Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে কর্মসূচি চলতে দেয়া যায়না : আইনপ্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, ৩১ জানুয়ারি : সংবিধান সম্মতভাবে প্রতিষ্ঠিত আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের বিরুদ্ধে জামায়াত কোন কর্মসূচি দিলে তা সমর্থন করা যায়না বলে মন্তব্য করেছেন আইনপ্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম । এজন্য বুধবার জামায়াত ইসলামীকে সমাবেশ করতে দেয়া হয়নি।
বৃহস্পতিবার বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ের আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে অবস্থান কর্মসূচি পালনকালে আইনপ্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হাবিবুর রহমান সিরাজ, কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য এনামুল হক শামীম, সুজিত রায় নন্দী, মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এম এ আজিজ, আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক লিয়াকত শিকদার, মাহফুজুল হায়দার চৌধুরী রোটন, জোবায়দুল হক রাসেল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগ নেতা তাজউদ্দিন আহমেদ তাজ, প্রমুখ।
তিনি বলেন, সংবিধান সম্মত ট্রাইব্যুনাল বন্ধের দাবির কোন যৌক্তিকতা নেই। এ ট্রাইব্যনাল বন্ধ হতে পারে না।
জামায়াতের আজকের হরতাল রাষ্ট্রদ্রোহিতার সামিল। কেননা তারা ট্রাইব্যুনাল বন্ধের জন্য তারা হরতাল দিয়েছে।
আইনপ্রতিমন্ত্রী বলেন, খালেদা জিয়া জামায়াতের মাধ্যমে তার কর্মসূচি পালন করছেন। বিরোধী দলীয় নেতা জামায়াত-শিবির দিয়ে গাড়ি পোড়াচ্ছেন। তিনি নিজে কোন ধ্বংসাত্মক কাজের দায়ভার না নিয়ে কৌশলে তিনি এ কাজ করছেন বলেও অ্যাডভোকেট কামরুল অভিযোগ করেন।
যশোরে জামায়াত শিবিরের সঙ্গে সংঘর্ষে এক পুলিশ নিহতের ঘটনা সম্পর্কে সাংবাদিকদের কামরুল ইসলাম বলেন, তাদেরকে আর বাড়াবাড়ি করতে দেয়া হবে না। সরকার এদের ব্যাপারে জিরো টলারেন্স দেখাবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাদেরকে আরো কঠোরভাবে দমন করবে।
ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বলেছেন, জামায়াত শিবিরের নৈরাজ্যে মানুষ অতিষ্ঠ। তাদের রাজনীতি চিরতরে বন্ধ করতে হবে। অন্যথায় গণতন্ত্র ব্যাহত হবে। তাদেরকে রাজনীতির মাঠ থেকে তাড়াতে আওয়ামী লীগকে জনমত গঠনের আহ্বান জানান তিনি।
তিনি বলেন, বিএনপি জামায়াত শিবিরের মাধ্যমে জ্বালাও পোড়াও করে তান্ডব চালিয়ে নিজেরা ভালো থাকতে চাইছে।
তবে জামায়াত-শিবিরকে প্রতিহত করতে মাঠে থাকার ঘোষণা দিয়েও মাঠে নেই যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ছাত্রলীগ। তাদের কার্যালয় ছিল তালবদ্ধ।