Widgetized Section

Go to Admin » Appearance » Widgets » and move Gabfire Widget: Social into that MastheadOverlay zone

পরিবারের সম্মান বাঁচাতে বোনের মাথা কেটে নিল ভাই

পরিবারের ‘সম্মান বাঁচাতে’ মধ্যযুগীয় বর্বরতার সাক্ষী থাকল কলকাতা। প্রথম \’অনার কিলিং\’ এর ঘটনা ঘটল এরাজ্যে, খোদ কলকাতার বুকে।

বন্দরের কাছে নাদিয়াল থানা এলাকায় শ্বশুরবাড়ি থেকে পালিয়ে আসা অত্যাচারিত বোনের মাথা কেটে খুন করল দাদা। পরে সেই কাটা মাথা নিয়েই থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করে খুনি মেহতাব আলম।

প্রায় আট বছর আগে আকবরের সাথে বিয়ে হয়েছিল নীলোফারের। তাদের দুটি সন্তানও রয়েছে। কিন্তু শ্বশুরবাড়িতে প্রতিদিনই নীলোফার অত্যাচারিত হত বলে অভিযোগ।

গত ২৯ নভেম্বর, বৃহস্পতিবার, হঠাত শ্বশুরবাড়ি থেকে উধাও হয়ে যায় নীলোফার। পরদিন তার বাবা থানায় একটি নিখোঁজের অভিযোগ জানান। এতদূর পর্যন্ত কোনও সম্মানহানির ঘটনা ঘটেনি।

কিন্তু নীলোফারের দাদা মেহতাব আলম জানতে পারেন, নীলোফার শ্বশুরবাড়ি থেকে পালিয়ে তার প্রাক্তন প্রেমিক ফিরোজের কাছে গিয়ে উঠেছে। মেহতাব খোঁজ নিতে শুরু করে। জানতে পারে নীলোফারকে নিয়ে ফিরোজ তার দাদার বাড়িতে লুকিয়ে রয়েছে।

শুক্রবার সকালে মেহতাব আলম একটি তরোয়াল নিয়ে সেই বাড়িতে চড়াও হয়। ফিরোজের ভাবী সাবু বাধা দিতে গেলে প্রথমে মেহতাব তাকে কোপ মারে। সাবুর হাত কেটে প্রায় ঝুলে পড়ে।

তারপরেই বোন নীলোফারকে টেনে-হিঁচড়ে বার করে মেহতাব আলম। প্রকাশ্যে তরোয়ালের এক কোপে ধড় আর মাথা আলাদা করে দেয়। তারপর সেই কাটা মাথা নিয়ে তরোয়ালসহ নাদিয়াল থানায় গিয়ে আত্মসমর্পণ করে। পুলিশ মেহতাব আলমকে গ্রেপ্তার করেছে।

প্রত্যন্ত গ্রাম নয়, খোদ কলকাতায় এমন ঘটনা ঘটে যাওয়ায় স্তম্ভিত পুলিশ-প্রশাসন সহ নাগরিক সমাজ।

Share this:
Share this page via Facebook Share this page via Twitter

LIKE US on FACEBOOK নিউজ সোর্স b24/মজ / ডেস্ট