Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

হরতালে জনজীবন বিপর্যস্ত, মানিকগঞ্জে পুলিশের গুলিতে নিহত ৪

হরতালে উত্তপ্ত সারা দেশ। পুলিশের গুলিতে রক্তাক্ত মানিকগঞ্জের সিংগাইর। গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন ৪ জন। আহত হয়েছেন ৩০ জন। প্রতিবাদে মানিকগঞ্জে আজ আবারও সকাল-সন্ধ্যা হরতালের ডাক দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা। সমমনা ইসলামী ১২ দল আহূত গতকালের হরতালে রাজধানী শহর শান্ত থাকলেও সহিংস হরতাল পালিত হয়েছে দেশের বিভিন্ন স্থানে। জনজীবন ছিল বিপর্যস্ত। হরতাল
সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ ঘটেছে দিনাজপুর, ঝিনাইদহ, চাঁদপুর, বগুড়া, লক্ষ্মীপুর, চট্টগ্রামের হাটহাজারী, কক্সবাজারের পেকুয়াসহ বিভিন্নস্থানে। যানবাহনে অগ্নিসংযোগ, পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। কোথাও কোথাও আওয়ামী লীগ কর্মীদের সঙ্গে হরতাল সমর্থকদের সংঘর্ষ ঘটেছে। রাজধানীতে হরতালবিরোধী লাঠি মিছিল করেছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। শাহবাগ স্কয়ার থেকে হরতালবিরোধী একটি বিশাল গণমিছিল শাহবাগ থেকে বের হয়ে প্রেস ক্লাব হয়ে দৈনিক বাংলার মোড় ঘুরে আবার শাহবাগে এসে শেষ হয়।
মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলায় হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ব্যাপক সংঘর্ষে এক মাদরাসাপড়ুয়া ছাত্রী মাথায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করছেন, পুলিশের গুলিতে নিহত  হয়েছেন ৪ জন। আহত হয়েছেন ৩০ জন। আহতদের বেশির ভাগকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। হরতাল সমর্থকদের হাতে আহত হয়েছেন সিংগাইর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদ, সিংগাইর থানার ওসি লিয়াকত আলীসহ ১৫ পুলিশ সদস্য। বিক্ষুব্ধ জনতা জ্বালিয়ে দিয়েছে থানার দুই এসআইর মোটরসাইকেল। আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আগুন ধরিয়ে দিয়েছে স্থানীয় বিএনপির কার্যালয়সহ হরতাল সমর্থকদের দু’টি দোকানে। পুলিশে গ্রেপ্তার করেছে ৬ হরতাল সমর্থককে। গ্রেপ্তার আতঙ্কে পুরুষশূন্য রয়েছে গোবিন্দল গ্রাম।
মানিকগঞ্জ থেকে রিপন আনসারী/হাফিজউদ্দিন/আতাউর রহমান জানান, মানিকগঞ্জের সিংগাইরে হরতাল সমর্থনকারীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশের গুলিতে জামায়াতের দুই কর্মীসহ ৪ জন নিহত হয়েছেন। এছাড়া পুলিশসহ ৩০ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। নিহতরা হলেন গোবিন্দল ইউনিয়ন জামায়াতের অর্থ সম্পাদক নাসির উদ্দিন, জামায়াত কর্মী নাজিম উদ্দিন, গোবিন্দল গ্রামের শাহ আলম, আলমগীর হোসেন।
মানিকগঞ্জে আজ হরতাল: পুলিশ ও এলাকাবাসী জানান, গতকাল সকাল ১০টার দিকে সিংগাইরের গোবিন্দল এলাকায় হরতাল সমর্থনকারীরা রাস্তায় ব্যারিকেড দিলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল মাজেদসহ আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা বাধা দেয়। কিছুক্ষণ পর হরতাল সমর্থনকারীরা বিক্ষোভ নিয়ে আবদুল মাজেদের ওপর হামলা চালায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হলে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ খবরে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা সিংগাইর উপজেলা বিএনপি কার্যালয়সহ আশপাশের দোকানপাটে ভাঙচুর চালায়। পরে হরতাল সমর্থনকারী ও উপজেলা বিএনপির নেতা-কর্মীরা ঢাকা-মানিকগঞ্জ-সিংগাইর সড়কের প্রায় ২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে গাছের গুঁড়ি ও টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে রাখে। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে গোবিন্দল, কাশিমনগরসহ আশপাশের কয়েক গ্রামে হাজার হাজার নারী-পুরুষ রাস্তায় বেরিয়ে অবরোধ তৈরি করে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে গ্রামবাসী ও হরতাল সমর্থকদের দফায় দফায় সংঘর্ষ ঘটে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ গুলিবর্ষণ ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে। এতে কমপক্ষে ২০ জন নারী-পুরুষ গুলিবিদ্ধ হন। গুলিবিদ্ধ অবস্থায়  সিংগাইর হাসপাতালে নেয়ার পর দু’জন ও ঢাকা মেডিকেলে নেয়ার পথে আরও দু’জন মারা যান। মানিকগঞ্জ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আলী মিয়া দাবি করে বলেন, পিকেটারদের  হামলায় ১৫ জন পুলিশ সদস্য আহত হয়েছেন। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেখানে র‌্যাব ও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক মো. মাসুদ করিম জানান, আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় সকল প্রকার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।
গুলিবিদ্ধ হয় হয়ে হাসপাতালে ভর্তি আছে আলী আকবর (১৮), লিংকন (২৫), নোয়াব আলী (১৪), সিদ্দিক (২৮), নাজিম উদ্দিন (১৮), কালূ (২০), আলমাস (৪০), দুলাল মিয়া (২২), আলমাস (৩৩), মানিক (২৬), মামুন (৩২), আনোয়ার (২৭), ওয়াজেদ (২৮), শাহিন (৩২), রুবেল (২৫), রউফ (৩৫) ও  শিশু লিটন।
গুলিবিদ্ধ ৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক:
সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধদের মধ্যে ৯ জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হচ্ছে রুবেল (২৫), হেলেনা (১৮), লিংকন (১৫), আলমাছ (৩২), নওয়াব আলী (১৪), মানিক (৩৫), আলী আকবর (১৮), দুলাল (২৬) ও সিদ্দিক (৩৫)।
সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতালের জরুরি চিকিৎসক ডা. মাহমুদুল হাসান জানান, সিঙ্গাইরের গুলিবিদ্ধ ৯জন তাদের হাসপাতালে এসেছে। তাদের অপারেশন করে গুলি বের করার পর একে একে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) ভর্তি করা হয়েছে।
প্রত্যক্ষদর্শীর বক্তব্য: সাব্বির হোসেন শুভ নামের এক প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মাদরাসার ছাত্ররা মিছিল করছিল। তখন পুলিশ তাদের বাধা দেয়। পরে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে তারা মিছিল নিয়ে সামনের দিকে এগোতে থাকলে পুলিশ লাঠিচার্জ ও গুলিবর্ষণ শুরু করে। এ সময় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতা-কর্মীরাও গুলিবর্ষণ শুরু করে। তারা বাড়িতে ঢুকেও গুলি করেছে। যারা গুলিবিদ্ধ হয়েছে তারা মাঠে ক্ষেতে কাজ করছিল। তার বড় ভাই মামুনের ডান পায়ে গুলি বিদ্ধ হয়েছে।
সিংগাইর পৌরসভার কাউন্সিলর এস এম রিপন আক্তার ফজলু জানান, মাদরাসা ছাত্রসহ স্থানীয় লোকজন সিংগাইর-মানিকগঞ্জ সড়ক অবরোধ করতে গেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী ও পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। একপর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তারা গুলি চালায়।
প্রত্যক্ষদর্শী হাফেজ মো. জাকারিয়া জানান, গোবিন্দল মাদ্রাসা থেকে হরতাল সমর্থনে মিছিল বের হলে প্রথমে পুলিশ বাধা দেয়। পরে পুলিশের সাথে ছাত্রলীগ-যুবলীগের নেতা-কর্মীরাও এলোপাতাড়ি গুলিবর্ষণ শুরু করে।
নিহতরা জামায়াত ও খেলাফত মজলিস কর্মী: এক বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস জানিয়েছে, নিহত আলমগীর তাদের কর্মী।
এদিকে নিহত শাহ আলমকে নিজেদের কর্মী দাবি করে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে মানিকগঞ্জ জেলা জামায়াত। মানিকগঞ্জ জেলা জামায়াতের বরাত দিয়ে কেন্দ্রীয় জামায়াতের এক নেতা দাবি করেন, নিহত নাসির উদ্দিন গোবিন্দল ইউনিয়ন জামায়াতের অর্থ সম্পাদক। আর নাজিম স্থানীয় জামায়াতের কর্মী।
খেলাফত মজলিসের যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শফিক উদ্দিন এক বিবৃতিতে বলেছেন, হরতাল সমর্থকদের একদিকে পুলিশ বাধা দিচ্ছে, অন্যদিকে পুলিশ বেষ্টনীতে যুবলীগ-ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের ক্যাডাররা রাস্তায় ত্রাসের সৃষ্টি করে।
তবে এলাকাবাসী ও নিহতের স্বজনরা জানায়, নিহতরা কোন দল বা সংগঠনের সঙ্গে জড়িত নয়।
গ্রেপ্তার ৬: হাসপাতালে গুলিবিদ্ধের স্বজনদের মধ্য থেকে ৬ জনকে বিকালে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সাজ্জাদ রোমন জানান, পুলিশের সঙ্গে সংর্ঘষের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে ৬ জনকে সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল থেকে গ্রেপ্তার করে থানায় নেয়া হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবদ চলছে।
ওলামা মাশায়েখের হরতাল আহ্বান: এ ঘটনায় আজ মানিকগঞ্জ জেলায় হরতাল আহ্বান করেছে ওলামা মাশায়েখ দলসহ ইসলামী সমমনা ১২ দল। তবে প্রশাসনের পক্ষ থেকে হরতাল সম্পর্কে কিছুই জানানো হয়নি।
জয়পুরহাট প্রতিনিধি  জানান, জয়পুরহাট ইসলামী সমমনা দলগুলোর ডাকে গাড়ি পোড়ানোর মাধ্যমে হরতাল চলছে। হরতালে সকালে শহরের ৭ কিলোমিটার দূরে কোমরগ্রাম এলাকায় জয়পুরহাট-বগুড়া সড়কে বগুড়া থেকে আসা একটি পত্রিকা বহনকারী মাইক্রোবাসে আগুন ধরিয়ে দেয় পিকেটাররা। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার চেষ্টা করলেও বগুড়ার আঞ্চলিক পত্রিকাসহ গাড়িটি সম্পূর্ণ পুড়ে যায়। এছাড়া শহরে দূরপাল্লার কোন গাড়ি ছাড়েনি, দোকানপাট তেমন খোলেনি তবে শহরের কোথাও পিকেটারদের চোখে পড়েনি। শহরের সব এলাকাতেই অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে।
স্টাফ রিপোর্টার, দিনাজপুর থেকে জানান, ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতালে দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার রানীবন্দর বাজারে হরতাল সমর্থনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ হয়েছে। পিকেটারদের ইটপাটকেল নিক্ষেপে পুলিশের এক সদস্যসহ আহত হয়েছে ৩ জন। হরতালের শুরুতে সকালে ওই এলাকায় হরতাল সমর্থনকারীরা ঝটিকা মিছিল বের করে। এ সময় তারা টায়ার জ্বালিয়ে  বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। এতে পুলিশ বাধা দিলে সংঘর্ষ বাধে। চলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া। এ সময়  পিকেটারদের ইটপাটকেল নিক্ষেপে পুলিশের এক সদস্যসহ ৩ জন আহত হন। এ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন দিনাজপুর জেলা পুলিশ সুপার দেবদাস ভট্টাচার্য। এদিকে বেলা বাড়ার সাথে সঙ্গে পিকেটারদের  মাঠে দেখা না গেলেও চোরাগোপ্তা হামলার ভয়ে বেশির ভাগ দোকানপাট, মিলকারখানা বন্ধ রয়েছে। অফিস-আদালত, ব্যাংক-বীমা, স্কুল-কলেজসহ সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও অজানা অতঙ্কে উপস্থিতি সংখ্যা কম রয়েছে। স্থবির হয়ে পড়েছে কার্যক্রম। রিকশা, অটোরিকশা, ভ্যানসহ সব ধরনের হালকা যানবাহন চলাচল করেছে। দূরপাল্লার বাস-ট্রাক চলাচল বন্ধ রয়েছে। তবে  ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক। নাশকতা ঠেকাতে শহরের বিভিন্ন স্থানে ভোর থেকেই অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন হয়েছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
হাটহাজারী প্রতিনিধি জানান, ইসলাম বিরোধী নাস্তিক ব্লগারদের বিরুদ্ধে শুক্রবার বিক্ষোভ মিছিলে পাঁচ মুসল্লি নিহত হওয়া, গণজাগরণ মঞ্চে ইসলাম নিয়ে কটূক্তির প্রতিবাদে গতকাল সারা দেশে ইসলামী সমমনা ১২টি দলের ডাকে হরতাল পালিত হয়েছে। এ হরতালে সমর্থন দিয়েছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি। সকালের নামাজের পর একটি বিক্ষোভ মিছিল দিয়ে হাটহাজারীতে শুরু হয় ইসলামী সমমনা দলগুলোর হরতাল কর্মসূচি। এর পর সারা দিনই ১৫ মিনিট অন্তর খণ্ড খণ্ড মিছিল বের করতে থাকে হরতাল সমর্থনকারীরা। সকালে চট্টগ্রাম হতে হাটহাজারীতে পত্রিকা নিয়ে আসার সময় হাটহাজারীর ১১ মাইল নামক স্থানে হকার অনিল বাবুর সব পত্রিকা পুড়িয়ে দিয়েছে পিকেটাররা। হাটহাজারীর বিভিন্ন ইউনিয়নের সড়কগুলো অবরোধ করে রেখেছে হরতালকারীরা। আল্লামা আহম্মদ শফির ডাকে আগামীকাল হাটহাজারী পাব্বর্তী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সমাবেশের ডাক দিয়েছে, বিক্ষোভের সমর্থনের গত শনিবার থেকে হাটহাজারীর বিভিন্ন ইউনিয়নে বিক্ষোভ করে হাজার হাজার মুসল্লি। এদিকে সকাল থেকে অবরোধ অবস্থায় হাটহাজারী রেল স্টেশনে আটকা পড়ে আছে চট্টগ্রাম-নাজিরহাট যাত্রীবাহী ট্রেন। সকাল থেকে হাটহাজারী সদরের সব দোকানপাট বন্ধ করে দিয়েছে হরতাল সমর্থকরা। শুধুমাত্র কয়েকটা ওষুধের ফার্মেসি ও চায়ের দোকান খোলা রয়েছে। হাটহাজারী ওলামা পরিষদের পরিষদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নাসির উদ্দীন জানান, হাটহাজারীবাসীসহ দেশের সকল জনগণ এ হরতাল স্বতঃস্ফূর্তভাবে গ্রহণ করেছে।
স্টাফ রিপোর্টার  বগুড়া থেকে  জানান, বিএনপি-জামায়াতের সমর্থনে ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা গতকালের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতালে বগুড়ার সদরের এরুলিয়ায় জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা রোববার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাস্তায় গাছের গুঁড়ি ফেলে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করে বিক্ষোভ প্রদর্শন করছিল। এতে পুলিশ বাধা দিলে তাদের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। পুলিশ পিকেটারদের ছত্রভঙ্গ করতে ২৫ রাউন্ড রাবার বুলেট ছুড়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ৫ জনকে আটক করেছে। অন্যদিকে সকাল সোয়া ৭টায় শহরের খান্দারে হরতালকারীরা মিছিল করার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এ সময় উত্তেজনার সৃষ্টি হলে পুলিশ ২ রাউন্ড গুলি ছুড়লে তারা চলে যায়।  বগুড়া থেকে দূরপাল্লার কোন যানবাহন ছেড়ে যায়নি। শহরে রিকশা-ভ্যানসহ অভ্যন্তরীণ রুটে দু-একটি বাসসহ টেম্পো চলাচল করছে। ট্রেন যথারীতি ছেড়ে গেছে। শহরের সাতমাথাসহ গুরুত্বপূর্ণ স্থানগুলোতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন এবং র‌্যাব সদস্যরা টহল রয়েছে। বগুড়া সদর থানার ওসি সৈয়দ শহীদ আলম বলেন, নওগাঁ-বগুড়া মহাসড়কের এরুলিয়া নামক স্থানে পিকেটাররা যানচলাচলে বাধা দেয়ার চেষ্টা করলে পুলিশ তাদের ধাওয়া করে। তাদেরকে ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কয়েক রাউন্ড শটগানের গুলি ছোড়ে। এ সময় ৫ জনকে আটক করা হয়েছে। অন্যদিকে খান্দারের পিকেটারদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ ২ রাউন্ড গুলি নিক্ষেপ করে।
মেহেরপুর প্রতিনিধি জানান, মেহেরপুর সদর উপজেলা গাংনী উপজেলার পৃথক দু’টি স্থান থেকে শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে ৪ জামায়াত কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। এরা হলেন যাদবপুর গ্রামের নাছির উদ্দীন (৪৫), নতুন দরবেশপুরের মারুফ হোসেন (৪০) এবং গাংনী উপজেলার চৌগাছা গ্রামের ওহাদ আলী (৪০) ও আয়ুব আলী (৪১)।
রামগঞ্জ (লক্ষ্মীপুর) প্রতিনিধি  জানান, দেশব্যাপী ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা গতকালের সকাল-সন্ধ্যা হরতালে রামগঞ্জের বিভিন্ন এলাকায় ভাঙচুর ও সড়কে টায়ারে অগ্নিসংযোগ ও সড়ক অবরোধের মধ্য দিয়ে চলছে। এছাড়া রামগঞ্জ বাস টার্মিনাল, সমিতির বাজার, কচুয়া বাজার, লামচর গাজীপুর সড়কের মাথায়, রামগঞ্জ-সোনাইমুড়ী সড়কের আলীপুর ও রামগঞ্জ আলীয়া মাদরাসার সামনে হরতালের পক্ষে পিকেটিং ও টায়ারে অগ্নিসংযোগ করেছে হরতাল সমর্থিতরা। ঘটনাস্থলে কয়েকটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। নাশকতার আশঙ্কায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। অপরদিকে নোয়াপাড়া নামক স্থানে হরতাল সমর্থক ও পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সকাল ১০টায় হরতাল সমর্থিতরা রামগঞ্জ পানিয়ালা সড়কের নোয়াপাড়া নামক স্থানে রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে ও গাছ ফেলে রামগঞ্জ-পানিয়ালা-শাহরাস্তি সড়ক অবরোধ করে রাখে। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে গেলে হরতাল সমর্থকরা পুলিশকে লক্ষ্য করে বৃষ্টির মতো ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। পরে রামগঞ্জ থানার ওসি মঞ্জুরুল হক আকন্দ সকাল সাড়ে ১০টায় ৩নং ভাদুর ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা জাহিদ ও খোকনসহ বহু নেতা-কর্মীদের সঙ্গে নিয়ে তাদের সহযোগিতায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশের পাশাপাশি আওয়ামী লীগ যুবলীগের নেতা-কর্মীদের মোটরসাইকেল মহড়া দিতে দেখা গেছে।
মিরপুর (কুষ্টিয়া) প্রতিনিধি জানান, কুষ্টিয়ার মিরপুরে থানা পুলিশের বিশেষ অভিযানে ৪ শিবির নেতা-কর্মীসহ ৭ জনকে আটক করেছে। শনিবার গভীর রাতে ও গতকাল সকালে কুষ্টিয়া-মেহেরপুর সড়কের সাতমাইল নামক এলাকায় হরতালের সমর্থনে শিবিরকর্মীদের পিকেটিংয়ের চেষ্টাকালে মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শিকদার মশিউর রহমানের নেতৃত্বে তাদের আটক করা হয়। অন্যদিকে চুরি মামলায় মিরপুর উপজেলার আমলা ইউনিয়নের চৌদুয়ার গ্রামের রতন মালিথার ছেলে আলিফ হোসেন (২৪), জীবন আরেফিন (১৮) ও নারী ও শিশু নির্যাতন মামলার এজাহারভুক্ত পলাতক আসামি ইবি থানার পাটিকাবাড়ী গ্রামের বজলুর রহমান মোল্লাকে আটক করে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। মিরপুর থানার অফিসার ইনচার্জ শিকদার মশিউর রহমান জানান, আটককৃতদের মধ্যে শিবির কর্মী নজরুল ইসলামের কাছ থেকে ১টি শক্তিশালী ককটেল বোমা উদ্ধার করা হয়েছে।
চাঁদপুর প্রতিনিধি জানান, চাঁদপুরে বিক্ষিপ্ত ঘটনায় মধ্য দিয়ে সকাল-সন্ধ্যা হরতাল পালিত হয়েছে। সকালে পুরানবাজার লোহারপুল এলাকায় একদল পিকেটার টায়ারে আগুন ধরিয়ে চাঁদপুর-হাইমচর সড়ক বন্ধ করে দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ এসে তাদের বাধা দিলে পিকেটাররা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এতে উভয়ের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়া শুরু হয়। এ সময় কমপক্ষে ৩ জন আহত হয়েছে। চাঁদপুরের পুলিশ সুপার আমির জাফর জানান, হরতালে নাশকতার আশঙ্কায় পুলিশ জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে ৫ জনকে আটক করেছে।  অন্যদিকে, হরতাল প্রতিহত করতে জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ড. শামছুল হক ভূঁইয়ার নেতৃত্বে শহরের শপথ চত্বর থেকে একটি হরতাল বিরোধী বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে শহর প্রদক্ষিণ করে। এদিকে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে শহরের শপথ চত্বর এলাকায় আমার দেশ পত্রিকায়  আগুন ধরিয়ে দেয় তারা। চাঁদপুর থেকে দূরপাল্লার কোন যান চলাচল না করলেও লঞ্চ ও ট্রেন চলাচল করছে।
কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, কিশোরগঞ্জে হরতালবিরোধী পতাকা মিছিল করেছে গণজাগরণ মঞ্চ। গতকাল সকাল ৮টায় শহরের রংমহল চত্বরের গণজাগরণ মঞ্চ থেকে বিক্ষোভ মিছিলটি শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিলে নেতৃত্ব দেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আবদুল মান্নান, সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান শেখ সেলিম কবীর, অধ্যক্ষ গোলসান আরা, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সদস্য সচিব আবদুল আউয়াল, জেলা সিপিবির সম্পাদক রফিউল আলম মিলাদ, সিরাজুল ইসলাম, আবদুর রহমান রুমি, জুনায়েদুল ইসলাম, ফয়সাল আহমেদ প্রমুখ। এছাড়া হরতালের সমর্থনে শহরের কোথাও কোন মিছিল-পিকেটিং হতে দেখা যায়নি। এদিকে হরতালের আগের রাতে শহরের নগুয়া বটতলা এলাকার একটি মেসে অভিযান চালিয়ে শিবিরের ৮ নেতা-কর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। পরে পুলিশের ওপর হামলা ও ভাঙচুরের মামলায় তাদের গ্রেপ্তার দেখানো হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হচ্ছে, করিমগঞ্জের সুলতাননগর গ্রামের আল আমিন (২৫), মানিকপুর গ্রামের আবু সুফিয়ান (২৪), কামার দেহুন্দার আলমগীর (১৮), সুতারপাড়ার জিল্লুর রহমান (১৮), পাকুন্দিয়ার এগারসিন্দুর এলাকার মো. মাহমুদুল হাসান (৩০), নিকলীর মোহরকোনার কামরুল ইসলাম (১৮), নান্দাইলের কিসমত রসুলপুর গ্রামের আল মামুন (১৮) ও আগমুসুল্লির মিজানুর রহমান (১৮)। অন্যদিকে মহানবী (স.) সম্পর্কে অবমাননাকর বক্তব্যের প্রতিবাদে কিশোরগঞ্জ উলামা পরিষদ আজ সোমবার বিকালে শহরের গণমিছিলের ডাক দিয়েছে। গণমিছিল বাস্তবায়নে আয়োজক ও বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনের পক্ষ থেকে গত শুক্রবার থেকে বিভিন্ন তৎপরতা চালানো হচ্ছে। মিছিলে শহীদী মসজিদের খতিব মাওলানা আযহার আলী আনোয়ার শাহের নেতৃত্ব দেয়ার কথা রয়েছে।
লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি  জানান, লক্ষ্মীপুরে ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা সকাল সন্ধ্যা হরতাল ভাঙচুর ও টায়ারের অগ্নিসংযোগ ও সড়ক অবরোধের মধ্য দিয়ে চলছে। সকাল ৭টার দিকে শহরের আলীয়া মাদরাসার সামনে মালবাহী ট্রাক ও মিয়ার রাস্তা মাথায় দু’টি বাস ভাঙচুর করেছে হরতাল সমর্থনকারীরা। এছাড়া বাসটার্মিনাল, মিয়ার রাস্তার মাথা ও আলীয়া মাদরাসার সামনে হরতালে পক্ষে পিকেটিং বিক্ষোভ মিছিল করেছে তারা। এ সময় ওই স্থানে কয়েকটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে।
অপরদিকে সকাল ১১টায় সদর উপজেলার দালাল বাজারে হরতাল সমর্থকদের হামলা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক মোহন ও রাসেলসহ তিন আহত হয়েছেন। আহতদের লক্ষ্মীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে দালাল বাজার থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করে। রামগঞ্জ উপজেলার পানিওয়ালার নোয়াপাড়ায় হরতাল সমর্থকদের সঙ্গে পুলিশের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশ ভ্যানে অগ্নিসংযোগ করে হরতাল সমর্থকরা। নাশকতার আশঙ্কায় শহরের অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
সাঁথিয়া (পাবনা) প্রতিনিধি জানান, দেশব্যাপী ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতালের বিরুদ্ধে পাবনার সাঁথিয়ায় গতকাল দুপুর ১২টার দিকে সাঁথিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গ সংগঠনের উদ্যোগে হরতালবিরোধী বিক্ষোভ মিছিল বের হয়ে উপজেলার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এ সময় মিছিলকারীদের মধ্যে কতিপয় যুবক বেশ কয়েকটি দোকানে ভাঙচুর করে। শেষে দলীয় কার্যালয়ে এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ারের সভাপতিত্বে ও যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম বাচ্চুর পরিচালনায় বক্তব্য দেন যুগ্ম আহ্বায়ক হাসান আলী খান, রবিউল করিম হিরু, এস এম আলমগীর হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা জামাল উদ্দিন, যুবলীগের সভাপতি আবদুল জলিল, ছাত্রলীগ নেতা লাভলু খান, রুবেল, স্বপন প্রমুখ। এদিকে হরতাল সমর্থনকারীরা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান নিজাম উদ্দিনের সাঁথিয়াস্থ বাসা এবং উপজেলা পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুশীল কুমার দাসের বাড়িতে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করে।
স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার জানান, কক্সবাজারের পেকুয়া সদর ইউনিয়নের আশরাফুল উলুম মাদরাসা এলাকায় সকাল ১০টায় পিকেটিং চলাকালে জামায়াত-শিবিরের সঙ্গে ছাত্রলীগের ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছে। এতে ডা. হারুনুর রশিদ (৪০) ও মাওলানা হাবিবুর রহমান (৩০) নামের ২জন জামায়াত কর্মী আহত হয়। এসময় ওই মাদরাসার মসজিদ থেকে মাইকিং করে শিবির কর্মীরা বিএনপি-জামায়াতের কর্মীদের জড়ো করে পেকুয়া বাজারে আওয়ামী লীগ কর্মীদের ধাওয়া করে। ওই সময় বিএনপি-জামায়াত কর্মীরা ১০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ ও বাজার এলাকায় ব্যাপক ভাঙচুর ও লুটপাট চালায়। এতে সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আবদুল লতিফ চৌধুরী জুয়েল (২৯) গুলিবিদ্ধ হয়। এ সময় আওয়ামী লীগ ও জামায়াত-বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ৩ দফা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় পুলিশ প্রায় ৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলিবর্ষণ করে বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।
হরিণাকুণ্ডু (ঝিনাইদহ) প্রতিনিধি জানান, ঝিনাইদহের হরিণাকুণ্ডুতে জামায়াতের ডাকা সকাল সন্ধ্যা হরতাল ঢিলেঢালাভাবে পালিত হয়েছে। রাস্তঘাটে যানবাহন চলাচল ছিল সাভাবিক, দোকানপাট খোলাসহ স্কুল কলেজগুলোতে ছাত্রছাত্রীর উপস্থিতি ছিল অন্যান্য দিনের মতো। ভোরে জামায়াতের উদ্যোগে একটি মিছিল বের হয়, নেতা-কর্মীরা পায়রা চত্বরে টায়ারে অগ্নিসংযোগ করে। পরে সকাল ১১টায় উপজেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে বিশাল হরতালবিরোধী মিছিল বের হয়। মিছিলে উপজেলা আহ্বায়ক মো. মশিউর রহমান জোয়ার্দার এবং পৌর মেয়র শাহীনুর রহমান রিন্টু নের্তৃত্ব দেন। মিছিলটি শহর প্রদক্ষিণ শেষে উপজেলা পায়রা চত্বরের সমাবেশে আহ্বায়ক মো. মশিউর রহমান জোয়ার্দার এর সভাপতিত্বে ও ছাত্রলীগ উপজেলা সম্পাদক মো. রাফেদুল হক সুমনের পরিচালনায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ছাত্রলীগ লালনশাহ কলেজ সভাপতি বিল্লাল হোসেন, সম্পাদক রুবেল রানা, ছাত্রলীগ উপজেলা নেতা জাফিরুল ইসলাম, রবিউল ইসলাম, যুবলীগ পৌর সভাপতি আবু সাঈদ টুনু, শ্রমিকলীগ পৌর সভাপতি জহুরুল ইসলাম, শ্রমিকলীগ উপজেলা সভাপাতি আবদুল হান্নান, আওয়ামী লীগ উপজেলা নেতা সাব্দার হোসেন, আমীরুজ্জামান পলাশ প্রমুখ। সমাবেশে বক্তারা উপজেলা চেয়ারম্যান জামায়াত নেতা মোতাহার হোসাইনসহ জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীদের হরিণাকুণ্ডুতে অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে। উল্লেখ্য, মিছিলটি জামায়াত অফিসের সামনে পৌঁছলে ওই সময় বিক্ষুব্ধ জনতা অফিসের চেয়ার টেবিল আলমারিসহ জানালা দরজা ভাঙচুর করে। পরে নেতা-কর্মীদের হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি শান্ত হয়।
স্টাফ রিপোর্টার  পাবনা থেকে   জানান, পাবনায়  ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা সকাল-সন্ধ্যা হরতাল দু’-একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনার মধ্য দিয়ে পালিত হয়েছে। সকাল ৯টার দিকে পাবনা-ঢাকা মহাসড়কের রাজাপুর নামক স্থানে ইটপাটকেল ফেলে মহাসড়ক অবরোধের চেষ্টা করে পিকেটাররা। খবর পেয়ে বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে তারা পালিয়ে যায়। বেলা ১২টার দিকে ঈশ্বরদীর পাকশিতে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা জামায়াতের অফিস ও জমায়াত সমর্থিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুর করে। এছাড়া কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। মোটামুটি শান্তিপূর্ণভাবেই পালিত হয়েছে ইসলামী ১২ দলের সকাল-সন্ধ্যা হরতাল। জেলা ও উপজেলা শহরের বেশির ভাগ দেকানপাট ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। রিকশা ও হালকা যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক থাকলেও বাস-ট্রাক ও দূরপাল্লার যান চলাচল করেনি। শহরের বিভিন্ন স্থানে বিজিবি, র‌্যাব, গোয়েন্দা পুলিশ ছিল তৎপর।
এদিকে গত শনিবার পুলিশের সঙ্গে হরতালকারীদের  সংঘর্ষে নিহত দু’জন শিবিরকর্মী সিরাজুল ইসলাম ও আলাল আমিনের লাশ ময়না তদন্ত শেষে শনিবার রাতে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। গতকাল তাদের নামাজে জানাজা সকাল ১০টায় সদর উপজেলার বাঙ্গাবাড়িয়া বিবি হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত হয়। তাদের জানাজায় এলাকার হাজার হাজার মুসল্লি অংশ নেন। পরে দু’জনের নামাজে জানাজা শেষে ধর্মগ্রাম কবরস্থানে আলাল আমিন ও রাঘবপুর কবরস্থানে সিরাজুল ইসলামের লাশ দাফন করা হয়।
অপর দিকে শনিবার পাবনায় জামায়াতের ডাকা আধাবেলা হরতাল চলাকালে পুলিশের সঙ্গে জামায়াত-শিবির নেতা-কর্মীদের সংঘর্ষ, দু’জন নিহত, সড়ক অবরোধ ও ভাঙচুরের ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক চারটি মামলা দায়ের করেছে। পাবনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তদন্ত নুরে আলম সিদ্দিকী বাদী হয়ে তিনটি এবং এসআই সমর কুমার বাদী হয়ে মামলাগুলো দায়ের করেন। মামলাগুলোতে জেলা জামায়াতের শীর্ষ কয়েক নেতার নাম উল্লেখ করে দু’হাজার অজ্ঞাত ব্যক্তিকে আসামি করা হয়েছে।
স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম থেকে জানান, ইসলামী সমমনা ১২ দলের ডাকা হরতালে চট্টগ্রামে রেললাইনের স্লিপার খুলে নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে এতে কোন দুর্ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। একই সঙ্গে হরতাল সমর্থকরা নগরীতে টেম্পোতে আগুন দেয়ার চেষ্টা করেছে।
গতকাল সকাল থেকেই মোড়ে মোড়ে বিছিন্নভাবে পিকেটিং করেছেন ধর্মীয় রাজনীতির নেতারা। শহরের রাস্তায় যানবাহন চলাচল ছিল অনেক কম। বেশির ভাগ দোকানপাট ছিল বন্ধ। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে লোকবল সঙ্কট থাকায় গুরুত্বপর্ণ কাজ হয়নি।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, হরতালের সমর্থনে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা মিছিল সমাবেশ করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাধা দেয়। বেশির ভাগ জায়গায় তারা ঝটিকা মিছিল বের করে। হরতালে সব ধরনের নাশকতা এড়াতে পুলিশ মোতায়েন ছিল বেশি। চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসার একদল ছাত্র গতকাল ভোরবেলায় নাজিরহাট রুটে ট্রেন চলাচল বন্ধ করে দেয়। তারা সেখানে রেল লাইনের স্লিপার খুলে ফেললে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি হয়। পরে দীর্ঘক্ষণ পর বেলা ১২টার পর পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে আসে।
অন্যদিকে নগরীর রাস্তায় লোকজনের চলাচল কম হওয়ায় সর্বত্র ফাঁকা চিত্র দেখা গেছে। সকালে সিনেমা প্যালেস এলাকায় মিছিল বের করে শিবির কর্মীরা। এরপর তারা মিছিলটি নিয়ে আন্দরকিল্লার মোড়ের দিকে যেতেই ধাওয়া দেয় পুলিশ। সেখানে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে হরতালকারীরা একটি টেম্পোতে আগুন দেয়ার চেষ্টা করে। পরে আশপাশের জনতা এগিয়ে এলে হরতালকারীরা পালিয়ে যায়। হরতালের বিরুদ্ধে জামালখান প্রেস ক্লাব থেকে মিছিল করেছে ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা। জানতে চাইলে নগরীর কোতোয়ালি থানার ওসি মহিউদ্দিন সেলিম মানবজমিনকে বলেন, বড় ধরনের কোন ঘটনা আমরা শুনিনি। তবে বিছিন্নভাবে হরতালকারীরা মিছিল করেছে। তবে এর আগের দিন শনিবার রাতে বায়েজীদ এলকায় আকস্মিকভাবে মিছিল করে গাড়ি ভাঙচুর করেছে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা। সেখান থেকে কয়েকজনকে আটক করা হয়েছে।
এদিকে চট্টগ্রামসহ সারা দেশে পুলিশের গুলি, গণগ্রেপ্তার বন্ধ ও আটককৃতদের মুক্তি দাবি করেছে নগর জামায়াতের নেতারা। এক বিবৃতিতে তারা জানান, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, বগুড়া, ঢাকা, কুমিল্লাসহ সারা দেশে পুলিশ ও আওয়ামী ছাত্রলীগ-যুবলীগের গুলিতে জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মী, নিরীহ ব্যবসায়ী, দোকান কর্মচারী এবং সাধারণ মানুষ নিহত হচ্ছে। কেবল তাই নয়, আওয়ামী লীগ সরকার পুলিশকে দলীয় কর্মীর মতো ব্যবহার করছে। পুলিশ নিরস্ত্র মানুষকে গুলি করে এ পর্যন্ত কুমিল্লার মুহাম্মদ ইব্রাহীমসহ ১৬ জনকে শহীদ করেছে। কর্মী হত্যা, নির্যাতন, মারাত্মক আহত, শ’ শ’ নেতা-কর্মীকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ সরকার পতনকে ত্বরান্বিত করছে।
জামায়াত নেতৃবৃন্দ মনে করছেন, সরকারদলীয় ক্যাডারদের দিয়ে খুন, গুম, অপহরণ, ধর্ষণ, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি ও নিয়োগ বাণিজ্য করছে। সরকার জনদুর্ভোগ দূর করতে দ্রব্যমূল্য আইন শৃংখলা নিয়ন্ত্রণে ব্যর্থ এবং দুর্নীতি ও আওয়ামী দুঃশাসন থেকে দেশবাসীর দৃষ্টি ভিন্নদিকে প্রবাহিত করার জন্য জামায়াত নেতৃবৃন্দের বিরুদ্ধে মিথ্যা ও সাজানো মামলা দিয়ে কারাগারে আটক করে জুলুম-নির্যাতন চালাচ্ছে। অবিলম্বে জামায়াতের আমীর দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীসহ সকল শীর্ষ নেতৃবৃন্দ ও গ্রেফতারকৃতদের নিঃশর্ত মুক্তি দিতে হবে। নইলে আন্দোলন আরও কঠোর হবে। বিবৃতিতে রয়েছেন চট্টগ্রাম মহানগরী আমীর  মুহাম্মদ শামসুল ইসলাম এমপি।
মতিঝিল ফকিরাপুল
মতিঝিল ও ফকিরাপুল এলাকায় ইসলামী দলগুলোর ডাকা হরতাল তুলনামূলক শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হয়েছে। বেশির ভাগ দোকানপাট ছিল বন্ধ। রাস্তায় পিকেটারদের চোখে না পড়লেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং হরতালবিরোধীদের তৎপরতা চোখে পড়েছে। বিএনপির প্রধান কার্যালয়সহ রাস্তার মোড় ও অলিগলিতে টহল দিয়েছে র‌্যাব-পুলিশের সদস্যরা। আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতা-কর্মীরা সকাল থেকেই রাজপথ নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয়। তারা কিছুক্ষণ পরপরই হরতালবিরোধী মিছিল বের করে। সকাল ১০টার দিকে ফকিরাপুল পানির ট্যাঙ্কি এলাকায় একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘটে। পুলিশ মতিঝিল বিভাগের উপ-কমিশনার শেখ নাজমুল আলম বলেন, আমার অধীনস্থ থানা এলাকাগুলোকে কোন বলার মতো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছি। পানির ট্যাঙ্কি এলাকায় একটি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটলেও কেউ আহত হয়নি। এ ঘটনায় কাউকে গ্রেপ্তারও করা যায়নি। কারণ, ফাঁকা জায়গায় বিস্ফোরণ ঘটিয়ে পিকেটাররা দ্রুত স্থান ত্যাগ করেছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি- জামায়াত-শিবিরের সদস্যরা এ বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে। এদিকে পল্টন ও মতিতিঝিল থানার ডিউটি আফিসার পৃথকভাবে জানিয়েছে, কোন ধরণের অনাকাঙিক্ষত ঘটনা ছাড়াই হরতাল পালিত হয়েছে। গতকালের হরতালকে কেন্দ্র করে কোন মামলা হয়নি। গ্রেপ্তারও করা হয়নি কাউকে।
মগবাজারে ‘আমার দেশ’ পত্রিকায় আগুন
স্টাফ রিপোর্টার: রাজধানীর মগবাজারে দৈনিক আমার দেশ পত্রিকা পুড়িয়ে দিয়েছে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা। গতকাল সকালে সাড়ে ১০টার দিকে মগবাজার চৌরাস্তার মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ইসলামী সমমনা দলগুলোর ডাকা হরতাল প্রতিরোধে মগবাজারের বিভিন্ন এলাকা থেকে আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, মহিলা লীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা মিছিল বের করেন। তারা মিছিল নিয়ে মগবাজার চৌরাস্তার মোড়ে এসে জড়ো হন। মিছিলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হাতে জাতীয় পতাকা বহন করেন। এ সময় তারা জামায়াত-শিবিরের বিরুদ্ধে নানা স্লোগান দেন। একপর্যায়ে মগবাজার চৌরাস্তার মোড়ে ‘আমার দেশ’ পত্রিকার অনেকগুলো কপিতে আগুন ধরিয়ে দেয়। এ সময় চারদিকে পথচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। তবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কড়া নিরাপত্তা পাহারায় ছিলেন। ভোর থেকেই মগবাজার, ওয়্যারলেস, মৌচাক, মালিবাগ মোড়ে কয়েক প্লাটুন র‌্যাব, পুলিশ ও সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা অবস্থান নেন। ওইসব এলাকায় পিকেটারদের রাস্তায় পিকেটিং করতে দেখা যায়নি। যাত্রীবাহী বাস ও প্রাইভেটকার খুব কম চললেও রাজত্ব ছিল তিন চাকার যানের। রাজপথে ইচ্ছাখুশি মতো রিকশাগুলো চলাচল করেছে। কোথাও কোন সিগন্যালে বেড়াজালে আটকাতে হয়নি। ফলে কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।
মিরপুরে হরতালবিরোধী মিছিল
স্টাফ রিপোর্টার: হরতাল চলাকালে গাবতলী থেকে দূরপাল্লার যানবাহন ছেড়ে যায়নি। ঢাকা-সাভার, মানিকগঞ্জ, ধামরাই, সাটুরিয়া রুটের বেশ কিছু লোকাল বাস চলাচল করেছে। ঢাকা-খুলনা, বরিশাল, রাজশাহী, পাবনা, সিরাজগঞ্জ, যশোর, কালিগঞ্জ. মাদারীপুর-ফরিদপুরের দূরপাল্লার কোন পরিবহন টার্মিনাল থেকে ছেড়ে যায়নি। উল্লেখযোগ্য যাত্রী না থাকায় বিভিন্ন বাস কাউন্টারগুলো বন্ধ ছিল। টার্মিনাল চত্বরে বাসের জন্য অনেক যাত্রীকে অপেক্ষা করতে দেখা গেছে। সকাল থেকে বাসের জন্য অপেক্ষা করছিলেন রাজবাড়ি সদর থানার হেলাল আহম্মেদ। দু’বছর পরে দেশে ফিরেছেন। গতকাল ভোরে দুবাই ফ্লাইটে শাহজালাল বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছেন। তিনি ঢাকায় পৌঁছে জানতে পারেন হরতাল। বিমানবন্দর থেকে সকাল ৮টায় গাবতলী এসেছেন। হরতালের কারণে তাকে ট্যাক্সিক্যাবের ভাড়া গুনতে হয়েছে ১৫০০ টাকা। এ ঘটনায় তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এদিকে মিরপুরে হরতাল চিত্র ছিল স্বাভাবিক। হরতাল সমর্থক কোন পিকেটারকে রাস্তায় দেখা যায়নি। কম সংখ্যক যানবাহন চলাচল করেছে। সকাল সাড়ে ৯টায় ১০ নম্বরের গোল চত্বর থেকে সংসদ সদস্য কামাল মজুমদারের নেতৃত্বে একটি হরতাল বিরোধী মিছিল বের হয়।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট