Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘শিশু রাব্বিকে জীবিত চাইলে এক লাখ টাকা’

 ‘পুলিশকে না জানিয়ে এক লাখ টাকা দিলে রাব্বিকে জীবিত পাবে। নতুবা তার লাশ পাবে।’ গতকাল বিকালে মোবাইল ফোনে অপহরণকারী এভাবে টাকা চায় আড়াই বছরের শিশু রাব্বির পরিবারের কাছে। এ কথা শোনার পর কান্নার রোল পড়েছে সিলেটের ওসমানীনগর থানার ফকিরাবাদ গ্রামের রাব্বির পরিবারে। মা-বাবাসহ পরিবারের স্বজনরা শুধু কাঁদছেন। আড়াই বছরের শিশু রাব্বি। এখনও ভালভাবে কথাই বলতে পারে না। রাব্বির পিতা নেছার মিয়া বেগমপুর বাজারে চা দোকানি। স্বল্প আয়ের এ মানুষটি অপহরণকারীর কবলে পড়ে সন্তান হারানোর আশংকায় কেঁদে চলেছেন। এলাকার লোকজন জানান, নেছার মিয়ার দোকানে প্রায় ৩ মাস আগে কাজ নেয় হৃদয় নামের এক যুবক। কাজ নেয়ার সময় হৃদয় বলেছে, তার বাড়ি মৌলভীবাজারের কাউখালী গ্রামে। কাজ নেয়ার সুবাদে নেছার মিয়ার বাড়িতে প্রায় সময় যাতায়াত করতো সে। প্রতিদিন দুপুরের দিকে সে নেছার মিয়ার বাড়িতে গিয়ে তার আড়াই বছরের শিশুপুত্র রাব্বিকে নিয়ে খেলা করতো। মাঝে মধ্যে সে রাব্বিকে নিয়ে দোকানে চলে আসতো। গতকাল বেলা ২টার দিকে নেছার মিয়ার বাড়িতে যায় সে। এ সময় সে তাকে দোকানে যাওয়ার কথা বলে নিয়ে আসে। এরপর থেকে তাদের খোঁজ নেই। নিখোঁজ হওয়ার এক ঘণ্টা পর হৃদয় একটি মোবাইল থেকে ফোন করে রাব্বির পিতা নেছার মিয়াকে রাব্বিকে জীবিত ফেরত পেতে এক লাখ টাকা দাবি করে। এরপর আবার যোগাযোগ করে বলে, ‘আগামীকাল সকাল ৯টায় বলবো কোথায় আসতে হবে।’ হৃদয়ের ফোন পেয়ে অস্থির হয়ে ওঠেন নেছার মিয়া। তিনি এলাকার লোকজনকে বিষয়টি জানান। সন্ধ্যায় তারা সিলেটের ওসমানীনগর থানা পুলিশের কাছে বিষয়টি জানায়। নেছার মিয়ার প্রতিবেশী নবেল আহমদ রাতে জানিয়েছেন, রাব্বি এখনও ভালভাবে কথা বলতে পারে না। তার অবস্থা কেমন আমরা এ নিয়ে শঙ্কায় আছি। তিনি ধারণা করেন, অপহরকারী চক্রের সদস্য বলে হৃদয় পরিচয় গোপন রেখে কাজে যোগ দিয়ে রাব্বিকে অপহরণ করেছে। এ ব্যাপারে ওসমানীনগর থানার ওসি মো, জুবায়ের আহমদ জানিয়েছেন, বিষয়টি পুলিশের নজরে আসার পরপরই সিরিয়াসলি কাজ শুরু হয়েছে।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট