Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

সিলেটে ৩ কোটি টাকার টেন্ডার ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগ আ.লীগের বিরুদ্ধে

সিলেট প্রতিনিধি, ২১ জানুয়ারি : সিলেট গ্যাস ফিল্ড লিমিটেডের আওতাধীন গোলাপগঞ্জের কৈলাসটিলার ৭নং কুপে মাটি ভরাট ও উন্নয়ন কাজের টেন্ডারবক্স আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগ নেতারা ছিনিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সোমবার দুপুরে সিলেটের হরিপুর গ্যাসফিল্ড অফিসে ঘটনাটি ঘটে বলে জানা গেছে।
গ্যাসফিল্ড সূত্র জানায়, জন্মভূমি নির্মাতা নামে প্রতিষ্ঠানের সত্ত্বাধিকারী গোলাপগঞ্জের আওয়ামী লীগ নেতা লুৎফুর রহমান ও আওয়ামী লীগ নেতাদের মালিকানাধীন নির্মিত ও দ্য মেসার্স জামিল ইকবাল টেন্ডার জমা দেয়। উপস্থিত অন্যান্য অনেক প্রতিষ্ঠান টেন্ডার জমা দিতে গেলে বাধা দিয়ে কাগজপত্রও ছিনিয়ে নেয় আওয়ামী লীগ নেতারা। শেষ সময়ে অন্যান্য প্রতিষ্ঠানগুলো জমা দিতে গেলে টেন্ডার বক্সের মুখ বন্ধ করে দেন তারা।
জানা যায়, ৩ কোটি ৩ লাখ টাকা মূল্যের কাজের ওই টেন্ডার জমা দেওয়ার শেষদিনে জমা দিতে আসা কর্মকর্তাদের মারধর করে বের করে দিয়ে বক্সের মুখ বন্ধ করে দেন আওয়ামী লীগ নেতারা।
কর্মকর্তারা জানান, ঘটনাস্থলে বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান টেন্ডার ফরম জমা দিতে গেলে শুরুতে বাধা দেন উপস্থিত আওয়ামী লীগ নেতারা। পরে টেন্ডারের শেষ সময় দুপুর ১২টায় বাধা উপেক্ষা করে টেন্ডার জমা দিতে গেলে টেন্ডার বক্স ছিনিয়ে নেন আওয়ামী লীগ নেতারা।
এসময় টেন্ডার জমা দিতে আসা কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের মারধর করে বের করে দেন।
পুলিশের উপস্থিতিতে ঘটনাটি ঘটলে পুলিশ নীরব দর্শক ছিল বলে জানান মারধরের শিকার কয়েকজন কর্মকর্তা।
এ ব্যাপারে জৈন্তাপুর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল জলিল বলেন, শান্তিপূর্ণভাবে টেন্ডার প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিল। টেন্ডার জমা দিতে বাধা বা ছিনিয়ে নেওয়ার কোনো ঘটনা ঘটেনি।
ঘটনাস্থলে দায়িত্বরত জৈন্তাপুর থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক তপন জানান, কয়েকজন নির্দিষ্ট সময় পরে এসে টেন্ডার জমা দেওয়ার চেষ্টা করলে তারা জমা দিতে পারেন নি। তবে কোনো মারধরের ঘটনা ঘটেনি।
আওয়ামীলীগ নেতাদের বাধায় টেন্ডার জমা দিতে না পারা টেক ব্যয় ইন্টারন্যাশনাল ও মেসার্স আলম অ্যান্ড ব্রাদার্সের দুইজন কর্মকর্তা বলেন, সকাল থেকে আমরা টেন্ডার জমা দেওয়ার চেষ্টা করি। কিন্তু, আমাদের বাধা দেওয়া হয়। দুপুর ১২টার কিছু আগে শেষ সময়ে বাধা উপেক্ষা করে টেন্ডার জমা দিতে গেলে উপস্থিত জেলা আওয়ামীলীগের নাসির উদ্দিন খান, গোলাপঞ্জের আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা ও ইউনিয়ন চেয়ারম্যান লুৎফুর রহমানসহ ছাত্রলীগের জৈন্তাপুর ও গোলাপগঞ্জ উপজেলার নেতারা আমাদের ওপর হামলা চালায়।
এসময় মারধর করে তাদের বের করে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ করেন এ দুটি প্রতিষ্ঠানের দুই কর্মকর্তা।