Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

কাল বিশ্বইজতেমার দ্বিতীয় পর্ব শুরু : লাখো মুসল্লীর স্রোত এখন টঙ্গী মুখি

স্টাফ রিপোর্টার, নিউজমিডিয়াবিডি.কম, ১৭ জানুয়ারি): শুক্রবার থেকে দ্বিতীয় পর্বের তিন দিন ব্যাপী বিশ্বইজতেমা টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে বিশ্ব মুসলিম জাহানের দ্বিতীয় বৃহত্তম ধর্মীয় মহাসমাবেশ শুরু হচ্ছে । প্রায় ৫ বর্গ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে তৈরী করা হয়েছে চটের সুবিশাল সামিয়ানা। সেই সাথে মাঠের বাহিরে পলিথিন দিয়ে নতুন করে অসংখ্য তাবু করা হয়েছে। ইজতেমা মাঠকে দ্বিতীয় পর্বের জন্য ফের নতুন রূপে সাজানো হয়েছে। লাখো ধর্মপ্রাণ মুসল্লির স্রোত যেন টঙ্গী মুখি। ট্রেন, বাস ও ষ্ট্রীমারে করে হাজার হাজার মুসল্লি টঙ্গীতে আসছেন। গত ১০ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার বাদ মাগরিব থেকেই আম বয়ানের মধ্য দিয়ে অআনুষ্ঠানিক ভাবে প্রথম পর্বের তিন দিনের ইজতেমা কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। প্রথম পর্ব ১১ জানুয়ারি শুরু হয়ে ১৩ জানুয়ারি আখেরী মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয়েছিল। মাঝখানে একটানা ৪ দিন বিরতী ছিল। বৃহস্পতিবার ছিল ৪ দিনের বিরতির শেষ দিন। আর দ্বিতীয়  পর্বের  তিন দিনের ইজতেমা কাল ১৮ জানুয়ারি শুক্রবার শুরু হয়ে ২০ জানুয়ারি রোববার দুপুরে আখেরী মোনাজাতের মধ্য দিয়ে চলতি বছরের দু’পর্বের ৪৭তম বিশ্ব ইজতেমার সমাপ্তি ঘটবে।
বৃহস্পতিবার সরেজমিন বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে গিয়ে দেখা গেছে, দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকেও জামাতবন্দী হাজার হাজার মুসল্লী বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার মধ্যে ইজতেমা ময়দানে এসে জেলা ওয়ারি খিত্তায় অবস্থান নিতে শুরু করেছেন। বৃহস্পতিবার বিকাল পর্যন্ত ময়দানের উদ্দেশ্যে ছুটে আসা হাজার হাজার ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের আসা অব্যাহত ছিল। বিদেশ থেকে আগত মুসল্লীগণ কাকরাইল মসজিদের রিপোর্ট শেষে ইজতেমা ময়দানে নির্ধারিত ক্যাম্পে এসে অবস্থান নিচ্ছেন। আর দেশী-বিদেশী মুসল্লীদের আগমণ আগামী রোববার দ্বিতীয় পর্বের আখেরী মোনাজাতের দিন পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে । শুক্রবার চলতি বছরের দ্বিতীয় পর্বের ৩ দিনের বিশ্ব ইজতেমার প্রথম দিন জুমার নামাজে ইমামতি এবং খুতবা পাঠ করবেন ঢাকার কাকরাইল জামে মসজিদের পেশ ইমাম আহলে সূরা সদস্য হাফেজ মাওলানা যোবায়ের । আর আল্লাহর নির্দেশিত হুকুম, আহকাম পালন ও যিকির আজকারে  লাখো মুসল্লি মশগুল থাকবেন তুরাগের এই বিশাল চটের প্যান্ডেলের নিচে।

এদিকে, বিশ্ব ইজতেমা দ্বিতীয় পর্বের জন্য ময়দানের ভেতরে পয়:নিস্কাশন, টয়লেট, প্যান্ডেল নির্মাণসহ সকল ধরনের উন্নয়ন কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। তবে ময়দানের উত্তর পূর্ব কোণে বেশ কিছু জায়গায় শুধু খুঁটি পুঁতে রাখা হয়েছে ঢাকাবাসী জামাতবন্দীদের জন্য। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে এসকল জামাতবন্দী মুসল্লীরা ময়দানে এসে নিজেরাই সাথে করে আনা ছামিয়ানা টাঙ্গিয়ে স্থান করে নিচ্ছেন। বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে দূর-দূরান্ত থেকে আসা মুসল্লীরা জেলা ওয়ারি খিত্তাগুলোতে অবস্থান নিতে শুরু করেছেন। মুসল্লীদের অবস্থান নির্ণয়ে খিত্তা ও হালকাসহ রাস্তার নাম্বার লাগানো হয়েছে।  খিত্তায় খিত্তায় মোয়াজ্জিমের স্থান নির্ধারণ, বৈদ্যুতিক বাতি ও পর্যাপ্ত পরিমান ছাতা মাইক লাগানো হয়েছে। ইজতেমা ময়দানের অবস্থানরত মুসল্লীদের সার্বিক নিরাপত্তাদানে জেলা পুলিশ গুরুত্ব সহকারে তদারকি করছেন । দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার জন্য পুলিশ, র‌্যাব, গোয়েন্দা সংস্থাসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রায ১০ হাজার  সদস্য মোতায়েন রয়েছে । ৪৮টি সিসি ক্যামেরারর মাধ্যমে সার্বিক নিরাপত্তা মনিটরিং করা হবে। এছাড়া বাইনোকুলার, মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে তল্লাশী করা হবে। ইজতেমা ময়দানের সব প্রবেশপথে ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরা ও বিভিন্ন পয়েন্টে পর্যবেক্ষন টাওয়ার স্থাপন করা হয়েছে। পুলিশ ও র‌্যাবের মোট ১৩টি পর্যবেক্ষণ টাওয়ারের মাধ্যমে ইজতেমা ময়দানে অবস্থানরত মুসল্লীদের নিরাপত্তার দিকটি ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার মাধ্যমে পর্যবেক্ষণ করবে। শুরুর দিন শুক্রবার থেকে ইজতেমা ময়দানের আকাশে র‌্যাবের হেলিকপ্টার টহল দেওয়াসহ পাঁচস্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তার ব্যবস্থা থাকবে বিশ্ব ইজতেমা ময়দান ও আশপাশ এলাকায়। এছাড়াও ইজতেমা ময়দানের মুসল্লীদের প্রতিটি প্রবেশ পথে মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে শরীর তল্লাশিসহ সার্বিক নিরাপত্তার দিকটি সুনিশ্চিত করা হয়েছে। ইজতেমা ময়দানে অবস্থানরত লাখ লাখ মুসল্লীর খাবার ও ওযু-গোসলের বিশুদ্ধ পানি সরবরাহের জন্য মোট ১৩ কিলোমিটার পাইপ লাইনের মাধ্যমে ১৪টি উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন পানির পাম্পের সাহায্যে রাতে দিনে ২লাখ ৮০ হাজার গ্যালন পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ঢাকা ওয়াসার ৩টি পাম্পে প্রতি ঘন্টায় ৯০ হাজার গ্যালন পানি, ইজতেমার নিজস্ব ১টি পাম্পের মাধ্যমে প্রতি ঘন্টায় ৩০ হাজার গ্যালন পানি এবং পৌরসভার ১১টি পাম্পের মাধ্যমে দৈনিক ২৪ ঘন্টা পাম্প চালুর মাধ্যমে ইজতেমা ময়দানে মুসল্লীদের পানি সরবরাহের ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইজতেমা ময়দানে অবস্থানরত মুসল্লীদের জরুরী পানি সরবরাহের জন্য ১লাখ গ্যালন পানি ধারণ ক্ষমতাসম্পন্ন ওভারহেড ট্যাংকেও পানি মজুদ রাখা হচ্ছে। এবারের টঙ্গী বিশ্ব ইজতেমা  সফল ভাবে পালনের লক্ষে স্থানীয় প্রশাসন টঙ্গী এলাকার গড়ে উঠা সকল সিনেমা হল ৩ দিন  করে মোট ৬ দিন এবং ইজতেমা চলাকালীন সময় পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। ইজতেমা ময়দানে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুত সরবরাহের জন্য উত্তরা, টঙ্গী ও টঙ্গী নতুন গ্রিড থেকে বিদ্যুত নিয়ে ৪টি উপকেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। কোন কারণে বিদ্যুত ব্যবস্থা বিকল হয়ে গেলে তাতক্ষণিকভাবে বিকল্প ব্যবস্থায় ৫টি ট্রলি ট্রান্সফরমার দিয়ে জরুরী বিদ্যুত সরবরাহের ব্যবস্থাও নেওয়া হয়েছে।
গাজীপুরের টঙ্গী এলাকার দায়িত্বে নিয়োজিত র‌্যাবের লেফটেনেন্ট কমান্ডার মো: কাওসার নিউজমিডিয়াবিডি.কমকে জানান, দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমার মুসল্লিদের সার্বিক নিরাপত্তার জন্য আমরা সর্বদা প্রস্তুত আছি। যাতে করে ইজতেমায় কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে জন্য র‌্যাব, পুলিশ, ডিবি ও গোয়েন্দা সংস্থারসহ আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্যরা কঠোরভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আশা করি ভাল ভাবে ইজতেমা সম্পন্ন হবে। টঙ্গী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মো: ইসমাইল হোসেন নিউজমিডিয়াবিডি.কমকে জানান,  শুক্রবার থেকে দ্বিতীয় পর্বের ইজতেমা শুরু হচ্ছে। এবারও একইভাবে প্রায় ১০ হাজার পুলিশ, র‌্যাব, ডিবি, গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য সহ আইনশৃংখলা বাহিনীন সদস্যরা মাঠে নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবেন।