Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

ডিজে পার্টি আর উন্মাতাল নাচের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে রাজধানী

 ডিজে পার্টি আর উন্মাতাল নাচের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে রাজধানী। আর এসব আয়োজন চলছে রাতের জন্য। কারণ আজ থার্টি ফাস্ট নাইট। সন্ধ্যার পরই জমে উঠবে পাঁচ তারকা হোটেলের বলরুমগুলো। একই ব্যস্ততা থাকবে হরেক নামের পার্টি কক্ষগুলোও। ২০১২ সালের শেষ দিনকে বিদায় আর ২০১৩ সালকে বরন করতে এখন চলছে সাজ সাজ রব। হোটেল রেস্টুরেন্টগুলোতে মজুদ করা হয়েছে খাদ্যের সমারোহে। আয়োজনের তোড়জোড়ে এরইমধ্যে নড়েচড়ে বসেছে প্রশাসন। ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, গুলশান, বনানী ও বারিধারা এলাকায় বসবাসরত নাগরিকেদের সন্ধ্যা ৭টার আগেই বাসায় ফেরার অনুরোধ জানিয়েছেন। যেকোন ধরণের নাশকতা বা অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে ব্যাপক নিরাপত্তা প্রস্তুতি নিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, গুলশান, বনানী এবং বারিধারাসহ বেশকিছু এলাকায় গড়ে তোলা হয়েছে কঠোর নিরাপত্তা বলয়। সাদা পোশাকে গোয়েন্দা সদস্যরা ইতোমধ্যেই এসব স্থানে অবস্থান নিয়েছে।  অনুষ্ঠানস্থলে সব ধরনের আগ্নেয়াস্ত্র বহনে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ডিএমপি কমিশনার বেনজীর আহমেদ জানান, থার্টি ফাস্ট নাইটে আনন্দ উৎসব উদযাপনের নামে কিছু উচ্ছৃঙ্খল ব্যক্তি নিজস্ব সংস্কৃতি, মূল্যবোধ ও ঐতিহ্যবিরোধী কর্মকান্ডে লিপ্ত হয়ে থাকে। তারা আনন্দের আতিশয্যে পটকাবাজি, আতশবাজি, অশোভন আচরণ, বেপরোয়া গাড়ি ও মোটর সাইকেল চালানোর মাধ্যমে রাস্তায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে। অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতির তৈরী করে। ক্ষেত্র বিশেষে মহিলাদের সঙ্গে অভদ্রো আচরণ করে থাকে। এবার এসব করতে দেয়া হবে না। পটকাবাজি, আতশবাজি, বেপরোয়া গাড়ি চালানোসহ সব ধরনের বেআইনী কার্যকলাপ থেকে বিরত থাকতে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। সার্বিক নিরাপত্তার স্বার্থে গুলশান, বনানী, বারিধারা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আবাসিক এলাকায় যারা বাস না করে তাদেরকে ওইসব এলাকায় যেতে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর এলাকায় আইন শৃঙ্খলা স্বাভাবিক রাখতে যানবাহন চলাচলে নিয়ন্ত্রণমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। গোয়েন্দা সূত্র জানিয়েছে, যেসব স্থানগুলোতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নজরদারী বাড়ানো হয়েছে সেসবের মধ্যে রয়েছে গুলশান ১ ও ২ এর গোলচত্বর, তেজগাঁও-গুলশান লিংক রোড, গুলশান শুটিং ক্লাব এলাকা, বনানী ১১ নম্বরের ২৩ ও ২৭ নম্বর রোডের সংযোগস্থল, মহাখালী লেবেল ক্রসিং, ফ্লাইওভার, আমতলী ক্রসিং, বনানীর নতুন ফ্লাইওভার, মহাখালী ওয়্যারলেস গেট, বনানী চেয়ারম্যান বাড়ি, কামাল আতাতুর্ক এভিনিউ, নর্দ্দা বিশ্বরোড ক্রসিং, বাড্ডা-গুলশান লিংক রোড, বারিধারা নতুন বাজার মোড়, জাতিসংঘ সড়ক, ধানমন্ডি ২৭ নম্বর, সংসদ ভবন এলাকা ও মানিক মিয়া এভিনিউ, উত্তরা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, বাংলা একাডেমী এলাকা, শাহবাগ মোড়, আজিজ সুপার মার্কেট, রূপসী বাংলা হোটেল মোড়, রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, অপরাজেয় বাংলার পাদদেশ, চারুকলা ইনস্টিটিউট, রমনা কালী মন্দির, তিন নেতার মাজার ও দোয়েল চত্বর প্রভৃতি। ডিএমপি মিডিয়া সেন্টারের উপ কমিশনার মাসুদুর রহমান জানান, রাজধানীর ৮টি ক্রাইম জোনকে বিভিন্ন সেক্টরে ভাগ করে মোতায়েন করা হচ্ছে প্রায় ৮ হাজার র‌্যাব-পুলিশ। নগরীর বিভিন্ন স্থানে সাদা পোশাকে সহস্রাধিক পুলিশ টহলে নামছে। পুলিশী পাহারার মধ্যে রয়েছে নগরীর শতাধিক পয়েন্টে। স্পর্শকাতর এলাকায় পুলিশের ডগ স্কোয়াড ছাড়াও প্রস্তুত রাখা হয়েছে রায়ট কন্ট্রোল কার, জল কামান, অগ্নি নির্বাপক গাড়ি ও এ্যাম্বুলেন্স। থার্টি ফার্স্ট নাইটে উচ্ছৃঙ্খলতা রোধে মাদক সনাক্তকরণ যন্ত্র ব্যবহার করা মাঠে থাকছে। থাকছে পুলিশ ও র‌্যাবের ভ্রাম্যমান আদালত থাকবে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট