Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

ট্রাইব্যুনাল আইনে ফাঁক রেখেছিল সরকার: বিএনপি

যুদ্ধাপরাধ ট্রাইব্যুনালের আইন প্রণয়নে সরকার ‘ফাঁক’ রেখেছিল বলে দাবি করেছে বিএনপি। দলের নেতারা বলেছেন, যুদ্ধাপরাধীর বিচারের জন্য বর্তমান সরকারই আইন প্রণয়ন করছে। সরকারই ট্রাইব্যুনাল গঠন ও প্রসিকিউশন নিয়োগ করেছে। শাহবাগের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে ব্লগার রাজিব হত্যার দায়ও তাই সরকারের। দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক অবস্থান কর্মসূচিতে বিএনপি নেতারা এ অভিযোগ করেন। বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিয়া বলেন, আমাদের প্রশ্ন- কেন ওই আইনের ফাঁক-ফোকর রাখা হয়েছিল। তা জনগণের কাছে সরকারকে জবাবদিহি করতে হবে। আসলে যুদ্ধাপরাধীর বিচারকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতেই সরকার এটা করেছে। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল তাদের দ্বিতীয় রায়ে যুদ্ধাপরাধী আবদুল কাদের মোল্লাকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিলে প্রকাশ্য হয় যে আপিলের ক্ষেত্রে সরকার ও আসামি পক্ষের সমান সুযোগ নেই। যে কোন রায়ের বিরুদ্ধে সরকারেরও আপিলের সুযোগ রেখে আইন সংশোধন বিল সংসদে রোববার (আজ) পাসের জন্য উত্থাপিত হচ্ছে। ব্যারিস্টার রফিকুল বলেন, আমরা যুদ্ধাপরাধের বিচার চাই। তবে সেই বিচার ন্যায়বিচার হতে হবে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, শাহবাগের আন্দোলন সরকার ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করছে। আমরা মনে করি, শাহবাগের আন্দোলন হচ্ছে দেশের অধিকার বঞ্চিত নিপীড়িত মানুষের জন্য। এ আন্দোলনকে যেন সরকার কোনভাবে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করতে না পারে, সেদিকে আন্দোলনকারীদের সজাগ থাকতে হবে।

রাজীব হত্যার দায় সরকারের: ফারুক

ওদিকে বিরোধী দলীয় চিফ হুইপ জয়নুল আবদিন ফারুক শাহবাগ আন্দোলনের কর্মী ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার হত্যাকাণ্ডের জন্য সরকারের ব্যর্থতাকে দায়ী করেছেন। বিরোধী নেতা খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ বিএনপি নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে দেশ বাঁচাও মানুষ বাঁচাও আন্দোলন আয়োজিত সমাবেশে তিনি রাজীব হায়দার হত্যাকাণ্ডের জন্য সরকারকেই দায়ী করেন। ফারুক বলেন, কাল কক্সবাজারে চারজনসহ ঢাকায় আমাদের সন্তানতুল্য রাজীব যিনি শাহবাগের গণজাগরণকে স্লোগানে মুখর করে তুলতেন, তাকে দুষ্কৃতিকারীরা হত্যা করেছে। এভাবে হত্যাকাণ্ড চলছেই। বিশ্বজিতের হত্যাকারীরা ধরা পড়েনি। সাগর-রুনি হত্যার বিচার হয়নি। ১০ মাস অতিক্রান্ত হলেও নিখোঁজ ইলিয়াস আলীর আজো সন্ধান মেলেনি। তাই সরকারকে বলব, ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য আর মায়ের বুক খালি করবেন না। জনগণ দেশে কোন হত্যাকাণ্ড দেখতে চায় না। এ সব হত্যাকাণ্ডের জবাব একদিন সরকারকে দিতে হবে। ফারুক বলেন, ১৮ দলীয় জোট ভাঙতে সরকার জামায়াতকে টার্গেট করেছে। কিন্তু তাদের এই স্বপ্ন কখনও সফল হবে না। ১৮ দলীয় জোট কেউ ভাঙতে পারবে না। কারণ জামায়াত ইস্যুকে আওয়ামীলীগ সবসময় নিজেদের স্বার্থে ব্যবহার করেছে। কখনও জামায়াতের সঙ্গে জোট করেছে, কখনও তাদের ওপর নিপীড়ন করেছে। আপনাদের বলতে চাই জামায়াতকে আমাদের দোসর দাবি করে যে শাস্তির কথা বলছেন অদূর ভবিষ্যতে আপনাদেরও তাই করা হবে। আপনারা ১৯৯৬ সালে যখন জামায়াতের সঙ্গে ছিল তখন কেন বিচার করেননি। তখন কি আপনারা জামায়াতের দোসর ছিল না? তিনি বলেন, ক্ষমতায় এসে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় দায়ের হওয়া মামলার মধ্যে শেখ হাসিনা ও আওয়ামীলীগ নেতাদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো প্রত্যাহার করেছেন। কিন্তু খালেদা জিয়ার মামলাগুলো সদরঘাটে ঝুলিয়ে রেখেছেন। সংগঠনের সভাপতি রফিকুল ইসলাম রিপনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বিএনপি নেতা হেলেন জেরিন খান, ইসমাইল হোসেন বেঙ্গল বক্তব্য দেন। বক্তারা প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে বলেন, যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচার করছেন ভাল কথা। কিন্তু আপনার বেয়াইকে শাস্তি দিচ্ছেন না কেন?

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট