Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

বিশ্বব্যাংক প্যানেলের উদ্বেগ

পদ্মা সেতু নিয়ে গঠিত বিশ্বব্যাংক বিশেষজ্ঞ প্যানেলের প্রধান ওক্যাম্পো দুদকের কার্যক্রমে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। গতকাল এক বিবৃতিতে তিনি বলেছেন, দুদকের কাছে প্রয়োজনীয় কিছু বিষয়ে আমরা ব্যাখ্যা চেয়েছি, সে বিষয়ে আমরা দুদকের জবাবের অপেক্ষায় আছি। পদ্মা সেতুর দুর্নীতির মামলার নিরপেক্ষ তদন্তের সুযোগ নিয়ে তারা ওই উদ্বেগ প্রকাশ করেন।
বিবৃতিতে বিশ্বব্যাংকের বিশেষজ্ঞ প্যানেলের চেয়ারম্যান লুইস মোরেনো ওক্যাম্পো বলেছেন, ঢাকা সফরের সময় দুর্নীতি দমন কমিশনের সঙ্গে আমাদের (অভ্যন্তরীণ দুর্নীতি বিরোধী প্যানেল) যে খোলামেলা আলোচনা হয়েছে তাকে আমরা স্বাগত জানিয়েছিলাম। আমরা মনে করি, পদ্মা সেতু প্রকল্পে দুর্নীতির বিষয়ে দেয়া প্রমাণের উপর ভিত্তি করে তদন্ত শুরু করার জন্য এফআইআর (ফার্স্ট ইনফরমেশন রিপোর্ট) দাখিল করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ও অগ্রগতিমূলক একটি পদক্ষেপ। দুদকের কাছে থাকা প্রমাণের উপর ভিত্তি করে করা এফআইআর পর্যালোচনা করে সঠিক ও নিরপেক্ষ তদন্তের কতটুকু সুযোগ আছে তাতে আমরা উদ্বিগ্ন। একটি স্বচ্ছ ও পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হবে কিনা তা মূল্যায়ন করার জন্য দুদকের কাছে প্রয়োজনীয় কিছু বিষয়ের ব্যাখ্যা আমরা চেয়েছি। দুদকের কার্যক্রমের মূল্যায়ন ও পরবর্তী করণীয় ঠিক করার জন্য সে সব বিষয়ে দুদকের জবাবের অপেক্ষায় রয়েছি আমরা।
ওদিকে পদ্মা সেতুর দুর্নীতির মামলা নিয়ে এখনও ভিন্ন মেরুতে দুদক ও বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দল। সেই পুরনো সমস্যা, আবুল হোসেন সঙ্কট। দুদকের কমিশনার বলেছেন, বিশ্বব্যাংক প্যানেলের চিঠিতে তারা সন্তুষ্ট, চেয়ারম্যান বলেছেন, খুশি হওয়ার মতো কিছু নেই। চিঠির বক্তব্যে দেখা যাচ্ছে, সন্তুষ্টির লেশমাত্র নেই। বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধিও জানিয়েছেন অসন্তুষ্টির কথা। বলেছেন বিশেষজ্ঞ দল অসন্তুষ্ট। বিভ্রান্তির সূচনা হয়েছে দুদক থেকে।
পদ্মা সেতুর দুর্নীতির বিষয়ে বিশ্বব্যাংক বিশেষজ্ঞ প্যানেলের দেয়া চিঠি নিয়ে তিন ধরনের বক্তব্য এখন মাঠে। বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি এলেন গোল্ডস্টেইন বলেছেন, বিশ্বব্যাংক বিশেষজ্ঞ প্যানেল অসনু্তষ্ট। দুদক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু বলেছেন, বিশ্বব্যাংক সন্তুষ্ট। অন্যদিকে দুদক চেয়ারম্যান গোলাম রহমান চিঠির প্রতিক্রিয়াকে ইতিবাচক নেতিবাচক দু’টোই বলেছেন, তবে তিনি বলেছেন, তাদের চিঠিতে খুশি হওয়ার মতো কিছু নেই। প্রকাশিত চিঠির বক্তব্য থেকে জানা যায়, দুদকের কার্যক্রমে সন্তুষ্ট হতে পারেনি বিশেষজ্ঞ প্যানেল। সৈয়দ আবুল হোসেনকে মামলার আসামি না করায় তারা নাখোশ ও ক্ষুব্ধ।
সৈয়দ আবুল হোসেনকে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি করে তদন্ত করতে বলেছে বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দল। গত ৯ই জানুয়ারি বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দলের প্রধান ওকাম্পো ওই চিঠিটি পাঠিয়েছেন দুদক চেয়ারম্যান গোলাম রহমানের কাছে। ৫ই ডিসেম্বর পদ্মা সেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতির বিষয়ে ৭ জনকে আসামি করে একটি মামলা করে দুদক। মামলা করার পর এজাহারের কপি পাঠানো হয় বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দলের কাছে। ৯ই জানুয়ারি প্রথম দুদকের কাছে চিঠির মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে তাদের প্রতিক্রিয়া তুলে ধরলো বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দল। তাদের ওই চিঠির বিষয়ে দুদকের সেগুনবাগিচা কার্যালয়ে গত ১৪ই জানুয়ারি বিকাল বেলা দুদক কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পু এক অনানুষ্ঠানিক ব্রিফিং-এ সাংবাদিকদের কাছে ওই চিঠি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন। দুদকের প্রতিনিধিত্বশীল একজন ঊর্ধ্বতন কর্তাব্যক্তির সন্তোষ প্রকাশ করার মাত্র একদিন পর বাংলাদেশে বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রতিনিধি অ্যালেন গোল্ডস্টেইন ওই বিষয়ে তার প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করে বলেন, বিশ্বব্যাংক প্রতিনিধি দল অসন্তুষ্ট। গতকাল সকালে হোটেল সোনারগাঁয়ে রাজধানীর বাস নেটওয়ার্ক ও নিয়ন্ত্রণ সংস্থার সংস্কার কার্যক্রম বাস্তবায়ন বিষয়ক এক সেমিনারে তিনি ওই প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। গোল্ডস্টেইন বলেন, পদ্মা সেতুর দুর্নীতি বিষয়ে দুদকের করা তদন্ত নিয়ে বিশ্বব্যাংক প্যানেল অসন্তুষ্ট। তিনি বলেন, এটা বিশ্বব্যাংকের মতামত নয় তবে তাদের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে বিশ্বব্যাংক পরবর্তী সময়ে তাদের অবস্থান ব্যাখ্যা করবে। তিনি বলেন, গণমাধ্যমে যেসব খবর প্রকাশিত হচ্ছে তা বিশেষজ্ঞ দলের, ওই দলটি পুরোপুরি স্বাধীন। তিনি আরও বলেন, পদ্মা সেতুর দুর্নীতির মামলা ও দুদকের কার্যক্রম নিয়ে বিশেষজ্ঞ প্যানলের বক্তব্য জানার জন্য অপেক্ষায় আছে বিশ্বব্যাংক। গতকাল বেলা আড়াইটার সময় দুদকের চেয়ারম্যান দুদকের সেগুনবাগিচার কার্যালয়ে সাংবাদিকদের কাছে ওই চিঠি নিয়ে তার প্রতিক্রিয়া জানান, তিনি বিশ্বব্যাংক প্যানেলের চিঠিকে ইতিবাচক নেতিবাচক দু’টোই বলেন; তবে তিনি উল্লেখ করেন তাদের চিঠিতে খুশি হওয়ার কিছু নেই। তিনি বলেন, চিঠিতে অনেক ইতিবাচক কথাও আছে। তিনি চিঠিতে উল্লিখিত সৈয়দ আবুল হোসেন সম্পর্কিত বক্তব্যের অংশটুকু পড়ে শোনান। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, চিঠি নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে আগের দিন দেয়া কমিশনার সাহাবুদ্দিন চুপ্পুর বক্তব্যকে তিনি তার ব্যক্তিগত বক্তব্য হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, এটা দুদকের আনুষ্ঠানিক বক্তব্য নয়, এজন্য দুদকের কোন বৈঠকও হয়নি। তিনি এটাকে চায়ের কাপে ঝড় তোলার সঙ্গে তুলনা করেন। সৈয়দ আবুল হোসেনকে কেন আসামি করা হয়নি- এমন প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, মামলা করার সময় তার সম্পর্কে যথেষ্ট তথ্য পাওয়া যায়নি। এখন আসামি করা হবে কিনা জানতে চাইলে বলেন, তদন্ত চলছে, তদন্তের পর বলা যাবে। একই বিষয়ে দুদকের দু’জনের বক্তব্য নিয়ে বিভ্রান্তিরও সৃষ্টি হয়েছে। দুদক ও বিশ্বব্যাংকে সৈয়দ আবুল হোসেন সঙ্কট কাটেনি। দূর হয়নি ওই বিষয়ে দুদক ও বিশ্বব্যাংক প্যানেলের মতভেদ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট