Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

নতুন বছরে ভারতের উপহার সীমান্তে লাশ : খন্দকার মোশাররফ

০৭ জানুয়ারি: বিএনপির স্থায়ী কমিটির  সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, গত বছরের শুরুতে ভারতের কাছ থেকে আমরা উপহার পেয়েছিলাম কাটাতারে ফেলানীর লাশ। এবার বছরের প্রথম দিনে উপহার পেলাম দুটি লাশ।
সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাব মিলনায়তনে সাংবিধানিক অধিকার ফোরাম আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এই কথা বলেন।
‘আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে সংশয়ের অবসান চাই’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
তিনি আরও বলেন, আজকে আমাদের সীমান্ত অরক্ষিত, গণতন্ত্র হুমকির মুখে । এই সরকার দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ভারতের হাতে বিলিয়ে দিয়েছে।
সরকারের সমালোচনা করে তিনি বলেন, আজকে দেশের জনগণ আগামী সংসদ নির্বাচন নিয়ে সংশয়ের মধ্যে আছে। আওয়ামীলীগ জানে, সুষ্ঠ নির্বাচন হলে তারা ক্ষমতায় আসতে পারবে না। তাই তারা সংবিধান থেকে নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে দিয়েছে।
সম্প্রতি তত্ত্বাবধায়ক সরকার ও সরকারের জনপ্রিয়তা নিয়ে পত্রিকাগুলোর জরিপ নিয়ে তিনি বলেন, সরকারের জনপ্রিয়তা নিয়ে পত্রিকাগুলোর জরিপ বলছে, সরকারের জনপ্রিয়তা হ্রাস পেয়ে ৪০% এসেছে। নির্দলীয় সরকার চায় ৬০% মানুষ। আমরা মনে করি দেশের ৮০% মানুষ নির্দলীয় সরকার চায়। যদি তা না হয় তাহলে নির্বাচন অনিশ্চিত হয়ে যাবে, যা কোনভাবে কাম্য নয়।
দ্রব্য মূল্যের উর্ধ্বগতি নিয়ে এই বিএনপি নেতা বলেন, আওয়ামীলীগের নির্বাচনী ইশতেহারে পাঁচটি ওয়াদার মধ্যে একটি ছিল দ্রব্যমূল্যে নাগালের মধ্যে রাখা। তারা ওয়াদা রক্ষা করতে পারেনি। এখন দ্রব্যমূল্য আগের চেয়ে তিন গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে । বিদ্যুত জ্বালানীসহ সব কিছুর দাম বার বার বৃদ্ধি করে সরকার জনজীবন অস্থির করে তুলেছে।
আইন শৃংখলার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আইন শৃংখলা পরিস্থিতি ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে। সাগর রুনি হত্যার কোন বিচার আজ পর্যন্ত সরকার করতে পারেনি। আমাদের নেতা এম ইলিয়াছ আলী, চৌধুরী আলমসহ শতাধিক নেতা কর্মী গুম হয়ে গেছে। আজকে আমরা রফিকুল ইসলামের জানাযা শেষ করে এসেছি। তাকে তার শ্বশুড় বাড়ী থেকে র‌্যাব পরিচয়ে ধরে নিয়ে গেছে।
দেশের মানবাধিকার প্রসঙ্গে মোশাররফ বলেন, মানবাধিকার আজ বিলুপ্তির পথে। অধিকারের মতো প্রতিষ্ঠান গুলো মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।  হিউম্যান রাইটস ওয়াচের মতে, সরকারের ৯৭% এমপি দুর্নীতির সাথে যুক্ত।
সরকারের মিথ্যা বক্তব্যের উল্লেখ করে তিনি বলেন, আজকে তারা তাদের ব্যর্থতা ডাকতে মিথ্যা সফলতার কথা বলে জনগণের কাছে মিথ্যা বক্তব্য দিচ্ছে। জনগণের রায় দেওয়ার সুযোগ নষ্ট করে নিজেদের অধীনে নির্বাচন দিতে নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থা বিলুপ্ত করেছে।
সরকারের দুর্নীতির উল্লেখ করে তিনি বলেন, শেয়ার বাজার, হলমার্ক, পদ্মাসেতুতে দুর্নীতি করে সরকার দেশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করেছে। এর আগে ৯৬সালে তারা দেশকে দুর্ণীতিতে চ্যম্পিয়ন করেছে। এবার বিশ্বব্যাংকের সার্টিফিকেটের মাধ্যমে দেশকে বিশ্বচোর বানিয়ে দেশের মুখে কালিমা লেপন করেছে।
সকলকে দেশরক্ষার আন্দোলনের আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, যদি দেশের গণতন্ত্রকে সুসংহত রাখতে হয়, স্বাধীনতা রক্ষা করতে হয় তাহলে আন্দোলনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করার বিকল্প নেই। তাই দেশ ও গণতন্ত্রের স্বার্থে সকলকে আন্দোলনে অংশ নেওয়ার আহ্বান জানাই।
সংগঠনের সদস্য সচিব সুরঞ্জন ঘোষের সভাপতিত্বে এতে আরও বক্তব্য রাখেন মুক্তিযোদ্ধা এম সানোয়ার হোসেন, জিয়া সেনার সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুর হোসেন ঈসা ও ছাত্রী নেত্রী হেলেন জেরিন খান প্রমুখ।