তা দেয়া হয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট