Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হরতালে বিভিন্ন জেলায় সহিংসতা, নিহত ১৬, বগুড়ায় ২ প্লাটুন সেনা মোতায়েন

হরতালে বিভিন্ন জেলায় দুপুর পর্যন্ত সহিংসতা ও পুলিশের গুলিতে ১৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামী লীগ অফিস, এমপি’র বাসা ও পুলিশ ফাঁড়ি, রেল স্টেশন আক্রান্ত হয়েছে। উপড়ে ফেলা হয়েছে রেললাইন। বগুড়ার শাহজাহানপুর থানার নিরাপত্তা দিতে সেখানে সেনা সদস্যদের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আন্ত:বাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) জানিয়েছে, জেলা প্রশাসনের অনুরোধের প্রেক্ষিতে বগুড়া শাহজাহানপুর থানায় দুই প্লাটুন সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।
সকাল থেকে হামলা ভাঙচুর ও বিক্ষোভে কার্যত যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে পুরো বগুড়ায়। সাধারণ মানুষ রাস্তায় বের হতে পারছেন না। সংঘর্ষ ও গুলিতে বগুড়ায় সাত জনের মৃত্যু হয়েছে। গুরুতর আহত কয়েকজনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় হাসপাতালে নেয়া হয়েছে। রাজশাহীর গোদাগাড়ীতে হামলা-সহিংসতায় মারা গেছেন চার জন। জয়পুরহাটে পুলিশ ও বিজিবির গুলিতে মারা গেছে তিন জন। এছাড়া ঝিনাইদহে জামায়াত-শিবিরের হামলায় পুলিশের এক কনস্টেবল নিহত হয়েছেন। গাজীপুরে পিকেটিং করার সময় ট্রাক চাপায় শ্রীপুর উপজেলা শিবিরের সভাপতি মারা গেছেন।
স্টাফ রিপোর্টার, বগুড়া থেকে জানান, ভোর পাঁচটা থেকে জামায়াত-পুলিশ সংঘর্ষে যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। পুলিশের গুলিতে দুই মহিলাসহ ৭ জন নিহত হয়েছেন। শহরের মফিজ পাগলার মোড়, ইয়াকুবিয়া স্কুলের সামনেসহ কয়েকটি স্থানে এই ঘটনা ঘটে। গুলিবিদ্ধ ১০ জনকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বগুড়া শহীদ জিয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ ঘটনায় বগুড়ার শাহজাহানপুর থানার নিরাপত্তায় সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। এ পর্যন্ত অর্ধশতাধিক আহতের খবর পাওয়া গেছে। শহরের পাঁচটি পুলিশ ফাঁড়িতে জামায়াত কর্মী ও স্থানীয় লোকজন হামলা করেছে বলে ঘটনাস্থল থেকে আমাদের প্রতিনিধি জানিয়েছেন। নারুরী, স্টেডিয়াম ফাঁড়ি, ফুলবাড়ী পুলিশ ফাঁড়ি, কৈগাড়ি পুলিশ ফাঁড়ি ও শিবগঞ্জ উপজেলার মোকামতলা ফাঁড়িতে জামায়াতের হামলা মোকাবিলার চেষ্টা করছে পুলিশ। পুলিশ অবরুদ্ধ হয়ে পড়ায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে থানা এলাকায় সেনাবাহিনী মোতায়েন করা হয়। বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির মমতাজ উদ্দিনের বাস ভবনেও হামলা করে আগুন লাগিয়েছে জামায়াত কর্মীরা। বগুড়া রেলস্টেশনেও অগ্নিসংযোগ করেছে হরতাল সমর্থকরা। এসময় তারা স্টেশনের অফিস কক্ষের কাগজপত্রও পুড়িয়ে দেয়। এছাড়া দুপচাচিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ অফিস এবং উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতির বাড়িতে হামলা ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। সেখানে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন ১৩ জন। বগুড়া পৌরসভায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। কেউ শহরে প্রবেশ করতে পারছে না। নন্দীগ্রামে ইউএনও অফিস ভাংচুর করা হয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট