Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

দীর্ঘ মেয়াদী ক্রিকেট বিসিএল মাঠে গড়াবে কাল

ঢাকা: বাংলাদেশ ক্রিকেট লীগ (বিসিএল) দীর্ঘ মেয়াদী ক্রিকেট কাল মাঠে গড়াবে। মিরপুর স্টেডিয়ামে ওয়ালটন মধ্যাঞ্চল ও প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চল ও বগুড়ার শহীদ চান্দু স্টেডিয়ামে ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চল ও বিসিবি উত্তরাঞ্চল মুখোমুখি হবে। সকাল সাড়ে নয়টায় ম্যাচ দুটি শুরু হবে। চারদিনের এই লীগে চার দলই অংশ নিচ্ছে।

ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক বা মালিকানাভিক্তিক এই লীগটি হবে সিঙ্গেল লীগ পদ্ধতিতে। এবই টুর্নামেন্টের প্রথম রাউন্ড বিপিএল টি২০ ক্রিকেটের দ্বিতীয় আসর শুরুর আগে শেষ হবে। গ্রুপ পর্বের পয়েন্ট তালিকায় শীর্ষে থাকা দুটি দল খেলবে ফাইনালে। বিপিএলের ফাইনাল শেষ হবার পরই শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটি হবে। ফিক্সচার সেভাএবেই তৈরি করেছে টুর্নামেন্ট কমিটি। গ্রুপ পর্বের খেলাগুলো হবে লাল বলে। আর ফাইনাল ম্যাচটি দিবারাত্রিতে হওয়ার কারণে বলের রং বদলে যাবে। গোলাপী বল দিয়ে ফাইনাল হবে।

গ্রুপ পর্বের ম্যাচগুলো চারদিনের হলেও শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচটি হবে পাঁচদিনের। লীগকে প্রথম শ্রেণীতে করার চেষ্টা করছে বিসিবি। বুধবার এ নিয়ে আইসিসির কাছে অনুমোদন পেতে আবেদনও জানিয়েছে ক্রিকেট বোর্ড। বুধবার মিরপুর স্টেডিয়ামের প্রথশ বার ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিক্তি জাতীয় লীগে উপলক্ষ্যে আয়োজন করা হয় আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন। মিডিয়া কনফারেন্স রুমে  সংবাদ সম্মেলনে লীগ সম্পর্কে অন্য তথ্য দিলেন টুর্নামেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান নাঈমুর রহমান দুর্জয়।
বিসিবির এডহক কমিটির পরিচালক মাহবুবুল আনাম, গাজী আশরাফ হোসেন লিপু ও জালাল ইউনুসও এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

লীগের খেলাগুলো হবে মিরপুর ও বগুড়ায়। সঙ্গে খুলনার শেখ আবু নাসের স্টেডিয়ামকেও রাখা হয়েছে বিকল্প ভেন্যু হিসাবে। ২ জানুয়ারি বগুড়ায় ওয়ালটন মধ্যাঞ্চল-বিসিবি উত্তরাঞ্চল ও মিরপুরে ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চল ও প্রাইম ব্যাংক দক্ষিনাঞ্চল মুখোমুখি হবে। আর লীগের শেষ দুটি ম্যাচে ৮ জুন মিরপুরে প্রাইম ব্যাংক দক্ষিনাঞ্চল ও বিসিবি উত্তরাঞ্চল ও বগুড়ায় ওয়ালটন মধ্যাঞ্চল ও ইসলামী ব্যাংক পূর্বাঞ্চল ব্যাটে-বলে যুদ্ধ করবে।

লীগের টাইটেল স্পন্সর এখনো চূড়ান্ত হয়নি। তবে দ্রুতই স্পন্সর পাওয়া যাবে বলে বিসিবি থেকে জানানো হয়েছে। প্রতি ম্যাচেই একাদশে থাকা ক্রিকেটাররা ৪০ হাজার টাকা করে পাবে। আর একাদশের বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা ২০ হাজার টাকা করে পাবে। পাঁচদিনের ফাইনাল ম্যাচে একাদশে থাকা ক্রিকেটাররা ৫০ হাজার টাকা করে পাবে। আর একাদশের বাইরে থাকা ক্রিকেটাররা পাবে ২৫ হাজার টাকা করে।

প্রথমবারের মত ফ্র্যাঞ্চাইজি পদ্ধতিতে দেশের মাটিতে চারদিনের ক্রিকেট মাঠে গড়ানোর অপেক্ষায়। এই লীগের চ্যাম্পিয়ন দল পাবে ৩৫ লাখ টাকা আর রানার্সআপ দল পাবে ১৫ লাখ টাকা। লীগের সেরা ক্রিকেটার এক লাখ টাকা পাবে। আর প্রতি ম্যাচে জয়ী দল পাবে এক লাখ টাকা করে। প্রতি ম্যাচে ম্যাচ সেরা ২৫ হাজার টাকা করে পাবে।

জাতীয় ক্রিকেট লীগের মতো এ লীগেও বোনাস পয়েন্ট পদ্ধতি থাকবে। সরাসরি জয় পেলে ৬ পয়েন্ট পাবে দলগুলো। দুই দলই প্রথম ইনিংস শেষে ম্যাচ ড্র হলে প্রথম ইনিংসে এগিয়ে থাকা দল পাবে ৩ পয়েন্ট। আর প্রথম ইনিংসে পিছিয়ে থাকা দল পাবে ১ পয়েন্ট। যদি কোনো দলই প্রথম ইনিংসে এগিয়ে না থাকে ও প্রথম ইনিংস না খেলাও হয় এবং ম্যাচ ড্র হয়ে যায় তাহলে দুই দলই ৩ পয়েন্ট করে পাবে। ম্যাচ ড্র হলে এবং দুই দলই দুই ইনিংস খেললেও ৩ পয়েন্ট করেই পাবে। ম্যাচ না হলেও ৩ পয়েন্ট করে পাবে দলগুলো।

এ লীগ খেলার স্বপ্ন দেখে গিয়েছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক সভাপতি আহম মোস্তফা কামাল এমপি। আজ তার সেই স্বপ্ন সফল হচ্ছে। সেই সঙ্গে লংগারভার্সন ক্রিকেট যে ‘পিকনিক লীগ’ আর নেই ফ্র্যাঞ্চাইজিদের হাতে লীগের দলগুলো যাওয়ায় সেটিই প্রমাণিত হবে। প্রতিদ্বন্দ্বিতা দেখা যাবে। এবং ক্রিকেটাররাও দীর্ঘমেয়াদী ক্রিকেটে নিজেদের প্রমান করার জন্য মরিয়া হয়ে খেলবে। এমনই আশা করা হচ্ছে টুর্নামেন্ট কমিটি থেকে।

তবে এই লীগ নিয়ে হতাশাও আছে। শাহরিয়ার নাফীসের মতো দীর্ঘমেয়াদী ক্রিকেটে পরীক্ষিত সৈনিকদের জায়গা হয়নি এ লীগের ১৫ সদস্যের দলে। প্রাইম ব্যাংক দক্ষিণাঞ্চলে শাহরিয়ারকে রাখা হয়েছে রিজার্ভ ক্রিকেটার হিসেবে। এ প্রসঙ্গে মাহবুবুল আনাম বললেন, “যদি নিলাম হত তাহলে ক্রিকেটার বাছাই করেই নিত ফ্র্যাঞ্চাইজিরা। সেখানে পারফর্মারদেরই প্রাধান্য বেশি থাকত। শাহরিয়ারকে ফ্র্যাঞ্চাইজিরা চাইলে খেলাতেও পারে।”

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট