Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

‘ক্যামেরা ট্রায়াল করবেন কেন, স্কাইপ করেন’

ক্যামেরা ট্রায়ালে সাক্ষ্যগ্রহণের ব্যাপারে আপত্তি জানিয়েছেন যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী এবং তার আইনজীবী আহসানুল হক হেনা। বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন এবং বিচারপতি আনোয়ারুল হকের ট্রাইব্যুনালে আজ তারা এ আপত্তির কথা জানান। ট্রাইব্যুনাল এ সময় আইনজীবীকে হেনাকে বলেন, আপনিতো এর আগে ক্যামেরা ট্রায়ালের সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ নির্ধারনের সময় কোন আপত্তি জানান নি। এখন কেন আপত্তি করছেন। আইনজীবী হেনা বলেন, কিসের ক্যামেরা ট্রায়াল? যে সাক্ষী আজ ট্রাইব্যুনালে ক্যামেরা ট্রায়ালে সাক্ষ্য দিতে এসেছেন তিনি কোন ভিকটিম নন। তাই এই সাক্ষীর ক্যামেরা ট্রায়ালের প্রয়োজন নেই। এ সময় ট্রাইব্যুনালের এজলাশের ডকে বসা সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী উত্তেজিত হয়ে বলতে থাকেন , কিসের ক্যামেরা ট্রায়াল? আপনারা স্কাইপ করেন। এসময় ট্রাইব্যুনাল বলেন মিডিয়া কর্মীরা বের হয়ে যাওয়ার পর আপনি যা বলার বলবেন। এসময় সংবাদকর্মীরা এজলাস ত্যাগ করেন। তার কিছুক্ষণ পরই সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরী নেমে আসেন। ট্রাইব্যুনালের সিড়িতে তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে করে বলেন, এটা কি ধর্ষনের মামলা নাকি? গোপনীয়তা রক্ষার জন্য ক্যামেরা ট্রায়ালের দরকার হবে। এর আগে ট্রাইব্যুনালে সুলতানা কামাল সাক্ষ্য দিতে এসেছিল তখনতো কোন ক্যামেরা ট্রায়াল হয়নি তবে এখন কেন। তিনি বলেন, এরা মাহমুদুর রহমানের ওপর ক্ষ্যাপা কেন? যারা স্কাইপ নিউজটা বের করেছে তাদের ওপর ক্ষেপতে পারেনা? তিনি সাংবাদিকদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন, আমার জন্য দোয়া করবেন। যেন বের হয়ে আসতে পারি। এর আগে অধ্যাপক গোলাম আযমের পক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার এহসান এ সিদ্দিক ট্রাইব্যুনালের বিচারকাজ চালানোর বৈধতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। শুনানিতে তিনি বলেন, ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান যেহেতু নেই, তাই বিচারকাজও চলতে পারেনা। এটা অবৈধ। এ সময় ট্রাইব্যুনাল ব্যারিস্টার সিদ্দিককে প্রশ্ন করেন, আপনি এ সংক্রান্ত কোন গেজেট নোটিফিকেশন পেয়েছেন? আইনজীবী বলেন, গেজেট নোটিফিকেশনের প্রয়োজন নেই। এটাতো জানা কথা। ট্রাইব্যুনাল বলেন, এর আগে চেয়ারম্যানের অনুপস্থিতিতেও ট্রাইব্যুনালের বিচারকাজ হয়েছে। আপনি ফ্যাক্টস্ জানেন না। এই মাত্র কলিগদের সঙ্গে পরামর্শ করে ট্রাইবুনালের কাছে আপনি এ আবেদন করেছেন। আপনাকে আগে ফ্যাক্টস্ জানতে হবে। পরে গোলাম আযমের মামলার শুনানিও মূলতবি করা হয়।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট