Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বোলিং ব্যর্থতায় হারল বাংলাদেশ

তিন বছর পর তামিম ইকবালের সেঞ্চুরিতে আলোকিত হয় বাংলাদেশ। কিন্তু হাম্বানটোটার বিপর্যস্ত বিদ্যুৎ, সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দিলসান আর সাঙ্গাকারার ব্যাট শুষে নিল বাংলাদেশের সব আলো। হম্বানটোটার অন্ধকার জঙ্গলে নিরবে হারিয়ে গেল বাংলাদেশের সব উচ্ছ্বাস। শ্রীলঙ্কার বিপে ৩১ তম ম্যাচে বাংলাদেশ শুধু  ৮ উইকেটে হারেইনি সঙ্গে হারিয়েছে তামিম ইকবালকেও। নিজের চতুর্থ আর প্রথম কোন বাংলাদেশী হিসেবে লঙ্কার বিপে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছিলেন তামিম ইকবাল। আর ফিল্ডিং করতে নেমে তামিম ইনজুরির শিকার হয়ে ছিটকে পড়েন পুরো সিরিজ থেকে। গতকাল রাতে বাংলাদেশ দলের মিডিয়া বিভাগের প থেকে এই দু:সংবাদটি ভেসে আসে। আর সঙ্গে সঙ্গে লঙ্কার বিপে পরাজয়ের আঁধারকে আরও গাঢ় করে তোলে এই সংবাদ। এর আগে বাংলাদেশ টসে  হেরে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে সংগ্রহ করেছিল ২৫৯ রান। আর বিদ্যুৎ বিভ্রাট আর ফাডলাইট বিরম্বনায় ম্যাচ বন্ধ হয়ে থাকে ১ ঘন্টা ২৫ মিনিট। তার ফল শ্রীলঙ্কার বিপে টার্গেট দাঁড়ায় ২৩৮ রান। আর তা করতে হবে ৯ ওভারে। জবাব দিতে  নেমে দিলসান যেন বাংলাদেশ টিÑটোয়েন্টি শেখাতে শুরু করেন। নিজের ১৭তম ওয়ানডে সেঞ্চুরিতে ম্লান করেন তামিম ইকবালের সেঞ্চুরি। ওপেনিং জুটিতে পেরারাকে নিয়ে ১০৬ রান ও সাঙ্গাকারাকে সঙ্গে নিয়ে ১২৮ রানের জুটি গড়ে বাংলাদেশকে উপহার দেয় ২৮ তম পরজয়। আর বাংলাদেশের বাংলাদেশের ঝুলিতে যোগ হলো ২৬৮ তম ম্যাচে ১৯১তম পরাজয়ও। বলা চলে দিলসানের অপরাজিত ১৩৩ রান হারলো তামিমের ১১২ রানকে।
ম্যাচ ১ ঘন্টা ২৫ মিনিট বিলম্ব হওয়ায় ৯ ওভার  কেটে নিয়ে শ্রীলঙ্কার সামনে টার্গেট  দেয়া হয় ২৩৮ রানের। ম্যাচে ফাড লাইট নাটকের পর বাকি সবটাই দিলসান, পেরারা আর সাঙ্গাকারার চিত্রনাট্য। নিজেদের ব্যাটের তুলিতে কখনও ঝড় আর কখনো ধির তালে এগিয়ে যায় জয়ে দিকে। ব্যাট হাতে অভিজ্ঞ দিলসানের সঙ্গে তরুন পেরেই রিতীমতো ঝড়ই তুললেন। মাত্র ৩৬ বলে ৪২ রান করে দিলসানের সঙ্গে গড়ে তোলেন ১০৬ রানের জুটি।  সোহাগকে নিজেরে উইকেটি  দেয়ার  আগে হাঁকান ৫টি চার ও একটি ছয়ের মার। এই জুটি ভাঙ্গলে বাংলাদেশের সামনে সেই পুরানো প্রাচির সাঙ্গাকারা। ওয়ানডেতে নিজেরে ৪৩তম ফিফটি তুলে নিয়ে দিলসানের সঙ্গে গড়ে তোলেন ১২৮ রানের জুটি। তবে দলের জয়ের জন্য ৪ রান বাকি থাকতে রুবেলকে শান্তনা পুরষ্কার হিসেবে নিজের উইকেটটা তুলে দেন। তবে তার আগেই তিনি ৬৮ বলে ৬৩ রান করেন ৬টি চারের মারে। আর দিলসান ১০৮ বলে অপরাজিত ১১৩ রান করে দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়েন।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট