Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় সরকারকে নির্দলীয় ব্যবস্থা মেনে নিতে হবে : রুহুল আমিন গাজী

নিউজডেস্ক : তত্ত্বাবধায়ক সরকার দিলে নির্বাচনের ফলাফলের উপর নিয়ন্ত্রণ থাকবে না বিধায় আওয়ামী লীগ তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা মেনে নিচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি রুহুল আমিন গাজী। তিনি বলেন, অথচ এই আওয়ামী লীগই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের জন্য হরতাল করেছে, মারামারি করেছে আর এখন ক্ষমতায় এসে সেটা বাতিল করে দিয়েছে।

রোরবার মধ্যরাতে দিগন্ত টেলিভিশনের সংবাদ পর্যালোচনা ভিত্তিক অনুষ্ঠান নিউজ অব দা ডে তিনি বলেন, এখন আওয়ামী লীগ বলছে অগণতান্ত্রিক সরকারকে আর ক্ষমতায় আসতে দেয়া হবে না। অথচ মইন-ফখরুদ্দিন সরকারকে বৈধতা দিতে বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নিজে বলেছিলেন তারা আমাদের আন্দোলনের ফসল।

তিনি আরো বলেন, আমাদের নির্বাচন কমিশন মোটেই শক্তিশালী নয়। একটা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে তারা সেনা মোতায়নের অনুমতি চেয়েও তা পায়নি। ফলে এ নির্বাচন কমিশনের পক্ষেও নিরপেক্ষ নির্বাচন করা সম্ভব নয়। ফলে দল-মত নির্বিশেষে সবার পরামর্শ নিয়ে নির্দলীয় সরকার গঠনের প্রয়োজনীয়তা দেখা দিয়েছে। আর এটা করার দায়িত্ব সরকারের। যেহেতু মানুষ তাদেরকে ভোট দিয়ে ক্ষমতায় এনেছে তাই গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষায় একটা নির্দলীয় ব্যবস্থার অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত করা সরকারেরই দায়িত্ব।

গত চার বছরে উপজেলা নির্বাচনসহ স্থানীয় সকল নির্বাচন নিরপেক্ষ হয়েছে এবং জাতীয় নির্বাচনও নিরপেক্ষ হবে বলে প্রধানমন্ত্রী যে বক্তব্য দিচ্ছেন তার প্রতিক্রিয়ায় রুহুল আমিন গাজী বলেন, প্রধানমন্ত্রী এটা বলার জন্য বলেছেন, স্থানীয় সরকার বা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আর জাতীয় নির্বাচন এক বিষয় নয়। উপজেলা বা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন নিয়ে সাধারনত কেউ এত বিচার বিশ্লেষণ করে না। এর সাথে জাতীয় নির্বাচনের তুলনা দেয়া যায় না।

ছাত্রলীগের বেপরোয়া কর্মকান্ড সম্পর্কে তিনি বলেন, দাঙ্গা-হাঙ্গামা, চাঁদাবাজি, খুন, হত্যা এগুলো এখন ছাত্রলীগের নিত্য-নৈমিত্তিক কাজ। সবকিছু জেনেও সরকার তাদের বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা  নিচ্ছে না সঞ্চালকের এমন প্রশ্নে রুহুল আমিন গাজী বলেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে লাঠি নিয়ে মিছিলে যাবে কে ? দলীয় সার্থে এদের ব্যবহার করা হচ্ছে। রাজনৈতিক অসততা থেকে, দুর্বৃত্তায়নের মানসিকতা থেকে এদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না। জনগনের প্রতি সরকারের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। দলবাজি, চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি করে কিভাবে ক্ষমতাকে কুক্ষিগত করা যায়, আগামীতে সন্ত্রাসী কার্যক্রম চালিয়ে ক্ষমতাকে পাকা-পোক্ত করা যায় সেই চিন্তা ও মানসিকতা থেকেই সরকার ছাত্রলীগ, যুবলীগের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে না।

গ্রন্থণা:এম.এইচ রনি